বিকাল ৫:০৭ বৃহস্পতিবার ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

চীনা প্রকল্পগুলোর তহবিল ছাড় দ্রুততর করতে বাংলাদেশ ও চীনের প্যানেল গঠন

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুলাই ২০, ২০১৯ , ১১:৪০ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশে চীনের প্রকল্পগুলোর জন্য তহবিল স্থানান্তর সহজতর করা ও পর্যালোচনার জন্য ঢাকা ও বেইজিং একটি যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ (জেডব্লিউজি) গঠন করেছে। তহবিল ছাড়ে বিলম্বের জন্য আমলাতান্ত্রিক লাল ফিতা, পদ্ধতিগত জটিলতা ও ঠিকাদারী লাভের জন্য চীনা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতাকে বড় ধরনের বাধা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।২০১৬ সালে ঢাকা সফরকালে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ২৭টি প্রকল্পের জন্য ২০ বিলিয়ন ডলার ঋণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এর মধ্যে এ পর্যন্ত তার মাত্র পাঁচ শতাংশ (৯৮১.৩৬ মিলিয়ন ডলার) ছাড় করা হয়েছে। ঢাকা ও বেইজিং উভয়েই প্রতিশ্রুত ২০ বিলিয়ন ডলারের পুরোটাই কাজে লাগাতে আগ্রহী।

সময়মতো তহবিল ছাড়করণের ক্ষেত্রে আমলাতান্ত্রিক লাল ফিতা, পদ্ধতিগত জটিলতা ও ঠিকাদারী লাভের জন্য চীনা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতাকে বড় বাধা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।বাংলাদেশ বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ ও তার চীনা প্রতিপক্ষের কর্মকর্তাদের নিয়ে জেডব্লিউজি গঠন করা হচ্ছে বলে অল ইন্ডিয়া রেডিওর এক খবরে উল্লেখ করা হয়েছে।চীনের অর্থায়নে বড় আকারের ২৭টি অনুমোদনকৃত প্রকল্পের মধ্যে মাত্র ৫টি বাস্তবায়নের কাজ চলছে। এর মধ্যে রয়েছে পদ্মা সেতু রেল লিংক, কর্ণফুলী রিভার টানেল, ইনফো-সরকার প্রকল্পের তৃতীয় পর্যায়, ডিজিটাল কানেকটিভিটি উন্নত করতে বাংলাদেশের টেলিযোগাযোগ নেটাওয়ার্ক আধুনিকায়ন ও মহেশখালীতে ডাবল পাইপলাইনযুক্ত সিঙ্গেলপয়েন্ট মুরিং।

এই পাঁচ প্রকল্পের জন্য দুই দেশ ২০১৮ সালের অক্টোবর থেকে ২০১৮ সালের এপ্রিল পর্যন্ত ৩.৯ বিলিয়ন ডলারের চুক্তি করেছে।চলতি মাসের গোড়ার দিকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেইজিং সফর করেন। এসময় প্রকল্প বাস্তবায়নে বিলম্বের কারণগুলো খুজে বের করে সেগুলো দূর করতে একটি যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনের ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক চুক্তি করেন।এসব প্রকল্পের যথার্থতা নিরূপনের জন্য বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে বিভিন্ন পর্যায়ে বেশ কিছু কমিটি রয়েছে।

Comments

comments