সন্ধ্যা ৭:২১ মঙ্গলবার ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

মির্জাপুরে আজগানা ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে সভাপতি মোক্তার, সম্পাদক শহিদুল | নাটোরে “টেকসই উন্নয়ন বাস্তবায়ন ও সমন্বয়” বিষয়ে সভা অনুষ্ঠিত | রাজধানীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ইন্দোনেশিয়ার নাগরিকের মৃত্যু | টানা চারবার ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিলেন ক্যানসারজয়ী নারী | বান্দরবানে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে এপেক্স ক্লাব | বান্দরবানে যে বিদ্যালয়ে এ ভর্তির আগে সাঁতার শিখতে হয়! | ঝালকাঠিতে নদী ভাঙ্গনের কবলে দোকনঘর, নদীগর্ভে ফেরি | আবারও একসঙ্গে রণবীর-ক্যাটরিনা | লভ্যাংশ ঘোষণার পর দুই কোম্পানির দরপতন | আট বিভাগীয় শহরে হবে পূর্ণাঙ্গ ক্যান্সার চিকিৎসাকেন্দ্র |

বিএনপি-জামায়াতের তুলনায় কিছুই করছি না

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৯ , ১২:১১ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এখন যারা সংসদে বিরোধী দলে আছে তারা যেমন বিএনপি-জামায়াত দ্বারা নির্যাতিত-নিগৃহীত, আমরা যারা এখানে আমরাও তাদের দ্বারা নির্যাতিত নিগৃহীত হয়েছি। সেই তুলনায় আমরা তো তাদের কিছুই করছি না। বৃহস্পতিবার রাতে একাদশ জাতীয় সংসদের চতুর্থ অধিবেশনের সমাপনী বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা চাচ্ছি দেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। আমাদের চলার পথ কি খুব মসৃণ ছিল? মসৃণ ছিল না। সেখানে অগ্নিসন্ত্রাস, মানুষ খুন করা, জীবন্ত মানুষকে পুড়িয়ে মারা, বিআরটিসি বাসে আগুন, রেলে আগুন, লঞ্চ পুড়িয়ে নষ্ট করা। কত মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে, তারা এখনও মানবেত জীবন যাপন করছে। এই সংসদে একজন এমপি আছেন, যাকে রাজবাড়ী থেকে দিয়েছি। তার মুখের দিকে তাকালে দেখবেন সম্পূর্ণ মুখে পোড়া দাগ।

দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতির ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে দেশবাসীর সহযোগিতা কামনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, গত এক দশকে বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। সারাবিশ্বে বাংলাদেশ এখন একটা নিজস্ব স্থান করে নিয়েছে। স্বল্প সময়ে বাংলাদেশের যে উন্নয়ন ও অগ্রগতি হচ্ছে সারাবিশ্ব তা দেখছে। এই উন্নয়ন ও অগ্রগতির ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে হবে। ইনশাল্লাহ দেশের মানুষকে আমরা দারিদ্র্য থেকে মুক্তি দেব, ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা আমরা গড়ে তুলবোই।

দেশের প্রত্যেক এলাকায় সরকারের গৃহীত উন্নয়ন কাজগুলো যেন সুষ্ঠু ও সুচারুভাবে সম্পন্ন হয় সেজন্য নিজ নিজ এলাকায় সংসদ সদস্যদের উন্নয়ন কাজগুলো তদরকির আহ্বান জানিয়ে সংসদ নেতা বলেন, প্রত্যেক সংসদ সদস্যদের প্রতি আমাদের অনুরোধ, প্রত্যেক এলাকায় সরকারের যে উন্নয়ন কাজগুলো চলছে, সেদিকে নজর রাখবেন। প্রত্যেকটি উন্নয়ন কাজগুলো যাতে সুন্দর ও সুচারুরূপে সম্পন্ন হয়, সেদিকে নজর রাখবেন। এতে করে দেশের উন্নয়নটা আরো ত্বরান্বিত হবে। মনে রাখবেন নির্বাচনী এলাকায় ভোটারদের মঙ্গল করাই হচ্ছে প্রত্যেক জনপ্রতিনিধিদের অন্যতম দায়িত্ব। আশা করি, তারা সেই কাজটি করবেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, উন্নয়নের পথে যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছি, এই উন্নয়নের ধারাটা যদি অব্যাহত রাখতে পারি, আমাদের যে লক্ষ্য উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে যে অবস্থান করতে পেরেছি, সেই উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে আমরা বাংলাদেশকে গড়ে তুলতে সক্ষম হবো। বাংলাদেশ আজ এশিয়ায় ১৩তম অর্থনৈতিক দেশ, দক্ষিণ এশিয়ায় দ্বিতীয়। আর সারাবিশ্বে বাংলাদেশ ৩০তম অর্থনৈতিক শক্তিশালী দেশ। গত ১০ বছরে দেশের প্রবৃদ্ধি ৮ ভাগের ওপরে নিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছি। যার সুফল দেশের মানুষ ভোগ করছে। তিনি বলেন, আমরা দেশকে শুধু স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলাই নয়, দেশের মানুষ যাতে আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যেতে পারে, সেইভাবেই আমরা দেশকে গড়ে তুলছি।

