রাজধানী

শরীয়তপুরে জমতে শুরু করেছে কুরবাণীর পশুর হাট

মোঃ ওমর ফারুক, শরীয়তপুর জেলা প্রতিনিধি: শরীয়তপুরে কুরবানির পশুর হাটবাজার জমে ওঠতে শুরু করেছে। বিভিন্ন এলাকা থেকে বিক্রেতারা হাটে গরু-ছাগল আনতে শুরু করেছেন। এখনো ভারতীয় গরুর বহর বাজারে ঢুকতে না পারায় দেশি গরুর খামারিরা বেশ খুশি। তবে বাজারে দাম কম থাকায় হতাশ হয়ে পড়েছেন তারা। বিক্রেতারা বলছেন, বর্তমান যে বাজার মূল্য তাতে গরু বিক্রি করলে তাদের অনেক লোকসান গুণতে হবে।

সরকারি পশু চিকিৎকদের সহযোগিতায় এ বছর জেলার ৬ উপজেলার ১৮টি নির্ধরিত পশুর হাট ছারাও ৩১টি অস্থায়ী হাটসহ মোট ৪৯টি কুরবানীর পশুর হাট বসেছে। কুরবানি যোগ্য ১ লাখ ৫৬ হাজারের বেশী গবাদি প্রাণি প্রস্তত করা হয়েছে। এর মধ্যে ছাগল ও ভেড়া প্রায় ১ লাখ গরু, বলদ, ষাঁড় ও গাভি প্রায় ৫৬ হাজারটি। শরীয়তপুর জেলা প্রাণি সম্পদ দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, জেলার সদর,নড়িয়া,জাজিরা, ভেদরগঞ্জ, ডামুড্যা ও গোসাইরহাট উপজেলায় ১লাখ ৫৬ হাজার গবাদি প্রাণী বিক্রির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। জেলা চাহিদা মিটিয়ে অতিরিক্ত প্রাণী গুলো দেশের বিভিন্ন জেলায় বিশেষ করে ঢাকা, চট্রগ্রাম ও চাঁদপুরে পাঠানো হবে।
ব্যবসায়ী ও বেপারীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে পশু অনুযায়ী দরদাম করছেন।

শরীয়তপুর জেলা প্রাণিস¤পদ অফিসের তথ্য মতে, কুরবানির পশু বিক্রির উদ্দেশ্যে জেলার ৬ উপজেলায় বাণিজ্যিকভাবে ৬১টি গরু মোটাতাজাকরণ খামার গড়ে উঠেছে। এর মধ্যে সদরে ১৪টি, জাজিরায় ১৭ টি, নড়িয়ায় ১১টি, ভেদরগঞ্জে ১০টি, ডামুড্যায় ৪টি ও গোসাইরহাটে ৬টি।

জেলার সর্ববৃহৎ পশুর হাট জাজিরার কাজীর হাট, লাউখোলা হাট ও জাজিরা হাট, নড়িয়া উপজেলার ভোজেস্ব ও ঘড়িসার, সদর উপজেলার মনোহর গো হাট, শৌলপাড়া গরু হাট ও চন্দ্রপুর গোহাট, ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর গোহাট, উত্তর তারাবুনিয়া আব্বাস আলী স্কুল গোহাট, গোসাইরহাটের পট্টি গোহাট ঘুরে ও ইজারাদারদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিরাপত্তার জন্য স্থানীয় থানা পুলিশের সহযোগিতা ছাড়াও নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী নিয়োগ করেছে। ক্রেতা-বিক্রেতাদের থাকা ও খাওয়ার সুবন্ধুবস্ত রেখেছে তারা।

তারাবুনিয়া আব্বাস আলী গোহাট এর ইজারাদারের পক্ষে নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত আক্তার হোসেন বলেন, এখানে সখিপুর থানা পুলিশ নিয়মিত অবস্থান করছে। সেই সাথে সখিপুর থানার ন্যাশনাল ব্যাংক শাখার সহযোগিতায় জাল টাকা চিহিৃত করণ যন্ত্র বসানো হয়েছে। একই থানার সখিপুর গোহাট এর মালিক হাজী মোয়াজ্জেম হোসেন সরদার জানান, ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিরাপত্তায় তারা সিসি ক্যামেরা স্থাপন করেছে। সেই প্রয়োজনীয় আলোর জন্য বৈদ্যতিক লাইটের পাশাপাশি নিজস্ব জেনারেটর এর ব্যবস্থা রেখেছে।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার মোঃ ফারুক হোসেন বলেন, নিরাপদ প্রাণী চিহিৃত করণে তাদের তিনটি টিম গঠন করা হয়েছে। এ টিমের সদস্যরা প্রতিটি হাটে সার্বক্ষনিক অবস্থান করে গরু, মহিষ ও ছাগল এর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করবে। কোন প্রকার রোগা বা দোষী প্রাণী আমরা হাটে উঠতে দিবনা।

জেলা পুলিশ সুপার আবদুল মোমেন পিপিএম বলেন,আমাদের জেলা ১৮টি স্থায়ী হাটের পাশাপাশি আরো প্রায় ৩০টি অস্থায়ী হাট বসবে। বড় বড় হাট গুলোতে সিসি ক্যামেরা , জাল টাকা সনাক্ত করণযন্ত্র, মেটাল ডিটেক্টর থাকবে। সেই সাথে অজ্ঞানপার্টি ও মলম পার্টির তৎপরতা বন্ধ করতে সাদা পোষাকে প্রতিটি হাটে পুলিশ থাকবে। সড়কের পাশের হাটের কারনে যাতে মানুষের চলাচল ব্যহত না হয় তার জন্য ট্রাফিক পুলিশ কাজ করবে।

জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের বলেন আমাদের কুরবানীয পশু হাটের নিরাপত্তায় সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহন করেছি। জেলা পুলিশের পাশাপাশি জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের সদস্যরা তাদের উপর ন্যাস্ত সকল দায়ীত্ব পালন করবে। জেলা বিভিন্ন ব্যাংক সমুহকে তাদের জাল টাকা সনাক্ত করণ যন্ত্র কুরবাণী হাটে দেয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছি। হাটের ইজারাদার ও মালিকদের সাথে বসে তাদের নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী রাখতে বলেছি।

Comments

comments