বিকাল ৩:৪১ রবিবার ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

পলাশবাড়ীর বিধবা গোলেজা বেগমের ২০ বছরে না পাওয়া কিছু কথা

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ১০, ২০১৯ , ১১:১৪ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : রংপুর
পোস্টটি শেয়ার করুন

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা প্রতিনিধি: গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার পৌর এলাকার এক বিধুবা নাম তার গোলেজা বেগম (৬০)। গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার পৌর এলাকার আমবাড়ী গ্রামের মৃত জোব্বারের মেয়ে, উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন জামালপুর গ্রামের মৃত মেহের আলী বুড়ার স্ত্রী গোলেজা বেগম (৬০),। যাকে সদরের অনেকেই চিনে বুড়ার বৌ হিসাবে। সে বর্তমান সময়ে আমবাড়ী প্রবেশদ্বারে পাশে ব্রিজটি নিকটে ওমমিয়ার বাড়ী থাকে।

কাউকে ঘুষ দিতে না পারায় বিধুবা হওয়ার ২০ বছর পেরিয়ে গেলেও তার ভাগ্যে আজও মেলেনি বিধবা ভাতার কার্ড । আসন্ন ঈদে তার কপালে জোটেনি কোন প্রকার রিলিপ শ্লিফ।

তার না পাওয়া ক্ষোভে বহিপ্রকাশে বুক ফাটা আত্বনাতে বলেন,মোর তো টেকা নাই এজন্য মোর কিছুই নাই। মোর বেটি সালমা (২২) যখন ছোট তখন মোর স্বামী মারা যায়।সেই হতে দুটে বেটি নিয়ে মুই দুংখ কষ্ট করে ছোল দুটোক নিয়ে চলতিছ। মোর ছোট বেটিটে দুই ছোলের মাও হলো তাও মুই কোন কার্ড পানুনে। মোর তো বাড়ীর ভিটাও নাই তাও মুই পাওনা। আর যারা আবাদ করে ভাত খায়, জমি জমাও আছে সেগলেই চাউল পায় মুই পাওনা। দেশ নাকি অনেক উন্নতি হয়েছে মোর ভাগ্যের কোন উন্নয়ন হয়নি।

গোলেজা বেগম বলে,কতজনার কাছেই না গেনু কেউ মোক এনা কিছুই দেয়না। বেটি জামাই দুই নাতনিক নিয়ে পরের বাড়ীত খুব কষ্ট করে জীবন চালাচ্ছো। কেউ নাই হামরোক দয়া করার মতো। একটা করে বছরকার দিন ঈদ যায়। মানসে কত কি পায় আর মুই কিছু পানুনে। বিধবা হনু তখন কয় বয়স হয় নাই এখন তো মোর ৬০ বছর বয়স আরো কত বছর পর মোর কপাল জুটি এগলে ভাতার কার্ড। কেটা দেখপি গরিবের কষ্ট।

গোলেজা বেগম (৬০) সহ তার পরিবারটি অসহায় ও অতিদরিদ্র ঈদ উপলক্ষে এই পরিবারটির পাশে একটু সহায়তা করার জন্য সকলের নিকট অনুরোধ জানিয়েছেন স্থানীয় সচেতন মানুষ।

Comments

comments