ভোর ৫:৩০ শুক্রবার ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

আসামে বিপুল সংখ্যক সেনা মোতায়েন, কী হবে মুসলমানদের?

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ৩১, ২০১৯ , ১২:১৬ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিশেষ প্রতিবেদন
পোস্টটি শেয়ার করুন

আসামে চূড়ান্ত নাগরিক তালিকা (এনআরসি) প্রকাশের একদিন আগে শুক্রবার বিপুল সেনা ও পুলিশ মোতায়েন করেছে মোদি সরকার। গত চার বছর ধরে যাচাই-বাছাইয়ের পর আসাম সরকার শনিবার ন্যাশনাল রেজিস্টার অব সিটিজেন্স (এনআরসি) এর চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করতে যাচ্ছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, সীমান্ত এলাকা আসামে ১০ হাজার আধাসামরিক বাহিনী ও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ছাড়া রাজ্য পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, শনিবার ৬০ হাজার রাজ্য পুলিশ ও ১৯ হাজার আধাসামরিক বাহিনী দায়িত্ব পালন করবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, তালিকা থেকে বাদ পড়ে রাজ্যের লাখো লাখো বাসিন্দা বিশেষ করে মুলসমানদের নাগরিকত্ব হারিয়ে রাষ্ট্রহীন হয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। আসামে তিনকোটি ৩০ লাখ জনসংখ্যার বসবাস।তালিকা থেকে ৪০ লাখের বেশি আবেদনকারীর নাম বাদ পড়তে পারে বলে ধারণা প্রকাশ করছে ভারতে কয়েকটি সংবাদমাধ্যম।

তবে যাদের নাম বাদ পড়বে তারা এখনই বিদেশি গণ্য হবেন না বলে এনডিটিভিকে জানান রাজ্যের গৃহমন্ত্রণালয়ের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা। বরং তারা আপিল করার জন্য ৬০ থেকে ১২০ দিন সময় পাবেন।গৃহমন্ত্রণালয় জানায়, আপিল আবেদনের শুনানির জন্য রাজ্যে অন্তত এক হাজার ট্রাইবুনাল গঠন করা হবে। এরই মধ্যে একশ ট্রাইবুনাল গঠন করা হয়েছে, সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহ নাগাদ ওই সংখ্যা দুইশোর বেশি হবে।

ট্রাইবুনালে হেরে গেলে যে কেউ হাইকোর্ট এবং সেখান থেকে সুপ্রিমকোর্টে যেতে পারবেন।সমস্ত আইনী প্রক্রিয়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত কাউকে বন্দিশিবিরে নেওয়া হবে না বলেও নিশ্চিত করেছে আসাম সরকার। বন্দিশিবির থেকে তাদের পরে বাংলাদেশে বিতাড়ন করা হবে বলে রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

ভারত থেকে বের করে দেওয়া মানুষদের গ্রহণ করবে কিনা তা নিয়ে বাংলাদেশ সরকার এখনো কোনো মন্তব্য করেনি।কিন্তু এত মানুষকে আটকে রাখার মতো ব্যবস্থা এই মুহূর্তে আসাম সরকারের হাতে নেই বলে জানায় রয়টার্স।চূড়ান্ত নাগরিক তালিকায় ঠাঁই পেতে হলে বাসিন্দাদের প্রমাণ করতে হবে তারা ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চের আগে রাজ্যে আবাস গেড়েছেন।

গত চার বছর ধরে সেখানকার বাসিন্দাদের নিজেদের নাগরিকত্ব প্রমাণের নানা কাগজ-পত্র হাতে এক দরজা থেকে অন্য দরজায় ছুটতে হয়েছে।২০১৮ সালের জানুয়ারিতে প্রথম খসড়া প্রকাশ করা হয়। সেখানে মাত্র এক কোটি ৮০ লাখ মানুষের ঠাঁই হয়। অথচ আবেদন করেছিল তিন কোটি ২৯ লাখ মানুষ।

যা নিয়ে তীব্র সমালোচনা ও বিক্ষোভ শুরু হলে ওই বছর জুলাই মাসে সংশোধিত খসড়া নাগরিকপঞ্জি প্রকাশ পায়। নতুন তালিকায় দুই কোটি ৮৯ লাখ মানুষের নাম ঠাঁই পেলেও বাদ পড়েন উত্তর-পূর্ব আসামের প্রায় ৪০ লাখ বাসিন্দা।ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আসামের পর পশ্চিমবঙ্গসহ সীমান্তবর্তী অন্যান্য রাজ্যের ‘অবৈধ অভিবাসীদের’ চিহ্নিত করতে একই ব্যবস্থা গ্রহণ করার কথা জানিয়েছেন বলে জানায় রয়টার্স।

Comments

comments