দেশজুড়ে

খুলনায় যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাব – গাম্ভীর্যের সাথে ঈদুল আযহা পালিত

  • 3
    Shares

আহছানুল আমীন জর্জ, খুলনা : ১ আগস্ট শনিবার খুলনায় যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাব  গাম্ভীর্যের সাথে ঈদুল আযহা পালিত হয়।

খুলনায় ঈদ-উল-আজহার প্রধান ও প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয় শনিবার সকাল আটটায় টাউন জামে মসজিদে।
এবছর করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে উন্মুক্ত স্থানে বা মাঠে কোনো ঈদের জামাত হয়নি। জামাতে ইমামতি করেন টাউন জামে মসজিদের খতিব মওলানা মোহম্মদ সালেহ। একইস্থানে দ্বিতীয় ও শেষ জামাত সকাল নয়টায় অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া কোর্ট জামে মসজিদে সকাল সাড়ে আটটায় একটি ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

বায়তুন নূর জামে মসজিদ কমপ্লেক্সে পবিত্র ঈদের দু’টি জামাত হয়। সকাল ৮টায় ১ম জামাতে ইমামতি করেন মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা ইমরান উল্লাহ এবং সকাল ৯ টায় ২য় জামাতে ইমামতি করেন মসজিদের পেশ ইমাম মওলানা আব্দুল গফুর।

খুলনা বিশ্বদ্যিালয়ে ঈদুল আজহার নামাজের জামাত সকাল ৭টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্মাণাধীন নতুন কেন্দ্রীয় মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় জামে মসজিদে সকাল আটটায়, সরকারি বিএল কলেজ জামে মসজিদে সকাল আটটায়,আল-হেরা জামে মসজিদে প্রথম জামাত সকাল সাতটায় দ্বিতীয় জামাত সকাল আটটায়, ইসলামপুর জামে মসজিদে সকাল আটটায়, রায়পাড়া জামে মসজিদে সকাল আটটায়,মজিদিয়া খানজাহান নগর জামে মসজিদে সকাল সাড়ে সাতটায়,গিলাতলা গাজীপাড়া বায়তুন নাজাত জামে মসজিদে সকাল ৮টায়, গিলাতলা বায়তুল হামদ্ জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায়, মোল্লাপাড়া জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায়, শেখপাড়া বায়তুল আমান জামে মসজিদে সাড়ে ৭টায়, গিলাতলা বাজার (ফাঁড়ি) মসজিদে সকাল ৭টায়, শিরোমণি পূর্বপাড়া বায়তুল আকসা জামে মসজিদে সকাল ৮টায়, শিরোমনি বায়তুল মা’মুর (বাজার) জামে মসজিদে সকাল ৭টায়, ৮টায় ও ৯টায়, ফুলবাড়ীগেট বাজার জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায়, ফুলবাড়ীগেট বায়তুল আমান জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

খুলনা আলিয়া কামিল মাদ্রাসা জামে মসজিদ, রূপসা বায়তুশ শরফ জামে মসজিদ, সোনাডাঙ্গা আবাসিক এলাকা (২য় ফেজ) বায়তুল্লাহ জামে মসজিদসহ খুলনা সিটি কর্পোরেশনের ৩১টি ওয়ার্ডের মসজিদসমূহে সকাল সাড়ে সাতটা থেকে সাড়ে আটটা মধ্যে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া জেলার নয় উপজেলার মসজিদসমূহে ঈদ-উল-আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হয় শান্তিপূর্ণভাবে।

জামাত শেষে খুতবা পেশ করা হয়। এরপর অনুষ্ঠিত হয় মোনাজাত। মোনাজাতে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা করা হয় । এ সময় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতদের জন্য দোয়া করা হয়। একইসঙ্গে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতির জন্য মহান আল্লাহর কাছে সাহায্য কামনা করা হয়।


  • 3
    Shares

Related Articles