বিকাল ৪:৫৪ শনিবার ১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

স্বল্পমূল্যে টিকিট বিক্রি নিশ্চিত করতে হাইকমিশনারের আহ্বান

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুলাই ২৫, ২০১৯ , ১২:৩৯ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : প্রবাস
পোস্টটি শেয়ার করুন

স্বল্পমূল্যে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে কোনরূপ হয়রানি ছাড়া ফ্লাইট টিকিট দিয়ে সহযোগিতা করার জন্য ফ্লাইট পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে আহ্বান জানিয়েছেন মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মহ.শহীদুল ইসলাম।

কুয়ালালামপুর – ঢাকা ফ্লাইট পরিচালনাকারী এয়ারলাইন্সের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বাংলাদেশ হাইকমিশনে এ সম্পর্কিত একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অবৈধ অভিবাসী যারা দেশে যেতে ইচ্ছুক তাদের জন্য মালয়েশিয়া সরকার বিফোরজি কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। এ কর্মসূচির নিয়মানুযায়ী ইচ্ছুকদের আগেই ফ্লাইট টিকিট ক্রয় করতে হবে এবং পরে ইমিগ্রেশনে আবেদন করতে হবে।
তাই ফ্লাইট টিকিট যেন সহজে স্বল্পমূল্যে ক্রয় করতে পারে তা নিশ্চিত করতে হবে। এ কর্মসূচি সফল করতে এয়ারলাইনসগুলো সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়েছে। উল্লেখ্য, শুধু সরাসরি ফ্লাইট যেমন কুয়ালালামপুর – ঢাকা বা জহুরবারু – কুয়ালালামপুর – ঢাকা বা পেনাং – কুয়ালালামপুর – ঢাকা ফ্লাইট টিকিট ইমিগ্রেশন গ্রহণ করবে।

সভায় সংশ্লিষ্ট সবার উদ্দেশ্যে হাইকমিশনার বলেন, এ প্রোগ্রামের আওতায় কালোবাজারিদের দ্বারা যাতে সাধারণ কোনো কর্মী ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেদিকে সবার দৃষ্টি রাখতে হবে।

সভায় অন্যদের মধ্যে হাইকমিশনের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা এয়ার কমডোর মো. হুমায়ূন কবির, শ্রম কাউন্সিলর মো. জহিরুল ইসলাম, প্রথম সচিব কনস্যুলার মো. মাসুদ হোসেইন, দ্বিতীয় সচিব শ্রম ফরিদ আহমদ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া বিমান বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার ইমরুল কায়েছ, ইউএস বাংলার অপারেশন ম্যানেজার মো. শহিদুল ইসলাম, রিজেন্ট এয়ারওয়েজের ইনচার্জ (জিএসএ) মো. হৃদয় সভায় উপস্থিত ছিলেন।

মালয়েশিয়া সরকারের বিফোরজি প্রোগ্রাম ১ আগস্ট থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত চালু থাকবে। এ সময়ের মধ্যে মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশনে পাসপোর্ট বা ট্রাভেল ডকুমেন্ট এবং নিশ্চিত (কনফার্মড) বিমান টিকিটসহ আবেদন করতে হবে। একইসঙ্গে জরিমানা ও স্পেশাল পাস বাবদ ৭শ’ রিঙ্গিত জমা দিতে হবে। ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ আবেদনের এক কার্যদিবসের মধ্যেই স্পেশাল পাস বা বহির্গমনের অনুমতি প্রদান করবে। অনুমতি প্রাপ্তির ৭ দিনের মধ্যেই মালয়েশিয়া ত্যাগ করতে হবে। এ কর্মসূচির কাজ প্রক্রিয়াকরণের কোনো তৃতীয় পক্ষ বা এজেন্ট নিযুক্ত করা হয়নি বলে জানিয়েছেন হাইকমিশনার মহ. শহীদুল ইসলাম। তিনি জানান, কোনো মাধ্যম ছাড়াই আবেদনকারীকে সরাসরি নিকটস্থ ইমিগ্রেশন অফিসে হাজির হয়ে আবেদন করতে হবে। যদি কেউ তৃতীয় পক্ষ বা মধ্যস্থতাকারীর মাধ্যমে ভুয়া তথ্য প্রদান করে তাহলে জেল-জরিমানা হতে পারে।

Comments

comments