রাত ৯:২৯ বুধবার ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

বহুল আলোচিত লেডি মাফিয়া কহিনুর গ্যাংয়ের বিরুদ্ধে মানবন্ধন | পাবনা সদরের ওসি ওবাইদুল হক বরখাস্ত | ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদসহ ১৪২ নারী-পুরুষ আটক | রামপালে বন পরিবেশ ও জলবায়ু উপমন্ত্রীর জম্মদিন পালন | যশোরের বাগআঁচড়া ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের মতবিনিময় | কাঠালিয়ায় মাদকদ্রব্য উদ্ধারে সহায়তা করায় গ্রাম পুলিশকে পুরুস্কৃত করলেন ওসি | পলাশবাড়ীতে ৬৫ বোতল ফেন্সিডিল সহ এক মহিলা আটক | বীরগঞ্জে সাপের কামড়ে কিশোরের মৃত্যু | মির্জাপুরে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু | বীরগঞ্জে ছিনতাইকারী ডলার চক্রের প্রতারক ওসি পরিচয়দানকারী গ্রেফতার |

বান্দরবাননে হত্যা মামলায় গ্রেফতার জনসংহতি নেতা চ সা থোয়াই

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : সেপ্টেম্বর ২, ২০১৯ , ১১:১০ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : চট্টগ্রাম
পোস্টটি শেয়ার করুন

রিমন পালিত, বান্দরবান প্রতিনিধিঃ বান্দরবান হত্যা মামলায় কারাগারের ফটক থেকে আবারো গ্রেফতার জনসংহতি নেতা চ সা থোয়াই মারমা। ২০১৯ এর নতুন বছরের শুরু থেকে বান্দরবানের চলে আসছে হত্যাকাণ্ড গুম ও অপহরণ । আর তার পিছনে কাজ করে যাচ্ছে বলে দাবি পাহাড়ি সশস্ত্র বাহিনী জেএসএস।

বান্দরবানের শান্তি-শৃংখলা বিঘ্ন ঘটিয়ে পাহাড় কে উত্তপ্ত করার জন্য তারা পরিকল্পিতভাবে এ কাজ করে যাচ্ছে বলে সাধারণ জনগণের দাবি।

তারই কার্যক্রমের মাধ্যমে বান্দরবানে এই তিন-চার মাসের মধ্যে হত্যাকাণ্ড স্বীকার হয়ে গেল ১৪ থেকে ১৫ জন নেতাকর্মী।
কাউকে গুলি করে, কাউকে বাসা থেকে তুলে নিয়ে, অথবা কাউকে পথের মধ্যে কুপিয়ে হত্যা করেছে এ সশস্ত্র বাহিনী।

তারই ধারাবাহিকতায় ২৩ মে সন্ত্রাসীরা অপহরণের পর হত্যা করে বান্দরবানের আওয়ামীলীগ নেতা চ থোয়াই মং মারমাকে, ১৯ মে হত্যা করা হয় ক্যচিং থোয়াই মারমাকে, এর কিছুদিন পর বান্দরবানের রোয়াংছড়িতে কিছুদিন আগে গুলি করা মং বাইথুই, এবং নাইক্ষ্যংছড়িতে ধারালো অস্ত্র দিয়ে। কুপিয়ে হত্যা করা হয় আরেক আওয়ামীলীগ নেতা কে।

এই বছরটি যেন রক্তের ধারাবাহিকতায় হত্যাকাণ্ড গুম আর রাহাজানির জন্য এক স্মরণীয় বছর হিসেবে বান্দরবানবাসীর মনে গাঁথা হয়ে থাকবে।

কোর্ট সূত্রে জানা যায় বান্দরবানে জনসংহতি সমিতির জেএসএসের কে এস মং মারমা, ক্যাবামং মারমা, ও চসা থোয়াই মারমাকে থানচি উপজেলা আওয়ামীগ লীগ নেতা হত্যাকান্ডের মূল আসামী করা হয়।

তাদের মধ্যে আজ সোমবার দুপুরে জামিন নেই চ সা থোয়াই মারমা, জামিন নিয়ে বের হবার সাথে সাথে কোটের ফটক থেকেই আবার তাকে গ্রেফতার করে বান্দরবান পুলিশ।

এইসময় কোর্টে দায়িত্বরত বান্দরবান সদর থানার পুলিশ উপ-পরিদর্শক মোঃ জিয়াউর রহমান বলেন চসা থোয়াই হল থানছি উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান হত্যার মূল প্রধান আসামি। তাই কোটের রিট অনুযায়ি সকল আইনজীবী, কোট পরিদর্শক, পুলিশ ও উপস্থিত সকল সাধারণ জনসাধারণের সামনে থেকে গ্রেফতার করে পুনরায় জেলে প্রেরণ করা হয়।

হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে বান্দরবানের আওয়ামীলীগ সংগঠনের সকল নেতারা জানান আমাদের বান্দরবানের শান্তিপ্রিয় সম্প্রীতি কে নষ্ট করে যে জেএসএস মহল বান্দরবান কে ধ্বংস করার চেষ্টা করছে আমরা বান্দরবানবাসী তা কোনদিনও সফল হতে দিব না।

বান্দরবানের আওয়ামীলীগকে চিরতরে মুছে ফেলার জন্য তারা এ ধরনের চক্রান্ত করছে, তারা ইতিমধ্যে প্রতিটি জেলা ও উপজেলার সকল উদ্ধতন এবং প্রভাবশালী নেতাদের হত্যা করে বান্দরবান কে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য এক বিশাল তালিকা তৈরি করেই হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে।

আর এই দিকে জেএসএস নেতা পুনরায় জামিনে বের হওয়ার পর গ্রেপ্তার হওয়ার কারণে বাঙালি পাহাড়ি মাঝে কিছু সংশয় কাজ করছে। তাই বান্দরবানবাসী তথা সকল জনসাধারণের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে বান্দরবানের সকল প্রশাসনিক উর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ।
যাতে এই গ্রেফতারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে বান্দরবানে আবার কোন বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি না হয়।

Comments

comments