দুপুর ১২:৫১ রবিবার ১৭ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

সুন্দরগঞ্জে পানি সহিষ্ণু ধানের ভাসমান বীজতলা

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুলাই ২৬, ২০১৯ , ১২:৩৫ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : কৃষি
পোস্টটি শেয়ার করুন

এম এ মাসুদ, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে পানি সহিষ্ণু ব্রি- ৫১ প্রজাতের ধানের ভাসমান বীজতলায় আশাব্যঞ্জক রূপ ধারণ করেছে।

জানা যায়, চলমান বন্যায় উপজেলার নিম্নাঞ্চলের বীজতলায় ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। এসব বীজতলায় ধানের চারা বিনষ্ট হওয়ায় উপজেলা কৃষি বিভাগের উদ্যোগে ভাসমান বীজতলায় চারা জন্মানোর জন্য কৃষকদেরকে উদ্বুদ্ধকরণ করতে বন্যা সহিষ্ণু প্রজাতের ব্রি- ৫১ ধানের বীজ প্রদান করে তা সঠিক পরিচর্যা ও পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। এমন একটি বীজতলায় উপস্থিত হয়ে সংশ্লিষ্ট কৃষক রাজু মিয়াকে পরামর্শ দেন উপজেলার উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা- আব্দুর রাজ্জাক, এসএম সরওয়ার হোসেন ও মোশাররফ হোসেন।

এ ব্যাপারে উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তাগণ জানান, ব্রি- ৫১ প্রজাতের ধানের চারা রোপনের পর প্রায় পক্ষকাল (১৪ দিন) পর্যন্ত পানি নিচে নিমজ্জিত থাকলেও আশানুরূপ ফলনে কোন সমস্যা হয় না। ব্রি- ৫১ প্রজাতের ধান বন্যা সহিষ্ণু হিসেবে বন্যা কবলিত এলাকা সমুহে কৃষকদেরকে উদ্বুদ্ধকরণসহ সঠিক পরামর্শ ও পরিচর্যার ক্ষেত্রে উপজেলা কৃষি বিভাগ বদ্ধপরিকর। রামজীবন ইউনিয়নের রামজীবন ব্লকে দায়িত্বরত উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা- আব্দুর রাজ্জাক জানান, তার ব্লকের কৃষক রাজু মিয়াকে ৫ কেজি ধানবীজ প্রদান করা হয়। যা সুন্দরগঞ্জ- গাইবান্ধা আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে ডোমেরহাট সংলগ্ন জলাশয়ে ভাসমান বীজতলায় বর্তমানে চারাগুলো সুন্দর ও দৃশ্যমান। এধানের চারা রোপণের ১শ’ ২৫ থেকে ১শ’ ৩০ দিনের মধ্যে ধান কর্তন করা যায়। উৎপাদনের ক্ষেত্রে আশানুরূপ ফলন সম্ভব। হেক্টর প্রতি প্রায় ৬ মেট্টিক টন ধান উৎপাদন সম্ভব। এ ধানের চালের ভাত সু-স্বাদু ও মজাদার। এ ধান শুধুমাত্র খরিপ-২ বা আমণ মৌসূমের জন্য চাষোপযোগী।

এব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা- কৃষিবিদ সৈয়দ রেজা-ই- মাহমুদ জানান, এবারে উপজেলা কৃষি বিভাগের উদ্যোগে বন্যা কবলিত কৃষকদেরকে বন্যা সহিষ্ণু ধান (ব্রি- ৫১) চাষে উদ্বুদ্ধকরণের জন্য ৩২টি ভাসমান বীজতলা স্থাপন করা হয়েছে। এসব বীজতলায় ইতোমধ্যে জন্মানো চারাগুলো রোপণযোগ্য হয়েছে। বীজতলায় এ ধানের চারার বয়সকাল ২৫ থেকে ৩০ দিন। প্রতিটি ভাসমান বীজতলায় ৫ কেজি করে ধানবীজ বপণ করা হয়েছে। প্রতি ৫ কেজি করে ধানের চারায় ৫০ শতক থেকে ৫৫ শতক জমিতে রোপণ করা সম্ভব। ব্রি- ৫১ প্রজাতের ধান বন্যা সহিষ্ণু হওয়ায় নিম্নাঞ্চল, বন্যাঞ্চল বা জলাবদ্ধ জমিতে চাষে কোন সমস্যা নেই।

Comments

comments