রাত ১০:২১ মঙ্গলবার ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

মির্জাপুরে আজগানা ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে সভাপতি মোক্তার, সম্পাদক শহিদুল | নাটোরে “টেকসই উন্নয়ন বাস্তবায়ন ও সমন্বয়” বিষয়ে সভা অনুষ্ঠিত | রাজধানীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ইন্দোনেশিয়ার নাগরিকের মৃত্যু | টানা চারবার ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিলেন ক্যানসারজয়ী নারী | বান্দরবানে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে এপেক্স ক্লাব | বান্দরবানে যে বিদ্যালয়ে এ ভর্তির আগে সাঁতার শিখতে হয়! | ঝালকাঠিতে নদী ভাঙ্গনের কবলে দোকনঘর, নদীগর্ভে ফেরি | আবারও একসঙ্গে রণবীর-ক্যাটরিনা | লভ্যাংশ ঘোষণার পর দুই কোম্পানির দরপতন | আট বিভাগীয় শহরে হবে পূর্ণাঙ্গ ক্যান্সার চিকিৎসাকেন্দ্র |

প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা জহির রায়হানের জন্মদিন আজ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ১৯, ২০১৯ , ১১:৩০ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বিশেষ দিবস ও ব্যাক্তিত্ব
পোস্টটি শেয়ার করুন

তানজিদ শুভ্রঃ আজ কালজয়ী চলচ্চিত্র নির্মাতা ও শক্তিমান কথাসাহিত্যিক জহির রায়হানের ৮৪তম জন্মদিন। ১৯৩৫ সালের এই দিনে (১৯ আগস্ট) ফেনী জেলার সোনাগাজি উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের মজুপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

জহির রায়হান ছিলেন একজন সফল সাংবাদিক, লেখক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি প্রথম যে ১০ জনের দলটি ১৪৪ ধারা ভেঙেছিল, জহির রায়হান ছিলেন তাদেরই একজন। ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের সঙ্গেও জড়িত ছিলেন সরাসরি।

চলচ্চিত্রচর্চার সঙ্গেও তার সম্পর্ক ছাত্র অবস্থায়ই। ১৯৬৪ সালে পাকিস্তানের প্রথম রঙিন ছবি ‘সঙ্গম’ নির্মাণ করেন তিনি। ১৯৬৫ সালে মুক্তি পায় তার প্রথম সিনেমাস্কোপ ছবি ‘বাহানা’। ১৯৭১ সালের এপ্রিলে জহির রায়হান চলে যান কলকাতায়। শুরু করেন তার অন্যরকম মুক্তিযুদ্ধ। সামান্য কিছু যন্ত্রপাতি আর ছোট একটি দল নিয়ে বেরিয়ে পড়েন তিনি। এর পর ঘুরে বেড়ান সীমান্তে। এক শরণার্থী শিবির থেকে অন্য শিবিরে। নির্মিত হয় ‘স্টপ জেনোসাইড’। জহির রায়হানের অন্য ছবিগুলো হচ্ছে ‘সোনার কাজল’, ‘কাচের দেয়াল’, ‘আনোয়ারা’, ‘বেহুলা’, ‘জ্বলতে সুরুজ নিচে’ এবং ‘জীবন থেকে নেয়া’। নির্মাণ শেষ করতে পারেননি ‘লেট দেয়ার বি লাইট’-এর কাজ। প্রকাশিত উপন্যাসগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘শেষ বিকেলের মেয়ে’, ‘হাজার বছর ধরে’, ‘আরেক ফাল্গুন’, ‘বরফ গলা নদী’ এবং ‘আর কত দিন’।

সাহিত্য আর চলচ্চিত্রে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ‘নিগার’ চলচ্চিত্র পুরস্কার, আদমজী সাহিত্য পুরস্কার এবং বাংলা একাডেমির মরণোত্তর সাহিত্য পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন তিনি।

১৯৭২ সালের ৩০ জানুয়ারি অগ্রজ সাংবাদিক শহীদ বুদ্ধিজীবী শহীদুল্লা কায়সারের সন্ধানে বেরিয়ে আর ফিরেননি এই নন্দিত চলচ্চিত্র পরিচালক। মুক্তিযুদ্ধবিরোধীদের হাতে মিরপুরে তিনি শহীদ হন বলে পরে জানা যায়। তার মৃতদেহটির হদিস মিলে নি আজও।

Comments

comments