বিদ্যুত ও গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে সমালোচনার জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৯৬ সালে মাত্র ১৬শ’ মেগাওয়াট বিদ্যুত নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলাম। ক্ষমতা ছাড়ার সময় ৩৩শ’ মেগাওয়াট রেখে আসলেও ৮ বছর পর পুনরায় ক্ষমতায় এসে দেখলাম উৎপাদন বাড়েনি, বরং ৩৩শ’ মেগাওয়াট থেকেও কমে গেছে। সেই ৩৩শ’ মেগাওয়াট বিদ্যুত থেকে গত ১০ বছরে এখন বাংলাদেশ বিদ্যুত উৎপাদনের ক্ষমতা ২২ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত হয়েছে। আমরা দেশের প্রত্যেকটি মানুষের ঘরকে আলোকিত করতে চাই। সেই জন্য এখন বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইন তৈরী করছি। গ্যাসেরও অনুসন্ধান চলছে, কিন্তু গ্যাসের স্বল্পতা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এক ইউনিট বিদ্যুত উৎপাদন করতে আমাদের খরচ হচ্ছে ২৬ টাকা। কিন্তু আমরা গ্রাহকদের কাছ থেকে মাত্র ৩/৪ টাকা নিচ্ছি। এক্ষেত্রে বিদ্যুতের দাম বাড়লো কোথায়? এলএমজি গ্যাস আমদানী করে বিতরণ করতে সরকারের খরচ হয় ৬০ টাকা, কিন্তু গ্রাহককে দেওয়া হচ্ছে মাত্র ১২ টাকায়। যে দামে আমরা বিদ্যুত উৎপাদন করছি, তার চেয়ে অনেক কমমূল্যে আমরা বিক্রি করছি। খরচের টাকাও নিচ্ছি না। তা সত্ত্বেও কেন সমালোচনা? কেন আন্দোলন? ভর্তুকি দিয়ে বেশি দামে বিদ্যুত উৎপাদন করে কম দামে বিক্রি করার পরও কেউ বলে দাম বাড়লো কেন? তাহলে বিদ্যুতের দরকার নেই, বন্ধ করে দেই সব। এরপরও যদি এ কথা আসে তবে তো বিদ্যুত ব্যবহার করার দরকার নেই। তাহলে বিদ্যুত উৎপাদনের যে খরচ তাই দিতে হবে। আমরা লাভ করতে চাই না, তবে উৎপাদন খরচ তো দিতে হবে।

এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, যখন বিদ্যুত ছিল না, তখন শিল্প-কলকারখানার মালিকদের জেনারেটর ব্যবহার করতে হতো। তখন কতো টাকা লাগতো? বাসা-বাড়িতেও তখন জেনারেটর ব্যবহার করা হতো। এখন এতো ভর্তুকি দিয়ে বিদ্যুত দিচ্ছি, তাতেও আপত্তি কেন? তিনি বিদ্যুত ব্যবহারে দেশবাসীকে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, সবাই বিদ্যুত ব্যবহারে সাশ্রয়ী হলে বেশি খরচ পড়বে না। আমরা চাই দেশের প্রতিটি ঘর আলোকিত হোক।

ডেঙ্গু পরিস্থিতি সম্পর্কে শেখ হাসিনা বলেন, ডেঙ্গু মোকাবেলায় আমরা সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। সরকার শুধু কেন, দেশের মানুষকে নিজের বাসা-বাড়িসহ নিজ নিজ এলাকা পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে, নিজেদের সুরক্ষা নিজেদের করতে হবে। সরকার থেকে যা যা করার তা করা হবে। তবে দেশের মানুষকেও এ ব্যাপারে সচেতন হতে হবে। তিনি বলেন, আমরা প্রত্যেক কর্মকর্তা-কর্মচারীর বেতন-ভাতা যে পরিমাণ বাড়িয়েছি, পৃথিবীর কোন দেশ একসঙ্গে এতো পরিমাণ বাড়াতে পারেনি। আমরা দেশকে দারিদ্র্যমুক্ত করে গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছি।

সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশে প্রতিটি ঘরে মানুষ নিজ নিজ অধিকার নিয়ে সুন্দরভাবে বসবাস করছে। আমাদের পুলিশ বাহিনী তথা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রচেষ্টায় প্রতিটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান এত সুন্দরভাবে হচ্ছে, পুলিশ বাহিনী নিজেদের জীবন বাজি রেখে সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করছে। অথচ এই পুলিশের ২৬ জন সদস্যকে বিএনপি-জামায়াত পুড়িয়ে মেরেছে। ৫০০ সাধারণ মানুষকে হত্যা করেছে।

তিনি বলেন, প্রত্যেক অনুষ্ঠান যেন সুন্দরভাবে হয় সেই ব্যবস্থা পুলিশ নিচ্ছে। আমরা সেই ধরনের পরিবেশ সৃষ্টি করে যাচ্ছি। এবার পুলিশ বাহিনীতে দুর্নীতিমুক্ত লোক নিয়োগ করায় সাধুবাদ পাচ্ছে। যা অতীতে হয়নি। প্রত্যেকে আন্তরিকতার সাথে কাজ করছে বলেই অর্থনীতির উন্নয়ন হচ্ছে। এই ধারা অব্যাহত থাকবে। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি, এগিয়ে নিয়ে যাব। একটা গণতান্ত্রিক পরিবেশ আছে। বর্তমান বিরোধী দল সবসময় গঠনমূলক পদক্ষেপ নেয়।

শেখ হাসিনা বলেন, রাজনৈতিকভাবে গণতন্ত্রের চর্চাটা আমরা অবাধ করে দিয়েছি। সঙ্গে সঙ্গে অর্থনৈতিক মুক্তির অর্জনের জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি, এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। আমাদের আর কারোর কাছে হাত পেতে কিংবা ভিক্ষা নিয়ে চলতে হয় না। আমরা নিজস্ব অর্থায়নে বাজেট দিতে পারি। আমরা সারাদেশে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তুলছি, যার সুফল গ্রামের মানুষ পাচ্ছে। এই ধারা অব্যাহত রেখে আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করবো, ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলবো।

Comments

comments