আ. লীগের নামে সরকারি খাদ্য সহায়তা নাই

0
27

মোঃ ইব্রাহিম হোসেন, ষ্টাফ রিপোর্টারঃ আওয়ামী লীগের নামে সরকারি খাদ্য সহায়তা নাই, চাল,ডাল চুরির অভিযোগ লম্বা, এরা কারা? বিশ্ব ব্যাংক টাকা দিলো না, পদ্মাসেতুর দুর্নীতির অভিযোগ দিলো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সরকারের ত্রাণ কায্যক্রমে ওয়ার্ড, থানা, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগকে অন্তর্ভুক্ত করা হয় নাই আমার মত অনেকে আনন্দিত হয়েছে। অনেক নেতা দুঃখও পেয়েছে, পাচ্ছে।

সরকারের তালিকায় আওয়ামী লীগের নাম নাই, চাল, ডাল, তেল চোরের তালিকায় আওয়ামী লীগ নেতাদের নাম সংবাদ কর্মীরা পায় কোথায়৷? আওয়ামী লীগ নেতা, এমপি, মন্ত্রী নিজ স্ব অর্থায়নে খাদ্য সহায়তার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। অনেক অনুসন্ধানের পরে চোরের তালিকায় ও সরকারের খাদ্য সহায়তার তালিকায় যে নাম গুলো বেরিয়ে এসেছে, তার অধিকাংশ চেয়ারম্যান মেম্বর কাউন্সিলর।

আমার ভাবনার বিষয় জাতির জনকের দল, স্বাধীনতার দল, বাঙালী জাতীয়তাবাদের, বাংলা ভাষায় দল, শেখ হাসিনার হাতে পুর্ণজন্ম বলতে পারেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অসহায় মানুষের চাল চুরি করতে পারে? ৫৫ বছর বুকে ধারন করেছি ৪৫ বছর আওয়ামী লীগের পতাকা হাতে নিয়েছি বঙ্গবন্ধু রক্তের বদলা নিবো গনতন্ত্রের মাধ্যমে। আমাকে বিশ্বাস করতে হবে শেখ মজিব ও শেখ হাসিনার কর্মীরা চাল চুরি করতে পারে। রাতে ঘুম আসে না, হাজারো প্রশ্নের উত্তর খুজবো কোথায়, প্রশাসন কি মিথ্যে কথা বলছে? সংবাদ মাধ্যমের স্বার্থ কি চোরের সাথে আওয়ামী লীগের নাম যুক্ত করে।

আমার এক বন্ধু সাংবাদিক নাম প্রকাশ না করার স্বর্থে দ্বিধাহীন দুটি কথা বলেছেন, আওয়ামী লীগ নিজেকে এই চাল ডাল তেল চোরদের হাতে তুলে দিয়েছেন, চেয়ারম্যান মেম্বর কাউন্সিলরকে সমর্থন দিয়ে। সরকারের খাদ্য সহায়তার পুর্ণাঙ্গ দায়ীত্ব ও তাদের হাতে, এই চোরদেরকে সমর্থন ও দায়ীত্ব দুইটাই যদি আওয়ামী লীগ দিতে পারে, তবে চোরদের সাথে দলের নাম লেখার অপরাধে সাংবাদিকদের দায়ী করবি কেনো। স্বেচ্ছায় দল সমর্থনের দায়ীত্ব নিয়েছে কেনো, আমার এমন এক প্রশ্নের জবাবে বন্ধু বললেন, দলতো আর হাওয়া দিয়ে চলে না, সমর্থন দেওয়ার সময় ভালো মন্দ বিচার যাদের হাতে অর্পণ করা হয়, তাদের পকেটের অর্পণ করবে কে। তুই বুজবি না, অনেক বিষয় বলাও যাবে না। আমার ভাবনার বিষয় থেকে অনেক দুরে নিয়ে গেলো। তবে কি সততা, অভিজ্ঞতা, বিচহ্মনতার শ্লোগান সব মিথ্যে, বন্ধুর কথাই সত্য মনে হচ্ছে। তা না হলে তিন বার আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচন করে ৭ থেকে ১৫ শ ভোট পাওয়া প্রার্থীকে আওয়ামী লীগ কেনো সমর্থন করলো, মনের অনেক প্রশ্নের উত্তর হয়তো পাওয়া যাবে না। তবে আওয়ামী লীগ পরিবার নিঃশেষ করার প্রচেষ্টা যে শুরু হয়ে গেছে। টাকা তুলার প্রতিযোগীতা নয়তো, আমার ৩৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে পেয়ে বসেছে।

প্রধান মন্ত্রীর ত্রান তহবিল, দুর্যোগ ও ত্রান মন্ত্রনায়ল, ঢাকা সিটি কর্পোরেশন, এমপি, সাবেক এমপি, স্থানীয় ধৌনাট্রো ব্যাক্তিদের আর্থিক সহায়তায় ১০থেকে ১২ হাজার পেকেট খাদ্য সহায়তা কাউন্সিলরকে করা হয়েছে। ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের পহ্ম থেকে মাত্র ৩ শ নামের তালিকা দিয়েছিলাম, আজও বলতে পারবো না কে এবং কারা পেয়েছে। আওয়ামী লীগে এখন গরিব মানুষ আছে, আওয়ামী লীগারদের পেটে খিধা লাগে, একটি খাদ্য সহায়তার পেকেট প্রয়োজন হয়। এ কথা এখন আর সাধারন মানুষকে বুজাতে পারবেন না। ওএসএম এর কার্ড থেকে একটি কার্ডও আওয়ামী লীগকে দেওয়া হয় নাই। কত দামে রাতের আধারে বিক্রি করা হয়েছে, তাও জানা নাই। বন্ধুর কাছে প্রশ্ন করলাম যারা দল করে, নীতি আদর্শবান চরিত্র ও দলের মানুষ গুলোকে বুকে ধারন করে রাখে, তাদেরকে মনোনয়ন, সমর্থন করেনা কেনো। এ প্রশ্নের নাকি উত্তর নাই।

বিশ্ব ব্যাংক জানে টাকা ছাড় হয় নাই, সাড়া পৃথিবী জানে পদ্মাসেতুর টাকা না দিলেও অর্থ আত্নসাৎ ও দুর্নীতির অভিযোগ থেকে আওয়ামী লীগকে রহ্মা করতে পারে নাই। সরকার আওয়ামী লীগকে খাদ্য সহায়তার আওতায় না আনলেও চাল, ডাল তেল চোরের অপবাদ থেকে রহ্মা করতে পারে নাই।