বিকাল ৫:২৬ বৃহস্পতিবার ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

রাজনীতিতে স্বচছ ও ক্লিন ইমেজের নেতার কোন বিকল্প নেই: আবুল কালাম রিপন

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ২০, ২০১৯ , ৯:৫৬ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিশেষ প্রতিবেদন
পোস্টটি শেয়ার করুন

এস,এম,মনির হোসেন জীবন : ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী যুবলীগের সহ-সম্পাদক ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আবুল কালাম রিপন বলেছেন, আওয়ামী যুবলীগকে শক্তিশালী করতে হলে এখন থেকে স্বচছ ও ক্লিন ইমেজের নেতা আমাদেরকে তৈরী করতে হবে। একটি দল কিংবা সংগঠনকে শক্তিশালী হিসেবে গড়ে তুলতে দক্ষ ও ক্লিন ইমেজের নেতার কোন বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করে তিনি।
একে রিপন বলেন, সততা, ধৈর্য্য, সাহস, বুদ্ধিমত্বা, ভাল ও সুন্দর কর্ম ছাড়া কেউ রাজনীনিতে এগিয়ে যেতে পারেনা। দলীয় একজন কর্মীকে সবার আগে সেটি প্রমান করতে হবে। যারা রাজনীতি করে তাদের জনগনের কাছে যাওয়ার অধিকার আছে। কাউকে রাজনীতির মাধ্যমে ডিসকোয়ালিফাই করার প্রবণতা আমাদেরকে ত্যাগ করতে হবে। তাহলে দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা দলের তৃণমূল পর্যায়ের পরিক্ষিত নেতা কমীদেরকে মূল্যায়ন করবেন।

আজ রোববার দুপুরে রাজধানী তুরাগে আমাদের বিশেষ প্রতিনিধি এস. এম. মনির হোসেন জীবনের সাথে এক বিশেষ সাক্ষাতকারে তিনি এসব কথা বলেন।

যুবলীগের সহ-সম্পাদক আবুল কালাম রিপন বলেন, রাজধানীর তুরাগ থানা ও ডিএনসিসি ৫৩ নম্বর ওয়ার্ড চন্ডাল ভোগ গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা আমার পিতা মরহুম কালু মিয়া জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ও তার কর্মকান্ডকে মনেপ্রাণে ভালবেসে ও বিশ্বাস করে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। পিতার মত আমিও তার আদর্শে মনেপ্রাণে ভালবেসে এবং তার আদর্শকে বুকে ধারণ করে আজো আমি বিগত ২৮ বছর ধরে আওয়ামী যুবলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত আছি।

তিনি বলেন, হরিরামপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমানে তুরাগ থানার আওয়ামী লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্বা মো: আবুল হাসিম চেয়ারম্যানের হাত ধরে আমার রাজনীতিতে আসা হয়। তার হাত ধরে আমার রাজনীতিতে হাতে ঘড়ি ও পথচলা শুরু হয়। আমি ১৫ বছর বয়স থেকে আওয়ামী রাজনীতিতে পা ফেলি।

শিক্ষাজীবন থেকে আমি ছাত্র রাজনীতিতে সম্পৃক্ত উল্লেখ করে বলেন, আমি ১৯৭৩ সালের ২রা সেপ্টেম্বর তুরাগের চন্ডালভোগ গ্রামে মিয়া বংশে জন্ম গ্রহন করি। আমার পিতার নাম মরহুম কালু মিয়া। আমি ১৯৮৯ সাল থেকে শুরু করে ২০০৩ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ প্রায় ১৪ বছর হরিরামপুর ইউনিয়ন সাবেক ৫ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ছিলাম। পরবর্তীতে ২০০৬ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত আমি হরিরামপুর ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করি। এরপর ২০০৮ সালে আমাকে দল মূল্যায় করে ঢাকা মহানগর উত্তর উত্তর যুবলীগের সহ-সম্পাদক নির্বাচিত করেন।

