দেশজুড়ে

পুলিশের অপারগতায় আসামী ধরে দিলো এলাকাবাসী


কামরুল হাসান, রাজশাহী প্রতিনিধি: প্রকাশ্যেই ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন রাজশাহীর নারী নির্যাতন ও হত্যা চেষ্টা মামলার প্রধান আসামী। তাকে গ্রেফতার করছিলোনা নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানা পুলিশ। পুলিশের দাবি, আসামী নিরুদ্দেশ।

শেষে গত ১১ মে আসামীকে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন এলাকার লোকজন। পরদিন পুলিশ ওই আসামীকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠায়।

গ্রেফতার ওই আসামী হলেন-নগরীর কাদিরগঞ্জ দড়িখরবোনা এলাকার বাসিন্দা অলিউল হোসেন বিপ্লব (৪৬)। নগরীর সাহেববাজার এলাকার হিরা জুয়েলার্স নামের তার একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

নির্যাতনের শিকার মায়া বেগম (৪৫) নগরীর শিরোইল শান্তিবাগ এলাকার বাসিন্দা। গত ১২ এপ্রিল নগরীর সাধুরমোড় এলাকার নিজস্ব ছাত্রাবাসে তার উপর দফায় দফায় নির্যাতন চালান বিপ্লব ও তার সঙ্গিরা। ৯দিন ঘুরে ২০ এপ্রিল মামলা নেয় বোয়ালিয়া মডেল থানা পুলিশ।

মামলায় বিপ্লককে এজাহারনামীয় একমাত্র আসামী করা হয়। অজ্ঞাত আসামী করা হয় আরো ৫-৬ জনকে।

ওই নারীর অভিযোগ, মামলা নিলেও অদৃশ্য কারণে আসামী গ্রেফতার করছিলোনা পুলিশ। আর এই সুযোগে আসামী মামলা তুলে নেয়ার চাপ দিচ্ছিলেন। মিথ্যা মামলায় নির্যাতিতা ও তার পরিবারের সদস্যদের ফাঁসানোর হুমকিও দিচ্ছিলেন সন্ত্রাসীরা।

ওই নারীর ভাষ্য, তিনি বিপ্লবের দোকানে দীর্ঘদিন ধরে ক্রেতা ছিলেন। এই সুবাদে ব্যাংক চেক জমা রেখে ব্যবসার জন্য বিপ্লব তার কাছ থেকে ৮ লাখ টাকা ধার নেন। চুক্তি ছিলো দুই মাসের মধ্যেই টাকা পরিশোধ করবেন বিপ্লব। কিন্তু তিনি কথা রাখেননি। বার বার ধর্ণা দিয়েও টাকা আদায় করতে পারছিলেননা মায়া।

গত ১২ এপ্রিল ২ লাখ টাকা দেয়ার নাম করে তাকে সাধুরমোড় এলাকার নিজস্ব ছাত্রাবাসে ডেকে নেন বিপ্লব। ওই সময় সেখানে আগে থেকেই অবস্থান করছিলেন তার ভাড়াটে গুন্ডাবাহিনী। সেখানে চেক ফিরিয়ে দেয়ার জন্য চাপ দেন বিপ্লব।

রাজি না হওয়ায় শুরু করেন এলোপাথাড়ি মারধর শুরু করেন। হত্যার উদ্দেশ্যে দফায় দফায় চলে নির্যাতন। সন্ত্রাসীরা ওই নারীর শ্লীলতাহানির চেষ্টাও চালায়। ছিনিয়ে নেয় গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন। মুখ না খোলার শর্তে শেষে ওই নারীকে ছেড়ে দেন সন্ত্রাসীরা।

ভুক্তভোগী মায় বেগম জানান, আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালোও ধরছিলোনা পুলিশ। গত ১১ মে শিরোইল শান্তিবাগ এলাকার একটি বাড়িতে তাকে দেখতে পান তিনি। এসময় এলাকাবাসীর সহায়তায় আসামীকে আটকান। থানায় খবর দেয়া হলে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসে তাকে হেফাজতে নেন।

আসামী গ্রেফতারের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা ও বোয়ালিয়া মডেল থানার উপপরিদর্শক মতিন আহম্মেদ। তিনি বলেন, এলাকাবাসীর সহায়তায় আসামী অলিউল হোসেন বিপ্লবকে আটকে রেখেছিলেন বাদি। পুলিশের ভ্রাম্যমান দল গিয়ে তাকে হেফাজতে নেয়। আইনী প্রক্রিয়া শেষে পরে আদালতের মাধ্যমে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, মামলা তদন্তাধীন। তাছাড়া অভিযোগের সত্যতা যাচাই করা হচ্ছে। তাছাড়া লকডাউনের কারণে আসামীকে রিমাণ্ডে নেয়ার আবেদন করা যায়নি। মামলার অন্য আসামীদের সনাক্তে তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তা নেয়া হচ্ছে। অচিরেই তাদেরও পাকড়াও করা হবে।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button