জাতীয়

যাত্রার আগে জীবাণুমুক্ত করতে হবে উড়োজাহাজ

  • 7
    Shares

চলমান করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। তবে প্রতি ফ্লাইটের আগে পুরো উড়োজাহাজ জীবাণুমুক্ত করতে হবে। এছাড়া যাত্রীর শরীরের তাপমাত্রা ৯৯ ডিগ্রি ফারেনহাইট হলে বোর্ডিং পাস দেয়া হবে না। বর্তমান প্রেক্ষাপট বিবেচনা করে ফ্লাইট পরিচালনার ক্ষেত্রে এয়ারলাইনসগুলোকে এসব নির্দেশনা দিয়েছে বেবিচক।

বেবিচক সূত্রে জানা গেছে, করোনার কারণে উড়োজাহাজের ফ্লাইট চলাচল অনেক দিন ধরে বন্ধ থাকলেও এ ভাইরাসকে প্রতিরোধ করে ফ্লাইট চালুর প্রস্তুতিও নিয়ে রেখেছে বিভিন্ন দেশ। বাংলাদেশও এর বাইরে নয়। তাই নিরাপদে ফ্লাইট চলাচল নিশ্চিত করতে দেশের সব এয়ারলাইনস, বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ ও এভিয়েশন খাতের সঙ্গে জড়িত সবার উদ্দেশ্যে গত ১০ মে ৩৫টি নির্দেশনা দিয়ে একটি সার্কুলার জারি করেছে বেবিচক।

নির্দেশনায় চেক-ইন, ইন-ফ্লাইট সার্ভিস, ক্রুদের নিরাপত্তা, সার্বিক দিকনির্দেশনা, এয়ারলাইনস প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশনা, ক্রুদের কোয়ারেন্টিন ম্যানেজমেন্ট, এয়ারক্রাফট মেইনটেন্যান্স, কেবিন এয়ার ফিল্টারেশন, অক্সিজেন মাস্কসংক্রান্ত নির্দেশনা, ফ্লাইটে সন্দেহজনক রোগী পেলে করণীয় সম্পর্কে অবহিত করার বিষয়ে এয়ারলাইনসগুলোকে কী কী করতে হবে সেসব বিস্তারিত উল্লেখ করা হয়েছে।

বেবিচকের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, প্রতিবার যাত্রার আগেই প্রত্যেক যাত্রীকেই একটি ফরম পূরণ করতে হবে। সেখানে যাত্রীর নাম, বয়স, লিঙ্গ, জন্মতারিখ, বর্তমান ঠিকানা, এয়ারলাইনসে নাম, ফ্লাইট নম্বর, জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর, শরীরের তাপমাত্রা, মোবাইল ও ই-মেইল নম্বর নেয়া হবে। পরবর্তী সময়ে দায়িত্বরত এয়ারলাইনসের কর্মকর্তা যাত্রীর শরীরের তাপমাত্রা, কফ বা শ্বাসকষ্ট আছে কিনা এমন তথ্য নেবেন। যাত্রার আগের ১৪ দিনের মধ্যে যাত্রীর শরীরে কখনো করোনার উপসর্গ দেখা গিয়েছিল কিনা সেটাও জানতে চাইবেন ওই কর্মকর্তা। আর এসবের কোনো একটি পাওয়া গেলেই বাতিল হবে ওই যাত্রীর ভ্রমণ।

বেবিচক চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান এ প্রসঙ্গে বণিক বার্তাকে বলেন, যাত্রী, ক্রুসহ বিমানবন্দরসংশ্লিষ্ট সবার নিরাপত্তার জন্যই নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। যখন ফ্লাইট পরিচালনা শুরু হবে, তখন এসব নির্দেশনা মেনে চলতে হবে।

বেবিচকে নির্দেশনায় বলা হয়েছে, যাত্রীদের চেক-ইনের সময় কাউন্টার ও আশপাশের সহযোগীদের সার্বক্ষণিক মাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস, ডিসপোজেবল ক্যাপ পরতে হবে। এছাড়া কাউন্টারের পাশে হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে। সামাজিক দূরত্ব মেনে যাত্রীকে চেক-ইনের লাইনে দাঁড়াতে হবে। চেক-ইনের আগে যাত্রীর শরীরের তাপমাত্রা মাপা হবে। তাপমাত্রা ৯৯ ডিগ্রি ফারেনহাইট হলে তাকে বোর্ডিং পাস বা বিমানে ওঠার অনুমতি দেয়া যাবে না। চেক-ইনের সময় যাত্রীকে নিরাপত্তা ব্রিফ দিতে হবে, সঙ্গে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিতে হবে। দেড় ঘণ্টার নিচে কোনো ফ্লাইটে খাবার পরিবেশন করা যাবে না। তবে ডায়াবেটিসের রোগীদের জন্য সীমিত আকারে পানি ও জুস থাকবে, যা আগে থেকেই ইনটেক রাখতে হবে। দেড় ঘণ্টা থেকে ৩ ঘণ্টার ফ্লাইটের যাত্রীদের শুকনা খাবার দিতে হবে, যা প্লেনে ওঠার আগেই দিতে হবে।