তিনি আরও বলেন, আমার পড়াশুনা হাতেগড়ি শুরু হয় ডিয়াবাড়ি সরকারী প্রাথমিক বিধ্যালয় থেকে। এরপর আমি উত্তরা নওয়াব হাবিবুল্লাহ উচচ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করি। পরবর্তীতে উন্মোক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে পড়াশুনার শেষ করি। স্কুল ও কলেজ জীবনের ছাত্রলীগের রাজনীতির মাধ্যমে ছাত্র রাজনীতিতে আমার আগমন ঘটে।

রাজনীতি করতে হলে তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিযোগিতা থাকবে উল্লেখ করে বলেন, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী যুবলীগের লীগের সভাপতি মাইনুল হোসেন খান নিখিল ভাইয়ের অনুপ্রেরনায় এবং তার নির্দেশক্রমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষে শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদের গড়ার প্রত্যয়ে আমি দলের এক কর্মী হিসেবে দীর্ঘ ২৮ বছর ধরে দলের জন্য নিরলস ভাবে কাজ করে আসছি। মাইনুল হোসেন খান নিখিল আমার রাজনীতির পদপ্রদর্শক।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাজনীতি করতে হলে তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিযোগিতা থাকবে এটাই স্বাভাবিক। আমি দলের হাইকমান্ডের নির্দেশ মেনেই স্বচছ ভাবে রাজনীতি করি। আর রাজনীতিকে রাজনীতি ভাবেই মোকাবেলা করা উচিৎ।

তিনি বলেন, কোনও নোংরা খেলা রাজনীতির অংশ হতে পারে না। আমি ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের একজন কর্মী হিসেবে মানুষের কল্যানের জন্য রাজনীতি করি। দেশের আপামর জনগনকেই নিয়েই আমার রাজনীতি। মানুষের কল্যানের জন্যই আমি নিরলস ভাবে আজো রাজনীতি করে যাচিছ। আমার কোন চাওয়া পাওয়া নেই।

আমার পরিবার হল রাজনৈতিদক দলের পরিবার উল্লেখ করে বলেন, আমি ও আমার পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন সময় মিথ্যা মামলা সহ অহেতুক ভাবে হয়রানীর শিকার হয়েছি। আমার পরিবার হল নির্যাতিত পরিবার।

পরিবার ও পারিবারিক জীবনের কথা তুলে ধরে যুবলীগের এই নেতা বলেন, আমি ৩ কন্যা সন্তানের জনক। আমার সহধর্মীনির নাম আফরোজা বেগম। আমার বড় মেয়ে তামান্না আক্তার আশা উত্তরা ইউনির্ভাসিটি বিবিএ পাস করেছে। দ্বিতীয় মেয়ে সুমাইয়া আক্তার কেয়া এবছর উত্তরা মাইলস্ট্রোন স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষার্থী এবং সবার ছোট মেয়ে লামিয়া আক্তার ইতি একই স্কুলে চতুর্থ শ্রেনীর শিক্ষার্থী।

তিনি বলেন, ২০১২ সাল থেকে শুরু শুরু করে ২০১৯ সাল অদ্যবধি পর্যন্ত আমি পরিবারের সদস্যদেরকে সাথে নিয়ে ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসছি। বাবার রেখে যাওয়া সামান্য কিছু জমি থাকলেও সেই জমিতে কোন ধরনের ঘরবাড়ি (অবকাঠামো) স্থাপন করতে পারিনি। নিজের কোন কিছু নেই, মাসিক ১৪ হাজার টাকা দিয়ে বাড়ি পাশে ভাড়া বাসায় বসবাস করছি।

এক প্রশ্নের জবাবে আবুল কালাম রিপন বলেন, আমি দীর্ঘ ২৮ বছর ধরে আওয়ামী রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত আছি। ১৩ বছর আমি হরিরামপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ছিলাম।

দলের মধ্যে নব্য হাইব্রিড নেতারা অনুবেশ করেছে উল্লেখ করে যুবলীগ নেতা একে রিপন বলেন, হাইব্রিড নেতারা দলের ইমেজ নষ্ট হচেছ। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গঠনের লক্ষে দলের মধ্যে অনুপ্রবেশকারী এসব আগাছা পরগাছা নেতাদেরকে দূরে সরাতে হবে। দলের পরীক্ষিত ও ত্যাগীরা নেতারা অভিমানী হয়। তবে,তারা বেঈমান হয় না।

