রাত ১২:৩৬ শুক্রবার ১৫ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

ভুট্টা চাষে আগ্রহ বাড়ছে সিরাজদিখানে কৃষকদের

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : জুন ১৮, ২০১৯ , ৬:১৮ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : কৃষি
পোস্টটি শেয়ার করুন

জাহাঙ্গীর আলম চমক, সিরাজদিখান ( মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি: ভুট্টা চাষে আগ্রহ বাড়ছে মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখানের কৃষকদের। এ বছর ১৮ শত ৫০ হেক্টর জমিতে ভুট্টা চাষ আবাদ হয়েছে। লাভজনক এ ভুট্টার চাষ সম্প্রসারণে কৃষকদের আগ্রহী করে তোলার লক্ষ্যে উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর কৃষকদের সার বীজ ও কৃষি পুনর্বাসনসহ পরামর্শ সহায়তা দিয়ে আবাদ সম্প্রসারণ করছে।

মানুষের খাদ্যের পাশাপাশি মাছ, হাঁস-মুরগী ও গো-খাদ্য হিসেবে ভুট্টার ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়ায় এর চাহিদাও বেড়েছে অনেক বেশি। ভুট্টার সবকিছুই কাজে লাগে। ভুট্টা গাছের পাতা সুসম গো-খাদ্য এবং কান্ড জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কৃষি অধিদপ্তর দাবি করেছে, ভুট্টা চাষ লাভজনক এবং এর উৎপাদনশীলতাও বেশি।

সিরাজদিখার উপজেলার জমি গুলোতে ব্যাপক ভুট্টার চাষ আবাদ হয়েছে। ভুট্টা চাষে এ এলাকার কৃষকদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ দেখা দিয়েছে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে উপজেলার কোলা , ইছাপুরা, রসুনিয়া, তাজপুর, কুসুমপর, আবির পাড়া সহবিভিন্ন এলাকায় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকরা উচ্চ ফলনশীল এনকে (৪০),কনক, সুপার সাইন, আলবি সহ বিভিন্ন হাইব্রিড জাতের ভুট্টা আধুনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ করেছে। উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সুত্রে জানাগেছে এ বছর ১৮শ ৫০ হেক্টর জমিতে ১১ হাজার ১ শত মেট্রিকটন লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে।

আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এ বছর ভুট্টার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। ধান ও অন্যান্য ফসলের চেয়ে লাভ বেশি হওয়ায় কম খরচে বেশি লাভের আশায় বিকল্প ফসল হিসেবে ভুট্টা চাষে ঝুঁকছে এ উপজেলার কৃষকরা।

কোলা ইউপির কৃষক আঃ রহমান জানান, ভুট্টা মাছ ও মুরগীর খাবার হিসেবে ব্যাপক ব্যবহার হচ্ছে। তাছাড়া ভুট্টা বাজারে বিক্রি করার পরও এর শুকনো গাছ ও মোচা বাড়িতে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যায়। ভুট্টা ব্যবহার করে বিভিন্ন খাবার উপযোগী জিনিস, যেমন- খই, রুটি, গো-খাদ্য ইত্যাদি খাবারে ভুট্টার গুরুত্ব অনেক এ কারণে ভুট্টা চাষের চাহিদা সকল কৃষকের কাছে বেশি।

উপজেলা কৃষি অফিসার সুবোধ চন্দ্র রায় বলেন, চলতি বছরে উপজেলায় ভুট্টার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। প্রতিটি এলাকায় মাঠ পর্যায়ে ঘুরে কৃষকদের ভুুট্টা চাষে উদ্বুদ্ধ করেছেন। মাঠ জরিপ অনুযায়ী এ বছর উপজেলার প্রত্যেকটি এলাকায় ব্যাপক হারে ভুট্টার চাষ আবাদ হয়েছে। এ বছর তাদের টার্গেট ছিলো ২২শ হেক্টর মত এখানে ১৮শ ৫০ হেক্টর লক্ষ্যমাত্রার প্রায় ৯০% অর্জন হয়েছে । আগামী দিনে আরো ৩ হাজার হেক্টর লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে তিনি আশা রাখেন । কৃষকরাও এ বছর ভুট্টা আবাদে অধিক লাভবান হবেন বলেও তিনি আশাবাদী।

Comments

comments