রাত ২:২৪ মঙ্গলবার ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

‘বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীকে বঙ্গবন্ধু ভবনে ঢুকতে দেয়া হয়নি’

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ১৫, ২০১৯ , ১১:২৯ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : মিডিয়া
পোস্টটি শেয়ার করুন

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তমকে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে ঢুকতে দেয়া হয়নি। কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের যুগ্ম-সম্পাদক ইকবাল সিদ্দিকী বৃহস্পতিবার এতথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বঙ্গবীর বৃহস্পতিবার বিকাল চারটায় ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে গেলে তাকে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা ঢুকতে দেয়নি। বঙ্গবীরকে জানান হয় যে আজকে পরিবারে সদস্যরাই কেবল ৩২ নম্বরে প্রবেশ করতে পারবে। ইকবাল সিদ্দিকী আরো জানান বঙ্গবন্ধুর মেয়ে শেখ রেহানাই বঙ্গবীর’কে বলেছেন ৩২ নম্বর শুধু পরিবার নয় সব মানুষের জন্য সব সময় উন্মুক্ত থাকবে। আর এজন্যই বঙ্গবীর এদিনে গিয়েছিলেন সেখানে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য তাকে ঢুকতে দেয়া হয়।

এদিকে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকীর দিনে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীকে বঙ্গবন্ধু ভবনে প্রবেশে বাধা প্রসঙ্গে দলের পক্ষ থেকে যুগ্ম-সম্পাদক ইকবাল সিদ্দিকী স্বাক্ষরিত এক প্রেসবিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। এতে বলা হয় বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকীর দিনে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনে প্রবেশ করতে বাধা দেয়া হয়েছে বঙ্গবন্ধু হত্যার একমাত্র প্রতিবাদকারী বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তমকে। বিকেল ৪টার দিকে বঙ্গবন্ধু ভবনে প্রবেশ করতে গেলে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা তার গতিরোধ করেন এবং প্রায় আধা ঘণ্টা দাঁড় করিয়ে রেখে বলেন, ‘Male are not allowed, Only family members are allowed’ এরপর বঙ্গবীর সেখান থেকে ফিরে আসেন।

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের নিন্দা: বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকীর দিনে ধানমন্ডিরর ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনে বঙ্গবন্ধু হত্যার একমাত্র প্রতিবাদকারী বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তমকে প্রবেশ করতে না দেয়ায় কৃষক শ্রমিক কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান বীরপ্রতিক তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, “ধানমণ্ডির বাড়ি শুধু আমাদের নয়, ওই বাড়ি আপনারও। বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠা কন্যা শেখ রেহানা বঙ্গবীরকে এ কথা বলার পর থেকে বেশ কয়েক বছর ধরেই কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম ১৫ই আগস্ট বিকেলে বঙ্গবন্ধু ভবনে যান এবং সেখানে আসরের নামাজ আদায় করে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার স্থানের কাছে কিছুক্ষণ অবস্থান করেন। তিনি বলেন, গত বছরও বঙ্গবন্ধু ভবনে প্রবেশ করতে গেলে প্রথমে বঙ্গবীরকে ফিরিয়ে দেয়া হয়, কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপে তাঁকে প্রবেশ করতে দেয়া হয়। তিনি বলেন একদিকে সরকার মুজিব বর্ষ ঘোষণার মাধ্যমে দলমত নির্বিশেষে বঙ্গবন্ধুকে যথাযথ মর্যাদা দেয়ার আহবান জানায়, অন্যদিকে তার হত্যার একমাত্র সশস্ত্র প্রতিবাদ করে ১৬ বছর যিনি নির্বাসনে থাকেন সেই বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর মতো মানুষকে বঙ্গবন্ধু ভবনে প্রবেশে বাধা দেয়।

তিনি আরও বলেন,সরকারের এহেন আচরণে প্রতীয়মান হয় যে সরকারেরই একটা অংশ বঙ্গবন্ধুকে সরকারি বা দলীয় সম্পদ হিসেবে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করতে চায়, যা কোন দেশপ্রেমিক মানুষের কাম্য নয়।

Comments

comments