রাত ১২:২৬ মঙ্গলবার ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

সম্মেলনের আগে ভারত-চীন প্রতিরক্ষা বিরোধ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ৭, ২০১৯ , ৩:৩৭ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : আন্তর্জাতিক
পোস্টটি শেয়ার করুন

আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠিতব্য মোদি-শি অনানুষ্ঠানিক সম্মেলনের ঠিক আগ দিয়ে ভারতের অরুণাচল প্রদেশে চলমান হিম-বিজয় সামরিক মহড়ার ব্যাপারে কড়া আপত্তি জানিয়েছে চীন। চীনের ভাইস পররাষ্ট্রমন্ত্রী লুও ঝাওহুই – যিনি আগে ভারতে চীনের রাষ্ট্রদূত ছিলেন – তিনি ভারতের পররাষ্ট্র সেক্রেটারি বিজয় গোখলের সাথে বৈঠকে বৃহস্পতিবার এই ইস্যুর উত্থাপন করেন।

বেইজিং ভারতকে এটা বলেছে বলে জানা গেছে যে, এই প্রতিরক্ষা মহড়া একটা সফল সম্মেলন করার প্রচেষ্টার প্রতি বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ বলেছে যে, এই মহড়া নিয়ন্ত্রণ রেখা থেকে কমপক্ষে ১০০ কিলোমিটার দূরে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এবং এর সময়সূচির সাথে অনানুষ্ঠানিক সম্মেলনের কোন সম্পর্ক নেই কারণ বেশ কয়েক মাস আগে এই মহড়ার পরিকল্পনা হয়েছে।

সম্মেলনের বিষয়ে যদিও আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হয়নি, তবে শীর্ষ সরকারী সূত্র জানিয়েছে যে, ১১ অক্টোবর বেলা ২টার দিকে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং চেন্নাইতে অবতরণ করতে পারেন। ওই দিন সন্ধ্যায় তিনি মন্দির শমর মামাল্লাপুরামে যাবেন এবং সেখানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাথে প্রাইভেট ডিনারে অংশ নিবেন। এই অনানুষ্ঠানিক সম্মেলন অবশ্য উহানের সম্মেলনের চেয়ে ছোট হবে কারণ শি ভারতে ২৪ ঘন্টার বেশি অবস্থান করবেন না।

লুও-গোখলে বৈঠকের উপর সবারই সতর্ক নজর রয়েছে কারণ কোন পক্ষই আনুষ্ঠানিকভাবে লুও’র সফরের বিষয়টি নিশ্চিত করেনি। টাইমস অব ইন্ডিয়া ৩ অক্টোবর প্রথম এটা নিয়ে রিপোর্ট করে। একদিন আগেই টিওআই অরুণাচলে সামরিক মহড়া নিয়েও বিস্তারিত রিপোর্ট প্রকাশ করেছিল।

অরুণাচল প্রদেশকে দক্ষিণ তিব্বতের অংশ দাবি করে চীন। শি এর চেন্নাই আসার আগ দিয়ে সেখানে ভারতের সামরিক মহড়া বেইজিংকে হতাশ করেছে বলে মনে হচ্ছে। তাছাড়া আয়োজক দেশ হিসেবে ভারত এখনও এ সম্মেলনের সময় আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেনি। যদিও এটা সম্ভবত চলতি বছরে ভারত সরকারের সবচেয়ে বড় কূটনৈতিক আয়োজন হতে যাচ্ছে।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমার শুক্রবার বলেছেন যে, সফরের ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়ার অবস্থানে তিনি নেই। যদিও তিনি এটার গুরুত্বের উপর জোর দেন এবং এটাকে দুই নেতার বিভিন্ন ইস্যুতে মতবিনিময়ের গুরুত্বপূর্ণ প্ল্যাটফর্ম হিসেবে উল্লেখ করেন।

উভয় পক্ষই বুঝতে পারছে যে, দ্বিতীয় অনানুষ্ঠানিক সম্মেলনটি এর চেয়ে কম সুবিধাজনক অন্য কোন সময়ে হতে পারে না। ভারত জম্মু ও কাশ্মীরের স্বায়ত্বশাসন বাতিল করে লাদাখকে আলাদা ইউনিয়ন অঞ্চল ঘোষণা করায় চীনের সার্বভৌমত্ব ক্ষুণ্ন হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে বেইজিং। ভারতের জন্য এটা মেনে নেয়া কঠিন যদিও পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর তার আগস্ট মাসের বেইজিং সফরের সময় চীনের কাছে ব্যাখ্যা করেছেন যে, ৩৭০ অনুচ্ছেদ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় এবং এটা ‘চীনের সাথে ভারতের নিয়ন্ত্রণ রেখার উপর কোন প্রভাব ফেলবে না”। তবে এর কিছুদিন পরেই নিরাপত্তা পরিষদে কাশ্মীর নিয়ে আলোচনার পক্ষে পাকিস্তানকে সহায়তা করে বেইজিং।

Comments

comments