রাজনীতি

এই সরকারের আমলে দেশ তলাবিহিন ঝুড়িতে পরিণত হয়েছে : মিনু

২৯ সেপ্টেম্বর রাজশাহী বিভাগীয় সমাবেশ সফল করার লক্ষে বুধাবার বেলা ১১টা থেকে রাজশাহী মহানগর বিএনপি প্রস্তুতিমূলক সভা করেন। নগরীর একটি কনে ভনশণ সেন্টারে আরয়াজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির বন ও পিরেবশ বিষয়ক সম্পাদক, রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল।

প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য জননেতা মিজানুর রহমান মিনু। সভা সঞ্চালনায় ছিলেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপি’র আহবায়ক আবু সাইদ চাঁদ, যুগ্ম আহবায়ক সাইফুল ইসলাম মার্শাল ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সহিদুন্নাহার কাজী হেনা।

আরো উপস্থিত ছিলেন বোয়ালিয়া থানা বিএনপি’র সভাপতি সাইদুর রহমান পিন্টু, রাজপাড়া থানা বিএনপি’র সভাপতি শওকত আলী, মহানগর বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক আসলাম সরকার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল হক রানা, মতিহার থানা বিএনপি’র সভাপতি আনসার আলী, শাহ্ মখ্দুম থানা বিএনপি’র সভাপতি মনিরুজ্জামান শরীফ, বোয়ালিয়া থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলম মিলু, সংগঠনিক সম্পাদক দিলদার হোসেন, রাজপাড়া থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুরাদ পারভেজ পিন্টু, শাহ্ মখ্দুম থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন, মতিহার থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক ডিকেন, রুয়েটের শিক্ষক আকতার হোসেন, বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন উজ্জল, সাবেক কাউন্সিলর টুটুল ও শ্রমিক দল সভাপতি ইশরুদ্দিন ইশা।

এছাড়াও মহানগর যুবদলের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সুইট, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল হাসনাইন হিকোল, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান রিটন, সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুজ্জামান টিটু, জেলা যুব দলের সভাপতি মোজাদ্দেদ জামানী সুমন, মহানগর সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জাকির হোসেন রিমন, সাধারণ সম্পাদক আবেদুর রেজা রিপন, মহানগর মহিলা দলের যুগ্ম আহবায়ক রওশন আরা পপি, সামসুন্নাহার, নুরুন্নাহার, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক সদস্য ইলিয়াস বিন কাশেম, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি আসাদুজ্জামান জনি, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রবি, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম জনি, মহানগর ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আকবর আলী জ্যাকি ও নাহিনসহ মহানগর বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উপস্থিত নেতৃবৃন্দ চলতি মাসের ২৯ তারিখ বিভাগীয় সমাবেশ সফল করতে প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন। তারা বলেন, সরকারী বাহিনী যতই বাধা প্রদান করুক না কেন কোন বাধাই তারা মানবে বলে অঙ্গিকার করেন নেতৃবৃন্দ।
প্রধান অতিতিথর বক্তব্যে মিনু বলেন, এই সরকার উন্নয়নের নামে দেশকে একট অকার্যকর এবং তলাবহিন ঝুড়িতে পরিণত করেছে। দেশে নতুন করে কোন কলকারখানা তৈরী হয়নি। সরকারী চাকুরী দেওয়ার নামে প্রার্থীদের নিকট থেকে সরকারে এমপি, মন্ত্রী ও নেতারা হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাট করেছে। দেশে এখন সাড়ে ৪লক্ষ যুবক যুবতী বেকার। তারা কর্ম না পেয়ে নেশা ও সন্ত্রাসসের দিকে ঝুকে পড়ছে। তিনি বলেন, ১৯০ জনের নিকট দেশ এখন জিম্মি হয়ে পড়েছে। আর এই বিলিয়ন টাকা মালিক ১৯০ জন নিকট বর্তমান সরকার অসহায় পড়েছে। দেশে এখন কোন প্রকার আইনের রশাসন নাই। প্রতিদিন খুন, ধর্ষন, গুম হয়েই চলছে। ধর্ষনের হাত শেকে ২ থেকে ১০ বছরের শিশুরা এবং গৃহবধুরাও রেহাই পাচ্ছে না। এরসাথে আবার এখন আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা যুক্ত হলেও তাদের বিরুদ্ধে সরকার কোন পদক্ষেপ নিতে পারছেনা। কারন আইন শৃংখলা বাহিনী ও প্রশাসনের উপর ভর করে এই সরকার ক্ষমতায় এসেছে। তাদের জনগণ ভোট দেয়নি। ভোট চুরি করে তারা সংসদে গেছেন বলে বক্তৃতায় উল্লেখ করেন তিনি। মিনু বলেন, এই সরকার পাকস্তানী হানাদার বাহিনীর থেকে খারাপ। তারা বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের দমনে সর্বদা কাজ করে চলছে। এই ১৩ বছরে ৮৩ থেকে ৮৭ শতাংশ বাজেটের টাকা ঢাকা এবং গোপালগঞ্জে এই সরকার ব্যয় করেছে।

পাকিস্তানী সরকারের ন্যায় অন্যান্য বিভাগের সাথে বৈষম্যমূলক আচরণ করছে এই সরকার। এই সরকার কৃষককে ধ্বংশ করেছে। শেয়ার বাজার ধ্বংশ করে লক্ষ লক্ষ মানুষকে পথে বসিয়েছে। বর্তমান অবৈধ সরকারের এই সকল কর্মকা- বন্ধ, গণতন্ত্র পুণরুদ্ধার, এবং দেশনেত্রী তিন বারের সফল প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্ত ও বিএনপি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য এই সরকারের পতন ঘটাতে হবে। সরকারের পতনের জন্য কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষে আগামী মহাবেশ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সমাবেশ সফল করতে সকল বাধা অতিক্রম করে রাজশাহী মাদ্রাসা মাঠে উপস্থিত হওয়ার জন্য সকল স্তরের নেতাকর্মীদের আহবান জানান। সেইসাথে প্রতিটি পাড়া মহল্লা, থানা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে সভা করার পরামর্শ দেন প্রধান অতিথি।

Comments

comments

Related Articles