সন্ধ্যা ৭:১৮ মঙ্গলবার ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

মির্জাপুরে আজগানা ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে সভাপতি মোক্তার, সম্পাদক শহিদুল | নাটোরে “টেকসই উন্নয়ন বাস্তবায়ন ও সমন্বয়” বিষয়ে সভা অনুষ্ঠিত | রাজধানীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ইন্দোনেশিয়ার নাগরিকের মৃত্যু | টানা চারবার ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিলেন ক্যানসারজয়ী নারী | বান্দরবানে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে এপেক্স ক্লাব | বান্দরবানে যে বিদ্যালয়ে এ ভর্তির আগে সাঁতার শিখতে হয়! | ঝালকাঠিতে নদী ভাঙ্গনের কবলে দোকনঘর, নদীগর্ভে ফেরি | আবারও একসঙ্গে রণবীর-ক্যাটরিনা | লভ্যাংশ ঘোষণার পর দুই কোম্পানির দরপতন | আট বিভাগীয় শহরে হবে পূর্ণাঙ্গ ক্যান্সার চিকিৎসাকেন্দ্র |

রামপালে স্কুল দপ্তরীর বিরুদ্ধে প্রতিবন্ধী কিশোরকে বলাৎকারের অভিযোগ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৯ , ৫:২২ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খুলনা
পোস্টটি শেয়ার করুন

রামপাল (বাগেরহাট) প্রতিনিধি: রামপালে প্রতিবন্ধী এক কিশোরকে বলাৎকারের ঘটনা ঘটেছে। গত সোমবার (২সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৬ টার সময় উপজেলার তালবুনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। এ বিষয়ে অভিযুক্ত ফরিদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে গনস্বাক্ষরকৃত একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ওই স্কুলে পড়–য়া একাধিক শিশুর সাথে যৌন হয়রানীর অভিযোগ রয়েছে।

এলাকাবাসী ও অভিযোগসূত্রে জানাযায়,তালবুনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম প্রহরী সাহেব আলী আকুজ্ঞীর ছেলে ফরিদ আলী আকুজ্ঞী (৩০) একই গ্রামের রশিদ কাজীর পুত্র মানসিক প্রতিবন্ধী মোয়াজ্জেম কাজী (১৬) কে খাবারের প্রলোভন দিয়ে বিদ্যালয়ের ছাদে ডেকে নিয়ে তার সাথে সমকামীতায় লিপ্ত হয়। এ সময় ভিকটিমের চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে ফরিদকে আটকের চেষ্টা চালায়। ফরিদ আটককারীদের উপর কিল ঘুসি চড় ও স্টিলের স্কেল দিয়ে হামলা চালিয়ে দিগম্বর অবস্থায় দৌড়ে পালিয়ে যায়। ও

ই এলাকার একাধিক অভিভাবকদের সাথে কথা বলে জানাযায়, ফরিদ দীর্ঘদিন ধরে স্কুলে পড়–য়া শিশু শিক্ষার্থীদের সাথে যৌন হয়রানির ঘটনা ঘটিয়ে আসছে। অভিভাবকরা এইধরনের একাধিক ঘটনা প্রধান শিক্ষিকা অবহিত করলেও এর আগে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে তিনি কোনো ব্যাবস্থা নেননি বলেও সাংবাদিকদের কাছে অভিভাবকরা অভিযোগ করেন।

স্কুলেগিয়ে দেখা গেছে, ফরিদ এসএসসি পাশ হওয়া স্বত্বেও নিয়োগের সময় সে ৮ম শ্রেনী পাশের একটি সনদ জমা দিয়েছে। এসএসসি সার্টিফিকেটে চাকুরীর বয়স না থাকায় ইসলামাবাদ সিদ্দিকিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে সে মোটা টাকার বিনিময়ে ৮ম শ্রেনী পাশের এই সনদ কিনেছে বলে ফরিদ সাংবাদিকদের কাছে স্বীকার করেছে। এছাড়া তার জাতীয় পরিচয়চয়পত্রে বয়স সংশোধন ও করা হয়েছে বলে ভোটার লিষ্ট দেখে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা হাসনা বেগমের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান,ঘটনারদিন সন্ধ্যার পরপরই আমাকে স্থানীয় কয়েকজন বিষয়টি সম্পর্কে জানায়। পরদিন সকালে স্কুল আসলে তারা আমার কাছে তালাচাবি জমা দিয়েছে। স্কুলের অভিভাবকরা এবং স্থানীয় লোকজন আমার কাছে অভিযোগ করছে। বিষয়টি আমি আমার উদ্ধর্তন কতৃপক্ষকে অবহিত করেছি।

অভিযুক্ত ফরিদের কাছে ঘটনাটি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন,একটি পক্ষ আমার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করেছে। এসএসসি পাশ হয়েও ৮ম শ্রেনীর সার্টিফিকেট দিয়ে বয়স কমিয়ে চাকরী কেনো নিয়েছেন এমন প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারেনি। তবে ইসলামাবাদ সিদ্দিকিয়া দাখিল মাদ্রাসার অফিস সহকারী লিয়াকত কে মোটা টাকার বিনিময়ে ৮ম শ্রেনী পাশের সার্টিফিকেট গ্রহন করেছে বলে সাংবাদিকদের কাছে বলেন।

ইউএনও তুষার কুমার পাল এর কাছে এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন,ঘটনাটি আমি জেনেছি। আমি প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে সাথে নিয়ে ঘটনার তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেবো।

Comments

comments