নির্দেশনায় আরো বলা হয়েছে, ফ্লাইটের সময় যদি ৪ ঘণ্টার বেশি হয়, তবে ফ্লাইটের মধ্যে তাপমাত্রা মাপার যন্ত্র রাখতে হবে। প্রতি ২-৩ ঘণ্টা পরপর যাত্রীদের দেহের তাপমাত্রা মাপতে হবে। কারো তাপমাত্রা যদি ৯৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি ফারেনহাইট বা তার বেশি হয়, তবে ক্রুরা আগে থেকেই ডেসটিনেশন এয়ারপোর্টকে জানাবে যাতে প্লেন অবতরণ করার সঙ্গে সঙ্গে তারা ব্যবস্থা নিতে পারে। এছাড়া ফ্লাইটের ক্রুদের সার্জিক্যাল মাস্ক অথবা মানসম্মত মাস্ক, ক্যাপ পরতে হবে। কেবিন ক্রুদের এন-৯৫ মাস্ক, চশমা, রাবারের হ্যান্ড গ্লাভস ও ফেসিয়াল মাস্ক পরতে হবে। হ্যান্ড গ্লাভস ও মাস্ক প্রতি ৪ ঘণ্টায় পরিবর্তন করতে হবে। ক্রুদের ককপিটে প্রবেশ যত সম্ভব কমাতে হবে, ইন্টারকমে যোগাযোগ বাড়াতে হবে। ফ্লাইটে কেবিন ক্রু দুজন থাকলে উভয়েই একসঙ্গে খাবার সার্ভ করতে পারবেন না। কেবিন ক্রুরা যাত্রা বিরতিতে কোনো হোটেলে অবস্থান করলে সেখানকার রুমেই খাবার খেতে হবে। প্রয়োজনে হোটেলের ভেতরের রেস্টুরেন্টে খাবার খেতে পারবেন। কোনো মতেই হোটেলের বাইরে যেতে পারবেন না। যদি কোনো ক্রুর কভিড-১৯-এর লক্ষণ বা উপসর্গ থাকে, তাহলে তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া এবং তার সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে। তাদের প্রাতিষ্ঠানিক বা হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠাতে হবে। ফ্লাইটে যাত্রীর আসন বিন্যাস করতে হবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে। উড়োজাহাজের শেষের দুই সারি খালি রাখতে হবে। ফ্লাইটে যদি কোনো করোনা আক্রান্ত সন্দেহে রোগী পাওয়া যায়, তাহলে একজন কেবিন ক্রু তাকে নিরাপত্তা নিশ্চিত করে ফ্লাইটের ওই সিটগুলোতে নিয়ে বসাবেন।

প্রসঙ্গত, ১৬ মে পর্যন্ত আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ রুটের ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বেবিচক। তবে এ সিদ্ধান্ত শুধু শিডিউল প্যাসেঞ্জার ফ্লাইট চলাচলের ক্ষেত্রে। বিশেষ অনুমতি সাপেক্ষে চার্টার্ড ফ্লাইট এর আওতামুক্ত থাকবে। কার্গো, ত্রাণ-সাহায্য, এয়ার অ্যাম্বুলেন্স, জরুরি অবতরণ ও স্পেশাল ফ্লাইট পরিচালনার কার্যক্রম চালু থাকবে।

বেবিচক সূত্রে জানা গেছে, এ নিষেধাজ্ঞা আগের মতো বাহরাইন, ভুটান, হংকং, ভারত, কুয়েত, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, ওমান, কাতার, সৌদি আরব, শ্রীলংকা, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, তুরস্ক, ইউএই ও ইউকের (মোট ১৬টি দেশ) সঙ্গে বিদ্যমান ফ্লাইট চলাচল রুটের ক্ষেত্রে কার্যকর।


  • 7
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button