রাত ১০:৩৮ রবিবার ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

পলাশবাড়ীতে বজ্রপাতে শুকর পালনকারী নিহত | কালীগঞ্জে ৪০০ পিস ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক | কালীগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র মরহুম মকছেদ আলী বিশ্বাসের মৃত্যুবার্ষিকী পালন | গাইবান্ধা সরকারি কলেজে ছাত্র ইউনিয়নের বিক্ষোভ সমাবেশ | ঝিনাইদহের বাদপুকুরিয়ার সিরাজের অপকর্ম ফাঁস; দুর্বলতার সুযোগে দেহ ব্যবসা | ফুলছড়িতে ৪ দিনব্যাপী কৃষি মেলার উদ্বোধনে ডেপুটি স্পিকার | ৪ হাত ও ৩ পা নিয়ে বিস্ময়কর এক শিশুর জন্ম! | ঝালকাঠিতে আসন্ন দুর্গাপূজা উপলক্ষে জেলা পুলিশের মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত | ঝালকাঠির রাজাপুরে আলোচিত শুভ হত্যা মামলার আসামী গ্রেফতার | রাবিতে তিন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কুশপুত্তলিকা দাহ |

সুন্দরী সাধনার সঙ্গে যেভাবে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে ওঠে জামালপুরের ডিসির

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ২৬, ২০১৯ , ১২:৩৭ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : মিডিয়া
পোস্টটি শেয়ার করুন

পিয়ন পদে চাকরি করলেও ডিসি অফিসে দোর্দণ্ড প্রতাপে দাপিয়ে বেড়াতেন সানজিদা ইয়াসমিন সাধনা। তার প্রভাবের মুখে সব সময় কর্মকর্তা কর্মচারীরা থাকতো তটস্থ। শুধু কর্মচারীরাই নয় উর্ধতন কর্মকর্তাদেরও থোড়াই কেয়ার করতেন তিনি। চাকরি হারানোর শংকায় প্রতিবাদ করতে সাহস পেত না কেউ।তবে জেলা প্রশাসক আহমেদ কবিরের সঙ্গে অশ্লীল ভিডিও ভাইরালের পর ভুক্তভোগী কর্মকর্তা-কর্মচারীরা মুখ খুলতে শুরু করেছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেশ কজন কর্মকর্তা কর্মচারী এ প্রতিবেদককে বলেন, সাধনা ২০১৮ সালে উন্নয়ন মেলায় হস্তশিল্পের স্টল বরাদ্ধ নেয়ার জন্য জেলা প্রশাসক আহমেদ কবিরের সাথে দেখা করেন। তার রূপে মুগ্ধ হয়ে বিনামূল্যে স্টল বরাদ্দ দেন জেলা প্রশাসক।

উন্নয়ন মেলা চলাকালীন তাদের মধ্যে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরবর্তীতে যা শারীরিক সর্ম্পকে রূপ নেয়। এমন একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে তাদের। ইতোমধ্যে আহমেদ কবিরকে ওএসডিও করা হয়েছে।

২০১৯ সালের জানুয়ারিতে ডিসি অফিসে ২৭ জনকে অফিস সহায়ক পদসহ ৫৫ জনকে নিয়োগ করা হয়। সেই সর্ম্পকের সূত্র ধরে সানজিদা ইয়াসমিন সাধনা নিজে ও তার দুই আত্মীয় রজব আলী ও সাবান আলীকে অফিস সহায়ক পদে নিয়োগ পাইয়ে দেন।

সাধনা অফিস সহায়ক পদে যোগদান করার পর জেলা প্রশাসকের অফিস রুমের পাশে খাস কামরাটিতে মিনি বেড রুমে রূপান্তর করতে খাট ও অন্যান্য আসবাবপত্রসহ সাজ্জসজ্জা করেন। সেই রুমেই চলতো তাদের রঙ্গলীলা।

অফিস চলাকালীন সময়ে তাদের রঙ্গলীলা অবাধ করতে সেই কামরার দরজায় বসানো হয়েছিল লাল ও সবুজ বাতি। রঙ্গলীলা চলাকালে লালবাতি জ্বলে উঠতো। দরজার সামনে দাঁড়িয়ে থাকতো বিশ্বস্ত পিয়ন। এই সময় কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সবার জন্য প্রবেশাধিকারে নিষেধাজ্ঞা ছিল।

এ সময় তার অফিসের বাইরে ফাইলপত্র নিয়ে অপেক্ষায় থাকতো কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ অনেকেই। লীলা শেষে পরিপাটি হয়ে যখন চেয়ারে বসতো তখন জ্বলে উঠতো সবুজ বাতি। সবুজ বাতি জ্বলে উঠার পরেই শুরু হতো দাপ্তরিক কার্যক্রম।

ডিসি অফিসে গুঞ্জন রয়েছে, ছায়া ডিসি সাধনার হাতে লাঞ্চিত হয়েছেন একাধিক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা। ডিসির প্রভাব খাটিয়ে বিভিন্নি দপ্তরে বদলি, নিয়োগ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি বাণিজ্য করে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। জেলা প্রশাসকের স্বাক্ষরিত কাজে সাধনাকে ম্যানেজ করতো সুবিধাভোগীরা। সবার মাঝেই ছায়া ডিসি হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছিলেন এই প্রভাবশালী পিয়ন।টিবিটি

Comments

comments