রাত ১০:০৯ বুধবার ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ঐতিহ্যবাহী কোষা নৌকা বিলুপ্তির পথে

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : আগস্ট ৯, ২০১৯ , ১২:০৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : ফিচার
পোস্টটি শেয়ার করুন

আরিফুল ইসলাম শ্যামল: মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুরের সভ্যতার প্রতীক (কোষ) নৌকা কালের বিবর্তনে এখন অনেটাই বিলুপ্তির পথে। ঐতিহ্যবাহী বিক্রমপুরসহ সারা দেশের খাল বিল নদী নালায় ও জনবসতিপূর্ণ এলাকার পুকুরের ঘাটে ঘাটে কোষা নৌকা সাড়িবদ্ধভাবে বাঁধা থাকতে দেখা যেত। এক সময়ে গ্রাম বাংলার মানুষের একমাত্র যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে পরিচিত ছিলো নৌকা।

হাট-বাজার, বিয়েসাধী, পিকনিক ভ্রমণসহ বেড়াতে বা যেকোন কাজেকর্মে নৌকার কোন বিকল্প ছিলোনা। এখন ভরা বর্ষায় কোথায়ও বড় পাল তোলা নৌকার দেখা মিলেনা। নৌকার হাল ধরা মাঝিদের কন্ঠে গান আর শুনতে পাওয়া যায়না। খাল-নদীর পাড় দিয়ে দাঁর (গুন) টেনে মালবাহী গস্তী নৌকা টেনে নিয়ে যাওয়ার দৃশ্যও চোখে পরেনা! ডিজিটাল যুগে, যুগের সাথে তাল মিলিয়ে পরিবর্তন হচ্ছে দেশ। গ্রামগঞ্জের হাটে বাজার গুলোতে আর নৌকা বিক্রি হয়না আগের মতো। দুই একটি হাটে নৌকা বিক্রি হলেও তাও এখন বিলুপ্তীর পথে। দুই দশক আগেও বর্ষার সিজনে নৌকার কদর ছিলো। দেখা যেত বড় নৌকায় ডিঙ্গি কোষা আড়াআড়িভাবে একটির ওপরে আরেকটি বসিয়ি ফেরী করে কোষা নৌকা বিক্রি করতে দেখা যেত। এখন বর্ষার ভরা মৌসুমে হাটে নৌকা নিয়ে বসে থেকেও তেমন বিক্রি করতে করতে পারছেনা নৌকা শিল্পের কারীগররা। এমনি চিত্র দেখা গেছে শ্রীনগর উপজেলার দেউলভোগ ঐতিহ্যবাহী নৌকার হাটে। রেডিমেট কোষা নৌকা নিয়ে অসল সময় পার করতে দেখা গেছে তাদের।

এসময় সিফাত, আকবর আলীসহ কয়েজন বিক্রেতা বলেন, জেলার নিমতলা, দামালিয়া এলাকা থেকে কোষা নৌকা বিক্রি করতে এসেছেন তারা। আগের মতো নৌকা বিক্রি আর হয়না। মানুষের কাছে নৌকার চাহিদা কমে গেছে। করই বা চামবল জাতের মতো কাঠের প্রতিটি রেডিমেট কোষা নৌকা (৭-১০ হাত) ২০০০-৩০০০ হাজার টাকায় বিক্রি করছেন তারা। এখানে আবার কোষার আকার ভেদে কমদামেও বিক্রি করা হয়ে থাকে। তারা আরো জানান, বাপ দাদাদের আদি ব্যবসার কারণে তারাও নৌকা তৈলীর শিল্পকে ছারতে পারছেন না। অনেকটাই পরিস্থিতির স্বীকার বাধ্য হয়েই এই শিল্পটির সাথে জড়িয়ে রয়েছেন তারা।

নৌকা কিনতে আসা আড়িয়াল বিল এলাকার আবুল হাসেম বলেন, সাংসারিক ও গবাদিপশুর খাবার ঘাঁস সংগ্রহের কাজে বিলে যেতে তাদের নৌকার বিশেষ প্রয়োজন হয়। তাই এখানে তিনি কোষা কিনতে এসেছেন। এখানে কম দামে নৌকা পাওয়া যায়।

এ অঞ্চলে বিলবাসীদের গৃহস্তালি কাজে ও পারাপারের জন্য নৌকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ এখনো। কারণ বছরের প্রায় ৩-৪ মাস তাদের নৌকা করেই যাতায়াত করতে হয়। নৌকা তৈরীর শিল্পটি যদি বন্ধ হয়ে যায় তাহলে হয়ত, মুন্সীগঞ্জের বিক্রমপুর বাসীর চোখে এক সময় ঐতিহ্যবাহী কোষা নৌকার আর দেখা মিলবেনা।

Comments

comments