তিনি বলেন, যারা যুবলীগকে কুলষিত করেছে,যারা যুবলীগে কৌশলে প্রবেশ করে দলের ইমেজ নষ্ট করছেন তাদের বিরুদ্বে দলের নীতিনির্ধারকরা অবশ্যই কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করবেন। দলের নাম ভাঙ্গিয়ে কেই কোন অপরাধ করলে তার দায় দল নিবে না। যে অপরাধ করবে তাকেই তার দায় বহন করতে হবে। এটাই আমার প্রত্যাশা।

এক প্রশ্নের জবাবে আবুল কালাম রিপন বলেন, খুব শিগগিরই দলের সম্মেলন হবে। দলের জাতীয় সম্মেলনকে ঘিরেই ইতি মধ্যে দলীয় নেতাকর্মীরা দৌঁড়ঝাঁপ শুরু করে দিয়েছেন। চাঁদাবাজ, দখলবাজ, সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসায়ী ও যারা নানাবিধ অপরাধ কর্মকান্ডের সাথে জড়িত তাদের দলে ঠাই হবেনা। তাদেরকে কোন ছাড় দেওয়া হবেনা।

এক প্রশ্নের জবাবে দলের এই ত্যাগী নেতা বলেন, দীর্ঘ ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসেছে। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার প্রথম ক্ষমতায় আসে। ২০০১ সালে বিএনপি-জামাত জোট সরকার ক্ষমতায় ছিল। তখন বাংলাদেশ আরও একধাপ পিছিয়ে যায়। দীর্ঘ ১১ বছর দেশে যে পরিমান উন্নয়ন হয়েছে তাতে দেশ আগামী ৫০ বছরে এগিয়ে গেছে।

আবুল কালাম রিপন বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জাতিরজনকের সুযোগ্য কণ্যা দেশরতœ শেখ হাসিনা ১৯৮১ সালে যখন বাংলাদেশে ফিরে আসে তখন ঢাকা হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মিছিল নিয়ে নেত্রীকে বরণ করতে গিয়েছিলাম। তখন বিমানবন্দরে আমি ও আমার দলের নেতাকর্মীরা পুলিশী নির্যাতনের শিকার হয়েছি। তখনও আমি হাল ছাড়িনি। দলীয় সভানেত্রীকে নানা বাধার মুখেও মিছিল নিয়ে রাজপথ দিয়ে সুদা সদনে পৌছে দিয়েই তবে ঘরে ফিরি।

তিনি আরও বলেন, তৎকালীন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি আবুল বাশার ও দলের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল রাজপথে ব্যাপক ভুমিকা রেখেছিলেন। সেই দিন কোথায় ছিলেন দলের নব্য হাইব্রিড নেতারা।

বিএনপিকে দুর্নীতিবাজ সরকার উল্লেখ করে যুবলীগ নেতা একে রিপন বলেন, বিএনপি’র শাসনামলে ৫বার দুর্নীতিতে বিশ্ব চ্যাপি¥য়ন হয়েছিল বাংলাদেশ। বিএনপি তথা জামাত জোট সরকারের আমলে দেশে ব্যাপক দুর্নীতি করেছিল। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে দেশের মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন হয়,আর বিএনপি ক্ষমতায় আসলে দেশ ধবংসে পরিণত হয়।

এক প্রশ্নের জবাবে যুবলীগ নেতা আবুল কালাম রিপন বলেন, বিশ্ব ব্যাংকের টাকা দিয়ে নয়, দেশীয় অর্থায়নে দেশের পদ্মা সেতু নির্মিত করছে আওয়ামীলীগ সরকার। শেখ হাসিনার বিগত ১১ বছরের শাসনামল বিশ্বের মধ্যে বাংলাদেশ এখন রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। উন্নয়নের মহাসড়কে পৌছে গেলে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনা এখন বিশ্বনেত্রী।

