রাত ৮:২৫ শনিবার ১৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

জেহাদ স্কোয়ারে ছাত্রদলের শ্রদ্ধা নিবেদন

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ১০, ২০১৯ , ২:১৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : রাজনীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

কে এম নাজির উদ্দিন জেহাদ স্বৈরাচার পতন আন্দোলন করার জন্য ২৯ বছর আগে ঢাকার রাজপথকে রক্তাক্ত করে নিজের জীবনকে উৎস্বর্গ করে গেছেন। জেহাদ যে গণতন্ত্রের স্বপ্ন দেখেছিল আজো সেই গণতন্ত্র অধরা হিসেবেই লুকিয়ে আছে। স্বৈরাচারের নয়া লেবাসে স্বৈরাচার ও বাকশালের মিশ্রণে ডিজিটাল গণতন্ত্রের যুগ চলছে। গণতন্ত্রের এই করুন পরিনতি দেখে আজো শহীদ জেহাদের আত্মা কাঁদছে।

শহীদ জেহাদ দিবস উপলক্ষে আজ সকাল টায় ৮.৩০মিনিটে দৈনিক বাংলা মোড়ে জেহাদ স্কোয়ারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি ফজলুল হক খোকন ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল এর নেতৃত্বে ছাত্রদলের বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত ২৯ বছর আগে ১৯৯০ সালের এই দিনে ছাত্রদল নেতা কে এম নাজির উদ্দিন জেহাদ স্বৈরাচার এরশাদ হঠানোর গণআন্দোলনে ঢাকার পল্টনে পুলিশের গুলিতে শহীদ হন। জেহাদ ১৯৬৯ সনের ৬ সেপ্টেম্বর সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার নবগ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। বাবা মৃত কে এম মাহমুদ এবং মা বছিরুন্নেছার পরিবারে ১০ সন্তানের মধ্যে জেহাদ ৯ম সন্তান। ১৯৯০ সালে সরকারি আকবর আলী কলেজে তিনি বিএ শেষ বর্ষের ছাত্র ছিলেন এবং ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে সক্রিয় ছিলেন। সাংগঠনিক দক্ষতার কারণে তিনি কলেজ শাখার সভাপতি এবং উপজেলা শাখার সহ-সভাপতি হন। ১৯৯০ সালের ১০ অক্টোবর বিএনপিসহ ৭ দলীয় জোট ঢাকার পল্টন ময়দানে এরশাদ পতন আন্দোলনের জন্য মহাসমাবেশের ডাক দেয়। জেহাদ উল্লাপাড়া থেকে ৬০ জন ছাত্র নিয়ে পল্টনে মহাসমাবেশ এবং সচিবালয় ঘেরাও কর্মসূচিতে অংশ নেন। মহাসমাবেশ পন্ড করতে পুলিশ ওই দিন বেলা ৪টার দিকে লাঠিচার্জ করে এবং গুলি ছোঁড়ে। জেহাদ গুলিবিদ্ধ হলে ডাঃ মিলন তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে নেবার পথে সে মারা যায়। পুলিশ তার লাশ ছিনিয়ে নেবার চেষ্টা করলেও ছাত্রদের তোপের মুখে তাদের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়। ময়না তদন্ত শেষে লাশ পরদিন রাতে পুলিশ প্রহরায় তার গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হয়। ১২ অক্টোবর সকালে জানাজা শেষে গ্রামের কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

Comments

comments