দেশজুড়ে

রাজারহাটে মাত্র ৫০টাকা কম দেয়ার জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় ১জনের মৃত্যু,৩জন গ্রেফতার

  • 147
    Shares

সরকার অরুণ যদু,রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: রাজারহাটে তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে প্রতিপক্ষের পরিকল্পিত হামলা ও ধারালো অস্ত্রাঘাতে এক যুবকের মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত ৩জন আসামীকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করেছে।

সরেজমিনে প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে,উপজেলার উমর মজিদ ইউনিয়নের উমর মজিদ গ্রামের মসজিদে গত বছর রমজান মাসে তারাবি নামাজের ইমাম-মোয়াজ্জিনের বেতন দেয়ার জন্য মসজিদ কমিটি প্রত্যেকের ৩৫০টাকা হারে চাঁদা নির্ধারন করেন। এসময় ওই গ্রামের হতদরিদ্র আতিকুর রহমান (২৫) তারাবির চাঁদা ৩৫০টাকার স্থলে ৩০০টাকা প্রদান করলে মসজিদ কমিটির সভাপতি ছাইফুল হাজী টাকা কম নিতে অস্বীকৃতি জানায়। এনিয়ে একপর্যায়ে দুই পক্ষে সংঘর্ষ বাঁধে।পরে বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়রা আপোস মিমাংসার চেষ্টা করলেও প্রভাবশালী ছাইফুল হাজী গং বিষয়টি আপোস করতে অস্বীকৃতি জানায়। এঘটনার পর থেকে এক বছর তিন মাস ধরে আতিকুরের ভাতিজা ঢাকায় কর্মরত রওশন আলি (২৮) ছাইফুল হাজী গং এর ভয়ে পালিয়ে ছিলো। এবারে ঈদুল আযহার পূর্বে সে বাড়িতে আসে।

শনিবার ঈদের দিন রওশন তার চাচা আক্কাছ আলী (৩০) ও ফুফাতো ভাই সুমন (১৮) সহ পাশর্^বর্তী নাজিমখাঁন ইউনিয়নের রতিরাম পাঠানপাড়া গ্রামে তার বোনের বাড়িতে দাওয়াত খেতে যায়। সেখানে ওই দিন সন্ধ্যায় ছাইফুল হাজীর ৪পুত্র মিল্টন,মোস্তাক,তারা মিয়া ও চাঁদ মিয়া সহ তার লোকজন পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী রওশনের উপর হামলা করে। রওশনকে রক্ষা করতে আক্কাছ আলীর (৩০) ও সুমন (১৮) এগিয়ে আসলে আসামীরা ধারালো রাম দা দিয়ে আক্কাছের মাথায় কুপিয়ে এবং সুমনের শরীরের বিভিন্ন অংশ রক্তাক্ত জখম ও গুরুতর আহত করে। পরে তাদের দুজনকে রংপুর সরকারী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রাতে কর্তব্যরত চিকিৎসকগণ আক্কাছ আলীকে মৃত ঘোষনা করেন। সুমন বর্তমানে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।

এদিকে ঘটনার রাতেই পুলিশ রুস্তম আলী (৫৫) জুয়েল (৩০) ও সাজিনা আক্তা সিমা (৪০) নামের তিন আসামীকে গ্রেফতার করে রবিবার সকালে তাদেরকে কুড়িগ্রাম জেল হাজতে প্রেরন করেছে।
অপরদিকে এঘটনার পর থেকে আসামীরা পলাতক থাকার সুবাদে ওই গ্রামের কিছু অসাধু লোকজন প্রকাশ্যে আসামীদের বাড়িতে ব্যাপক লুটপাট চালানোর অভিযোগ উঠেছে।

রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ রাজু সরকার জানান,অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশি প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। কিছু অসাধু লোকজন আসামীদের বাড়ি লুটপাটের সত্যতা তিনি স্বীকার করেন।#


  • 147
    Shares

Related Articles