সকাল ৮:৫৭ শনিবার ১৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

গোপালপুরে ঝিনাই নদীর ভাঙ্গণে শতাব্দী প্রাচীন সড়ক বিলীণ; বিশ গ্রামের মানুষের ভোগান্তি | রাবি শিক্ষার্থীর মাথা ফাটিয়ে দিল দুর্বৃত্তরা | বরেণ্য চিত্রশিল্পী কালীদাস কর্মকারের মৃত্যুতে ন্যাপ'র শোক | ঈশ্বরদীতে ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় সাংবাদিককে পেটালো ইভটিজাররা | ঈশ্বরদীতে ইপটিজিং প্রতিবাদ করায় সাংবাদিকে পেটালো ইপটিজাররা | মহেশপুরে গাজাসহ ৩ জন আটক | কুষ্টিয়ার হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত | নিকের সঙ্গে আর নয়, ডিভোর্স চান প্রিয়াঙ্কা! | কুষ্টিয়ায় জাঁকজমকপূর্ণভাবে বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের জন্মদিন উদযাপিত | সুনামগঞ্জে দু’পক্ষের গোলাগুলিতে মাদ্রাসাছাত্র নিহত, গুলিবিদ্ধ ২ |

অপেক্ষা করুন , আরও অনেক কিছু দেখার আছে ’

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ৭, ২০১৯ , ২:৫৩ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : রাজনীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

সরকারের শুদ্ধি অভিযান চলমান থাকবে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘অপেক্ষা করুন, আরও অনেক কিছু দেখার আছে।’সোমবার সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের।চলমান অভিযান নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘যেটা বছরের পর বছর হয়নি, সেটা আমরা ১৫ দিনে সব কমপ্লিট করে ফেলব? অপেক্ষা করুন। দেখুন, আরও অনেক কিছু দেখার আছে।’

তিনি বলেন, ‘এখন এখানে একটা অভিযান চলছে। কাদের বিরুদ্ধে চলছে, কেন চলছে- এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী নিজে ব্যাখ্যা দিয়েছেন। তিনি নিজে তার সংকল্প ও অঙ্গীকারের কথা বলেছেন। আমিও পার্টির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে যেটা বলার আমি বলেছি। এখানে কোনো প্রকার হাইড অ্যান্ড সিক (লুকোচুরি) নেই।’

‘আমরা যা বলছি আমরা মিন করছি। মিন করে বলছি। আমরা যা বলছি আমরা মুখে বলছি না, আমরা অ্যাকশনে প্রমাণ করছি। অলরেডি প্রমাণিত হয়েছে। যারা কালপ্রিট, যারা অফেন্ডার, যারা মিসডিডস করছে, যারা করাপশন করছে- তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার ব্যাপারে কোনো প্রকার দ্বিধা-সংকোচ নেই। এ অভিযান চলবে।’

যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রশ্ন হতে পারে। যুক্তি তথ্য-প্রমাণ দিয়ে, প্রয়োজনীয় ইনফরমেশন দিয়ে প্রমাণ করতে হবে তিনি অপরাধী। সেটা প্রমাণের আগে তো কোনো ব্যবস্থা নেয়া যায় না। আর কার বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেবেন সেটা ক্রমান্বয়ে সবই পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে। এসব ব্যাপারে সরকারের উচ্চাসন থেকে সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে, নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে। পার্টির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আমি নির্দেশনা মান্য করে চলি, সেটা কার্যকর করার জন্য আমার রোলটা প্লে করি।’

যুবলীগ চেয়ারম্যানের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করা হয়েছে- এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘যা হয়েছে সেটাই দেখতে থাকুন। ভবিষ্যতে কী হবে সেটাও দেখতে থাকুন।’যুবলীগ মানে বুড়োদের সংগঠন। সামনে যেহেতু কাউন্সিল, যুবলীগের নেতাদের জন্য কোনো বয়সসীমা নির্ধারণ করে দেবেন কি না- জানতে চাইলে কাদের বলেন, ‘বয়সসীমা তো যুবলীগের গঠনতন্ত্রে আছে। সেটা যাতে স্ট্রিকলি ফলো করা হয়, তা আমরা দেখব।’