তিনি আরও বলেন, বিএনপি শাসনামলে দেশে সন্ত্রাস, জঙ্গী, জঙ্গীবাদের সৃষ্টি হয়। অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসা বিএনপি’র সৃষ্টি। দেশের টাকা তারা বিদেশে পাচার করেছে। এটা হতে পারেনা।

তৃণমূল পর্যায়ের দলের পরিক্ষিত নেতাদের আগামী দিনে দল মূল্যায়ন করবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আজকে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত। অথচ দলে এখন নব্য ও হাইব্রিড নেতাদের ছড়াছড়ি। হাইব্রিড ও সুবিধাবাদী নেতারা পদে পদে সয়লাব হয়ে গেছে। সেই দিন তো আওয়ামীলীগের দু:সময়ে দলের হাল ধরার জন্য কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। সেই দিন কোথায় ছিলেন দলের এই সব হাইব্রিড নেতারা। তাহলে কি দলের ত্যাগী নেতাদের কি কোন মূল্যায়ন করা হবে না ?

অপর এক প্রশ্নের জবাবে একে রিপন বলেন, ঢাকা-১৮ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ও সাবেকমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন (এমপি) একজন স্বচছ রাজনীতিবিদ। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের সদস্য সাহারা খাতুন (এমপি) একজন সাদা মনের মানুষ। আগামী দিনে তার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগ ও বৃহত্তর উত্তরা থানা যুবলীগ তথা ডিএনসিসি (৫১, ৫২. ৫৩ ও ৫৪) নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগ বদ্বপরিকর। ঢাকা-১৮ আসন তথা দেশ উন্নয়নে সাহারা খাতুন এমপি’র কোন বিকল্প নেই।
তুরাগ থানা আওয়ামী লীগের ঘাঁটি উল্লেখ করে যুবলীগের এই নেতা বলেন, তুরাগ থানা আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে হরিরামপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমানে তুরাগ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্বা মো: আবুল হাসিম চেয়ারম্যানের অবদান সব চেয়ে বেশি। স্বাধীনতার উত্তরসরি হিসেবে তার কথা এলাকাবাসি সারাজীবন ভালবেসে মনে রাখবে। তুরাগ থানা ও হরিরামপুর ইউনিয়নকে আওয়ামী লীগের ঘাঁটিকে পরিণত করতে হাসিম চেয়ারম্যানের কৃতিত্বকে মানুষ মনে রাখবে। একজন স্বচছ, আদর্শবান রাজনীতিবিদ, দলের একজন বলিষ্ট ত্যাগী নেতা হিসেবে তার কথা আজীবন মানুষের মনে থাকবে। হাসিম চেয়ারম্যানকে সাধারণ মানুষ কখনও ভুলতে পারবেনা।

সামাজিক কর্মকান্ড প্রসঙ্গ নিয়ে তিনি বলেন, ১৯৯৬ সালের আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলে তুরাগের চন্ডাল ভোগ গ্রামে আমার নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠা করা হয় বঙ্গবন্ধু সমাজ কল্যাণ সংসদ। এছাড়া আমি স্কুল, কলেজ, মসজিদ মাদ্রাসা সহ সামাজিক বিভিন্ন সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত আছি।

আওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও জাতিরজনকের সুযোগ্য কণ্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখন বিশ্বনেত্রী। আমি তার আদর্শ ও কর্মকান্ডকে বুকে ধারণ করে আগামী দিনে পথ চলতে প্রত্যয় ব্যক্তি করছি। যুবলীগের রাজনীতি করতে গিয়ে কোন দিন দলের পক্ষ থেকে সুযোগ পেলে আমি তার পায়ে ধরে সালাম করে আর্শিবাদ (দোয়া) দিয়ে স্বচছ ভাবে রাজনীতিতে এগিয়ে যেতে চাই। এই হোক আমার আগামী দিনের পথ চলা। জয় বাংলা- জয়বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ চিরজীবি হউক।

Comments

comments