সকাল ৮:১৪ শনিবার ১৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

গোপালপুরে ঝিনাই নদীর ভাঙ্গণে শতাব্দী প্রাচীন সড়ক বিলীণ; বিশ গ্রামের মানুষের ভোগান্তি | রাবি শিক্ষার্থীর মাথা ফাটিয়ে দিল দুর্বৃত্তরা | বরেণ্য চিত্রশিল্পী কালীদাস কর্মকারের মৃত্যুতে ন্যাপ'র শোক | ঈশ্বরদীতে ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় সাংবাদিককে পেটালো ইভটিজাররা | ঈশ্বরদীতে ইপটিজিং প্রতিবাদ করায় সাংবাদিকে পেটালো ইপটিজাররা | মহেশপুরে গাজাসহ ৩ জন আটক | কুষ্টিয়ার হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত | নিকের সঙ্গে আর নয়, ডিভোর্স চান প্রিয়াঙ্কা! | কুষ্টিয়ায় জাঁকজমকপূর্ণভাবে বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের জন্মদিন উদযাপিত | সুনামগঞ্জে দু’পক্ষের গোলাগুলিতে মাদ্রাসাছাত্র নিহত, গুলিবিদ্ধ ২ |

কুষ্টিয়ার হরিণারায়নপুরে শান্তিপূর্ণভাবে দশটি প্রতিমা বিসর্জন সম্পন্ন

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ৯, ২০১৯ , ৪:২৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খুলনা
পোস্টটি শেয়ার করুন

রেজা আহাম্মেদ জয়ঃ কুষ্টিয়া জেলার প্রতিটি এলাকায় প্রশাসনের কড়া নিরাপত্তা ছিলো। কুষ্টিয়া জেলা পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাত পিপিএম(বার) এর নির্দেশে শারদীয় দুর্গাৎসবের শুরু থেকেই পুলিশের প্রতিটি সদস্য সঠিক ভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করেছেন বলে জানা যায়। শুরু থেকে পুলিশ ও আনছার সদস্যরা যেমন ভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করেছেন তেমনি ভাবে প্রতিমা বিসর্জন পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেছে। এদিকে ইবি থানা পুলিশের সাথে কথা বলে জানা যায় এলাকার প্রতিটি প্রতিমা শান্তিপূর্ণভাবে বিসর্জন হয়েছে।

প্রতিমা বিসর্জনের সময় হরিণারায়নপুর বারোয়ারী মন্দির কমিটির সভাপতি শ্রী বিপুল কুমার শাহ, সাধারন সম্পাদক শ্রী সুভাস কর্মকার(সাবেক মেম্বর ও ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি),কোষাধ্যক্ষ শ্রী বিপ্লব কুমার শাহ ও হরিণারায়নপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক(ইউপি চেয়ারম্যান) মহি উদ্দিন মন্ডল এদের সাথে কথা বলে জানা যায় প্রতিবছরের ন্যায় এবারো তারা শান্তিপূর্ণ ভাবে প্রতিমা বিসর্জন করতে পেরেছে।

বিসর্জনের বিষয়ে বারোয়ারী মন্দির কমিটির সাধারন সম্পাদক সুভাস কর্মকার সাংবাদিক রেজা আহাম্মেদ জয়কে বলেন, যা দেবী সর্বভূতেষু মাতৃরূপেন সংস্থিতা, নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমো নমঃ’ মন্ত্রোচ্চারণের মধ্য দিয়ে দূর কৈলাশ ছেড়ে মা পিতৃগৃহে আসেন ঘোটকে চড়ে। বিজয়া দশমীতে এয়োস্ত্রীদের দেবীবরণ ও সিঁদুর খেলার পর বিদায় নেয় আবারও ঘোটকে চড়ে। উল্লেখ্য মঙ্গলবার সকাল থেকেই মণ্ডপে মণ্ডপে নামে ভক্তদের ঢল। ঢাক আর শঙ্খধ্বনির সুর। টানা মন্ত্রপাঠ। উলুধ্বনি আর অঞ্জলি। সঙ্গে ঢাকের বাদ্য, নাচ, সিঁদুর খেলা। ধান, দূর্বা, মিষ্টি আর আবির দিয়ে দেবীকে বিদায় জানায় ভক্তরা।

বিসর্জনের দিন একদিকে বেজে ওঠে বিদায়ের সুর, অন্যদিকে উৎসবের আমেজ। অনেক হিন্দু ঐ দিন উপবাস করেন। ইবি থানা এলাকার প্রতিটি মণ্ডপে চলে আবির উৎসব। হরিনারায়ণপুরের দশটি প্রতিমা কালি নদীতে বিসর্জন সম্পন্ন হয়। শেষবারের মতো ঠাকুর দেখতে মণ্ডপে মণ্ডপে ছিল উপচেপড়া ভিড়। বাসা-বাড়িতে অতিথি আপ্যায়ন করেন হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন। সনাতন বিশ্বাসে ধর্মের গ্লানি আর অধর্ম রোধ, সাধুদের রক্ষা, অসুরের বধ আর ধর্ম প্রতিষ্ঠার জন্য প্রতি বছর দুর্গতিনাশিনী দেবী দুর্গা ভক্তদের মাঝে আবির্ভূত হন।

শুভ বিজয়ার মাধ্যমে জাগতিক প্রাণীকে শোনান সাম্য ও ভ্রাতৃত্বের বাণী। বাঙালির সংস্কৃতিতে মা দুর্গা ঘরেরই মেয়ে। আর ঘরের মেয়ে ঘরে ফিরলে যেমন আনন্দ, ফেরার সময় তেমনই সবার চোখ ছলছল। বিজয়া দশমী সেই ভেজা চোখে বিদায়ের দিন। হিন্দু পুরাণ মতে নবমীর দিন দেবী দুর্গা মহিষাসুরকে বধ করেছিলেন। নবমীকেই পুজোর শেষ দিন হিসেবে ধরা হয়। দশমীতে বরণের পরেই প্রতিমা বিসর্জন। বিসর্জন শুনলেই ভক্তদের মন খারাপ হয়। মন্দিরে একটা ফাঁকা ফাঁকা ভাব, একটা বুক হু-হু করা কষ্ট।

Comments

comments