সম্মেলনের মাধ্যমে যুবলীগের পরিবর্তন আসবে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘সেটা তো আমি বলতে পারি না। এটা তো যুবলীগের কাউন্সিলরা ঠিক করবে, তাদের নেতৃত্বের পরিবর্তন হবে কি না। নেত্রীর মাইন্ডসেট কী আমি সেটা জানি না। পরিবর্তন করবেন কি না, করলে কীভাবে করবেন? আল্টেমেটলি ফাইনাল অথোরিটি হচ্ছেন আমাদের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

বিএনপি বলছে, প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরকে আড়াল করতেই সম্রাটকে গ্রেফতার করা হয়েছে- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটা কী হাস্যকর মনে হয় না? সরকার যে শুদ্ধি অভিযান চালাচ্ছে এর সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের সম্পর্ক কী? যোগসূত্রটা তারা কীভাবে আবিষ্কার করলেন। এর তো কোনো মানে আমরা খুঁজে পাচ্ছি না। এর রহস্যটা কী? আমি একটু জানতে চাই।’

সম্রাটকে গ্রেফতারের বিষয়ে র‌্যাবের ডিজি বলেছেন জানিয়ে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, ‘গ্রেফতারের বিষয়ে সম্রাট কিছুদিন এভাবে-সেভাবে থেকে বাইরে যাওয়ার উদ্যোগ নিয়েছিল। হয়তোবা ভারতে চলে যাবে এরকম কোনো চিন্তা-ভাবনা থেকে হয়তো চৌদ্দগ্রামে সীমান্তের কাছাকাছি জায়গায় এক বাড়িতে ছিল। সেখানে তাকে খুঁজে পাওয়া গেছে। এটার সঙ্গে ভারত সফরের কী সম্পর্ক?’

স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির বিরুদ্ধেও নানা অভিযোগ উঠেছে- এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাক বলেন, ‘অভিযোগ যার বিরুদ্ধেই আসুক, অভিযোগের সত্যতা প্রমাণ হলে কেউ রেহাই পাবে না। তথ্য প্রমাণ না পেলে আপনি কীভাবে একজন মানুষকে অভিযুক্ত করবেন।’

বলা হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরে আমরা সব দিয়ে আসছি, কিছু আনতে পারিনি। বিশেষ করে ফেনী নদীর পানি দেয়া নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘পেতে হলে কিছু দিতে হয়। দেয়া-নেয়ার সম্পর্ক বন্ধুত্বে থাকে। আমরা তো এনেছি, সব দিয়ে ফেলেছি এমন তো নেই। আমাদের পাওয়ার বিষয়টি অনেক বেশি। সীমান্ত সমস্যার সমাধান আমরাই করেছি।

যারা অভিযোগ করে তারা এটা করতে পারেনি। ৬৮ বছর পর সীমান্ত চুক্তির বাস্তবায়ন শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদির সরকারই করেছে। শান্তিপূর্ণভাবে ছিটমহল বিনিময় হয়েছে। সমুদ্র্রসীমার ব্যাপারে ভারত আপিল করতে পারত, তারা আপিল করেনি। সম্পর্কটা ভালো থাকলে অনেক কিছুই পাওয়া যায়। সম্পর্কটা বৈরিতার মধ্যে থাকলে কিছুই পাওয়া যায় না। বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর ২১ বছরই এর প্রমাণ।’

সড়ক পরিবহনমন্ত্রী আরও বলেন, ‘গঙ্গাচুক্তি শেখ হাসিনার আমলে হয়েছে, তিস্তা চুক্তিও শেখ হাসিনার আমলে হবে ইনশাআল্লাহ। আলোচনায় অগ্রগতি হয়েছে। আমি বিশ্বাস করি এ চুক্তিও সম্পাদিত হবে। ভারতে ইন্টারনাল একটা প্রবলেম আছে, যেহেতু এটা পশ্চিমবঙ্গের বিষয়, পশ্চিমবঙ্গের সরকার ফেডারেল সরকারের সাথে ভিন্নমত পোষণ করে, কাজেই সেখানে নিজেদের ঐকমত্যের ব্যাপার আছে, বোঝাপড়ার ব্যাপার আছে। সেটাতে ইন্টারনালি প্রবলেম হচ্ছে। এখানে ভারত সরকারের আন্তরিকতার কোনো ঘাটতি আছে, সদিচ্ছার কোনো কমতি আছে, এটা আমরা মনে করছি না।

Comments

comments