সকাল ৮:৫২ বৃহস্পতিবার ২২শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

একদিনেই সৌদি আরব ছাড়লেন ১ হাজারের বেশি সৌদি নারী! | কিশোরকে অ'পহ'রণ করে ৪০ দিন যৌ'নদা'স হিসেবে ব্যবহার ৩৮ বছরের নারীর | কাতারে নিজেদের বিপদ নিজেরাই ডেকে আনছেন বাংলাদেশিরা | অল্পের জন্য বেঁচে গেলো তিন ক্রিকেটারের! | সরকারি জমি দখলকে ফৌজদারি কার্যবিধির অধীনে বিচারের আইন হচ্ছে: ভূমিমন্ত্রী | ইমরান খানের সঙ্গে দেখা করতে চান বিল গেটস | চীনের সঙ্গে যুদ্ধে কয়েক ঘণ্টায় পরাজিত হবে যুক্তরাষ্ট্র! | ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী চিদম্বরম গ্রেপ্তার | রামপালে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত শহীদদের স্বরনে শোক সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত | মানুষের শরীরে প্রতিস্থাপিত হবে শূকরের হার্ট ও কিডনি! |

স্ত্রীর সম্মান বাঁচাতে প্রকাশ্যে বখাটেদের মার খেলেন শিক্ষক

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ১৫, ২০১৯ , ৭:২৭ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : রাজশাহী
পোস্টটি শেয়ার করুন

স্ত্রীর সম্মান বাঁচাতে গিয়ে বখাটেদের হাতে মার খেলেন ‘প্রধানমন্ত্রী গোল্ড মেডেল প্রাপ্ত’ রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের মেধাবী শিক্ষক রাশিদুল ইসলাম। গেল ১০ আগস্ট রাজশাহী শহরের জনবহুল এলাকা সাহেববাজার মনি চত্বরে এ ঘটনা ঘটেছে।

ঘটনার দিনই নিজের ফেসবুক পেজে বিষয়টি শেয়ার করেন ভুক্তোভোগী শিক্ষক। ঘটনার সময় সময় আশপাশে মানুষের কাছে সাহায্য চাইলে তারা কোনো সাহায্য না করে নিশ্চুপ দাঁড়িয়ে দেখছিলো বলে জানান তিনি। এমনকি, তিনি সকলের কাছে ‘বাঁচান’ বলে সাহায্য চাইলেও কেউ এগিয়ে আসেনি।

এক পর্যায়ে ক্রোধান্বিত হয়ে ‘ও আমার বউ, গার্লফ্রেন্ড না, কাবীননামা দেখাতে হবে আপনাদের?’ বললে উল্টো বখাটেদের পক্ষ নিয়ে একজন ভিড়ের মধ্য থেকে বলে, ‘হ্যাঁ, কাবীননামা নিয়েই চলাফেরা করতে হবে!’

ঘটনার বিবৃতি দিয়ে ফেসবুকে রাশিদুল ইসলাম লেখেন, ‘মেনে নিন নয়তো দেশ ছেড়ে চলে যান। এদেশে আপানার চোখের সামনে আপনার মা, বোন অথবা বউ ধর্ষিত হলেও প্রতিবাদ করবেন না, আশেপাশে কাউকে পাবেন না। মার খেয়ে মরবেন। কারণ আপনি একটা জানোয়ার, আমিও একটা জানোয়ার, জানোয়ারে ভরা সমাজ আমাদের।’

ঘটনাটার বিবরণ দিয়ে তিনি বলেন, ‘সাহেববাজার মনি চত্বর এর মত জনবহুল এলাকাতেও আমার বউ হেনস্তার শিকার হয়। এক পাল ছেলের মধ্যে একজন আমার বউকে পেছন থেকে কয়েকবার ইচ্ছাকৃত ধাক্কা দেয়। দুই-তিনবার সহ্য করলেও পরেরবার প্রতিবাদ করি। ব্যাস, সোনার ছেলেদের দাপট শুরু। শেষে আমাকে সোনাদীঘি মসজিদের সামনে ৫-৭ মিলে ঘিরে ধরে মারা শুরু করে। এই পর্যন্ত না হয় মেনে নিলাম।’

তিনি বলেন, ‘ওখানে কম করে হলেও ৫০ জন আমার মার খাওয়া দেখছিলো। একজনও এগিয়ে আসেনি। মার খাওয়ার এক পর্যায়ে আমি দর্শকদের উদ্দেশ্যে বলি, ‘বাঁচান আমাকে’, কোন রেসপন্স পাইনি। একজন মোটরসাইকেল থামিয়ে আমার মার খাওয়া দেখছিলো, আমি সাহায্য চাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মোটরসাইকেল চালিয়ে চলে গেলো।’

Comments

comments