রংপুর

ঠাকুরগাঁওয়ে বিদ্যুতের মিসকল আর লোভোল্টেজের খেলায় জনজীবন অতিষ্ঠ

ফরিদুল ইসলাম(রঞ্জু), ঠাকুরগাঁও:  বিদ্যুতের মিসকল মিসকল খেলা আর লোভোল্টেজে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে ঠাকুরগাঁওবাসী।বেশ কয়েকমাস ধরে লোড শেডিং এর সাথে যুক্ত হয়েছে লোভোল্টেজ।এতে টিভি,ফ্রিজ,ফ্যান থেকে শুরু করে ইলেকট্রনিকস যন্ত্র সবসময়ই থাকছে ঝুকির মুখে।মেকারের দোকানগুলোতে গেলে দেখা যায় উপচে পড়া ভীড়। কেউ ফ্রিজ নিয়ে,কেউ টিভি নিয়ে,কেউ কোন না কোন ইলেকট্রনিকস সামগ্রী নিয়ে।মাস শেষে বিদ্যুৎ বিল ঠিকই গুনলেও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন বিদ্যুৎ গ্রাহকরা।সারা দিনে বেশ কয়েকবার চলে বিদ্যুতের আসা-যাওয়া।মাঝে মাঝে মিসকল দিয়ে গায়েব হয়ে যায় বিদ্যুৎ! সন্ধ্যার পরও চলে এই খেলা। তবে দায় সারা গোছের বিদ্যুৎ থাকলেও ভোল্টেজ থাকে একেবারেই কম।সিলিং ফ্যান যেন হাত দিয়েই ঘোরাতে হয়।তাই ইলেকট্রনিকস জিনিস ক্ষতির পাশাপাশি প্রচন্ড গরমে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে নগরবাসী।

চাঁনমারী পাড়ার পুলক আহম্মেদ সনেট অভিযোগ করে বলেন,সামান্য বৃষ্টি আসার শব্দেই চলে যায় বিদ্যুৎ। বিদ্যুৎ অভিযোগ কেন্দ্রের নম্বরের রিসিভার সবসময়ই তোলা থাকে তাই অভিযোগ কেন্দ্রে কাউকে পাওয়ার উপায় নেই।কখনো কখনো পেলে তারা বলে ট্রান্সমিটার বাস্ট হয়েছে অথবা বিদ্যুতের লাইনের সমস্যা হয়েছে কোন না কোন অজুহাত থাকবেই।তিনি আরও আক্ষেপ করে বলেন ২২০ ভোল্ট এর জায়গায় আমরা পাই একশত হতে একশত বিশ ভোল্ট। মাঝে মাঝে এমন ভোল্টেজ দিচ্ছে যে সবকিছু পুড়ে যাচ্ছে ওইটাও একটা ষড়যন্ত্র ইলেকট্রনিক্স কোম্পানির সাথে চুক্তি।আমরা গ্রাহক যাবো কোথায়।আশ্রমপাড়ার রাজু আহমেদ জানান,লোভোল্টেজের কারণে আমার টিভি নষ্ট হয়ে গেছে।বাচ্চাদের নিয়ে বাসায় থাকাই কঠিন, ফ্যান ঘোরেনা।

ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো সন্ধ্যার পর এক্সরে মেশিনসহ অন্যান্য যন্ত্রাদি ব্যাবহার করেন অতি সাবধানে।রোগীরা পড়ে বিড়ম্বনায়।লোভোল্টেজের প্রভাব পড়েছে সর্বত্র। অথচ কর্তৃপক্ষ যেন উদাসিন।

এব্যাপারে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ঠাকুরগাঁওয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী গোলাম ছরোয়ারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,আমি সদ্য ঠাকুরগাঁওয়ে যোগাদান করেছি তাই খুব ভালো কিছু জানিনা।তবে ঠাকুরগাঁওয়ের বিদ্যুতের দুটি পয়েন্ট একটি রাজশাহীতে অন্যটি পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়।পয়েন্টগুলো দূরে হওয়ায় একটু সমস্যা হচ্ছে।তবে খুব শীঘ্রই ঠাকুরগাঁওয়ের বড় খোঁচাবাড়ি এলাকায় বলাকা উদ্যানের পাশে একটি পয়েন্ট হচ্ছে।সেটার কাজ শেষ হলে দ্রুত এই সমস্যার সমাধান হবে।লোভোল্টেজের সমস্যা আগে ছিলনা এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,যেভাবে প্রতিনিয়ত বিদ্যুৎ গ্রাহক বাড়ছে,বিদ্যুতের চাহিদা বাড়ছে সে অনুপাতে আমরা কাভার করতে পারছিনা।তবে আশা করি পয়েন্টটা চালু হলে এই সমস্যা আর থাকবেনা।

Comments

comments