সকাল ১০:৫৮ বুধবার ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ঢাকা ক্রমেই বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ছে: রওশন এরশাদ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৭ , ১১:৩৯ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

সংসদ অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে বিরোধী দলের নেতা রওশন এরশাদ বলেন, রাজধানী ঢাকা ক্রমেই বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ছে। প্রতিদিনই ঢাকায় মানুষের চাপ বাড়ছে। যানজটে শত শত ঘণ্টা নষ্ট হচ্ছে। ফ্লাইওভার করা হলেও যানজট কমেনি। ঢাকার আশেপাশের নদীগুলো সচল করতে পারলে যানজট কিছুটা কমবে। তিনি বলেন, ঢাকাকে তিলোত্তমা শহর হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। কিন্তু আমরা সেভাবে গড়ে তুলতে পারিনি। আগে ঢাকায় প্রথমে আবাসিক এলাকা ছিল ধানমণ্ডি। তারপর গড়ে উঠলো গুলশান, বনানী ও বারিধারা। এখন আর এসব এলাকাকে আবাসিক হিসেবে চিহ্নিত করা যাচ্ছে না। সব জায়গায় কলকারকানা গড়ে উঠেছে।

তিনি বলেন, ঢাকাকে বাসযোগ্য করে গতে তুলতে হলে এখনই ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রতিনিয়ত এ শহরে আমরা নি:শ্বাসের সঙ্গে বিষ গ্রহণ করছি। বিষাক্ত বর্জ্য আমাদের পরিবেশকে দূষিত করছে। পুরান ঢাকার অধিবাসীরা ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করছে।টাঙ্গাইলে বাসে এক ছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনা উল্লেখ করে তিনি বলেন, সামাজিক অবক্ষয় যেভাবে বেড়ে যাচ্ছে তাতে ছোট ছোট মেয়েরা ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। অশ্লীলতার আগ্রাসনে সামাজিক অবক্ষয় আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাচ্ছে। নিজ বাড়িতেও এখন শিশু-কিশোরীরা রেহাই পাচ্ছে না। বিচারের দীর্ঘ সূত্রিতার কারণে এ ভয়াবহতা রোধ করা যাচ্ছে না। আইনের ফাঁক-ফোকর দিয়ে বেড়িয়ে যাচ্ছে। বিশেষ ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে ৩/৪ মাসের মধ্যে কঠিন শাস্তি প্রদান করা যায় তবে এর ভয়াবহতা অনেক কমে যাবে। এ নিয়ে মানুষের মধ্যে সচেতনতা ও দেশবাসী জনসচেনতা বৃদ্ধি করতে হবে। আমরা চাই না আর কোনো শিশু ধর্ষণের শিকার হোক, চাই সব মেয়েরা মাথা উঁচু করে চলুক।

রওশন এরশাদ বলেন, এবারের সংসদ বিগত সময়ের তুলনায় অনেক প্রাণবন্ত ও কার্যকর। অতীতে সংসদে অশ্লীলতা মানুষ দেখেছে, এবারের সংসদে সেই চিত্র নেই। সরকার ও বিরোধী দল প্রতিটি ইস্যুতে প্রাণবন্ত আলোচনা করেছে। তারপরও অনেকে সংসদ নিয়ে প্রশ্ন তুলতে চান। আর বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে প্রশ্ন তুললে তো আমাদের অসিত্মত্বই থাকে না। তাই বঙ্গবন্ধুকে সবকিছুর ‌উর্ধ্বে রাখতে হবে। তাঁকে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বেই মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা এসেছে। বঙ্গবন্ধু এতো ত্যাগ না করলে বাংলাদেশ কখনো স্বাধীন হতো না।

তবে জাতির পিতাকে কুক্ষিগত করা যাবে না। জাতির পিতা আওয়ামী লীগের একক সম্পদ নয়, তিনি সার্বজনীন। বিরোধী দলের নেতা অসহায় রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশের মাটিতে ঠাঁই দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, কফি আনান কমিশন বাস্তবায়নের মাধ্যমে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান করতে হবে। নিষেধ অমান্য করে সীমান্তে মাইন পুঁতে রাখছে মিয়ানমার। অত্যন্ত অমানবিক অবস্থান নিয়ে নিজেদের নাগরিকদের হত্যা ও নির্যাতন করে দেশ থেকে বিতাড়িত করছে। কূটনৈতিক তত্পরতার মাধ্যমে সম্মানজনকভাবেই অনুপ্রেবেশকারী রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে হবে।

Comments

comments