রাত ৪:৪৫ সোমবার ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

দলিত নারীর উন্নয়নে শিক্ষার উন্নয়ন এবং বাল্যবিবাহ বন্ধের আহ্বান

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ২২, ২০১৯ , ৫:৩৭ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : নারী ও শিশু
পোস্টটি শেয়ার করুন

জাত-পাত ও পেশাগত পরিচয়ের কারণে বাংলাদেশে প্রায় ৬৫ লক্ষ দলিত জনগোষ্ঠী প্রতিনিয়ত বৈষম্যের শিকার হয় যার প্রায় অর্ধাংশই নারী। বাংলাদেশের সংবিধানে জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানুষের সমান অধিকারের কথা বলা হলেও দলিত ও সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী বিভিন্ন ধরনের বৈষম্যের শিকার হচ্ছে। তবে আশার কথা দলিত নারীরা বর্তমানে সংঘবদ্ধ হতে শুরু করেছে এবং সরকারের পাশপাশি তারা স্ব-উদ্যোগে নিজ নিজ এলাকার দলিত নারীর উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে।

বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় বিচ্ছিন্নভাবে সক্রিয় এ সকল ব্যক্তি এবং সংগঠনসমূহ একত্রিত হয়ে জাতীয় পর্যায়ে দলিত নারীর উন্নয়নে এ্যাডভোকেসি কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে ২০১২ সালে জাতীয় মঞ্চ ‘বাংলাদেশ দলিত নারী ফেডারেশন (বিডিডব্লিউএফ)’ গঠন করে। বর্তমানে ১০টি দলিত নারী নেতৃত্বাধিন সংগঠন ফেডারেশন এর সদস্য।

দলিত নারীর মানবাধিকার উন্নয়ন এবং জাতীয় পর্যায়ে দলিত নারীদের আরো সংগঠিত করার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ দলিত নারী ফেডারেশন ও দলিত নারী ফোরাম এর আয়োজনে ২২ অক্টোবর, ২০১৯ (মঙ্গলবার)র‌্যালি এবং আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বর্ণাঢ্য র‌্যালিটি সকাল ৯:৩০ এ আসাদ গেট, মোহাম্মদপুর থেকে শুরু হয়ে উইমেনস্ ভলান্টারি এ্যাসোসিয়েশন (ডব্লিউভিএ), ধানমন্ডিতে এসে শেষ হয়। সকাল ১০:৩০ এ ডব্লিউভিএ মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ এর মাননীয় সদস্য আরোমা দত্ত।

আলোচনা দলিত নারীদের সাথে সংহতি জানাতে উপস্থিত ছিলেন জাকির হোসেন, প্রধান নির্বাহী, নাগরিক উদ্যোগ এবং উপদেষ্টা, বিডিডব্লিউএফ; জনাব মো: আলমগীর হোসেন, জেলা লিগ্যাল এইড অফিসার, সিনিয়র সহকারী জেলা জজ, ঢাকা; রাবেয়া রওশন, গবেষক ও নৃ-বিজ্ঞানী; সোহানা আহমেদ, শিক্ষক, ফিল্ম এন্ড মিডিয়া বিভাগ, জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয়, ঢাকা; রাবেয়া বেগম, পরিচালক, শরীয়তপুর ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি; মাহবুবা আখতার, উপ-পরিচালক (এ্যাডভোকেসি), বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড এন্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট (ব্লাস্ট); ইয়াসমিন পিউ, জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, দৈনিক ইত্তেফাক।

সভায় সভাপতিত্ব করেন মনি রাণী দাস, সাদারণ সম্পাদক, দলিত নারী ফোরাম। এছাড়া সভায় বাংলাদেশ তলিত নারী ফেডারেশন এর সদস্য এবং দলিত নেতুবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। জাতীয় সংগীত পরিবেশন এবং দলিত আন্দোলনের প্রয়াত নেতৃবৃন্দের প্রতি সম্মান জানানোর উদ্দেশ্যে প্রদীপ প্রজ্জলনের মাধ্যমে সভার কার্যক্রম শুরু হয়। সভায় স্বাগত মূল বক্তব্য পাঠ করেন তামান্না সিং বাড়াইক, ফিল্ড কো-অর্ডিনেটর, দলিত নারী ফোরাম।

সংহতি বক্তব্যে আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ বলেন, বিগত ১০ বছর পূর্বে বাংলাদেশে দলিত জনগোষ্ঠীর মানবাধিকারের বিষয়টি সেভাবে আলোচিত না হলেও বর্তমানে দলিত জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকার এবং বেশ কয়েকটি বেসরকারি সংস্থা কাজ করে যাচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দলিত জনগোষ্ঠীর জন্য পরিচ্ছন্নতাকর্মে শতকরা ৮০ ভাগ কোটা বরাদ্দসহ তাদের আবাসন, শিক্ষা এবং সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কার্যক্রমে অন্তর্ভূক্তির ব্যাপারে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন।

উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো দলিত নারীরা বর্তমানে নিজিদের সংগঠিত করতে শুরু করেছে। তারা নিজেদের অধিকার আদায়ের ব্যাপারে সোচ্চার হচ্ছে। তবে বক্তাগণ বলেন পরিবার হচ্ছে দলিত নারীর উন্নয়নের পথে বড় বাধা। এই বাধা দুর করে দলিত নারীর উন্নয়ন তরান্বিত করতে হলে প্রয়োজন সচেতনতা এবং পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতার পরিবর্তন। এছাড়া বক্তাগণ দলিত পিতা-মাতাদের তাদের সন্তানদের বাল্যবিবাহ না দিয়ে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলার আহ্বান জানান।

প্রধান অতিথি আরোমা দত্ত তার বক্তব্যে বলেন বর্তমান সরকার নারীবান্ধব সরকার। মাননীয় প্রদানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট দলিত জনগোষ্ঠীর উন্নয়নের বিষয়ে আবেদন জানালে তিনি তাদের আবেদনে অবশ্যই সাড়া দিবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Comments

comments