রাজধানী

বিয়ের প্রলোভনে কিশোরীকে একাধিকবার ধর্ষণ

শেরপুরে এক বখাটের বিরুদ্ধে এক কিশোরীকে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। কিশোরীর দাবী, বিয়ের প্রলোভনে স্থানীয় এক ইউপি সদস্যের ঘরে নিয়ে জোর করে ধর্ষণের পর তাকে হত্যার হুমকিও দিয়েছে ওই বখাটে।

ঘটনার পর ওই বখাটে ও ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে কিশোরী নিজে শেরপুর সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন। ঘটনাটি ঘটেছে শেরপুর সদর উপজেলার ২নং চর শেরপুর ইউনিয়নের যোগনীমুড়া গ্রামে।

কিশোরীর লিখিত অভিযোগে জানা যায়, মোবাইলে অপরিচিত নম্বর থেকে পরিচয়ের মাধ্যমে ওই কিশোরীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে বখাটে সুজন মিয়া। পরবর্তীতে কিশোরীর বাড়ীতেও যাতায়াত শুরু করে সে।

ঘটনার কিছুদিন পূর্বে বিয়ের প্রলোভনে কিশোরীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে সুজন। পরে বিয়ের জন্য চাপ দেয়ায় কিশোরীকে পরিবার ছেড়ে একা পৌর শহরের খোয়ারপাড় মোড়ে আসতে বলে সে।

বিয়ের প্রলোভনে ওই কিশোরী গত শুক্রবার (৩১ মে) রাতে শহরের খোয়ারপাড় মোড়ে আসে। পরে বিয়ের জন্য পার্শ্ববর্তী কাজী বাড়ীতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে ২নং চরশেরপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মনি মেম্বারের বাড়ীতে নিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে।

এসময় বিয়ের জন্য কিশোরীর প্রস্তাবে রাজি না হয়ে, শারীরিকভাবে নির্যাতন শুরু করে। এতে কিশোরী চিৎকার শুরু করলে তাকে হত্যার হুমকি দিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেয়।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত বখাটে সুজন মিয়ার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। আরেক অভিযুক্ত ইউপি সদস্য মনির সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ‘এটি সম্পূর্ণ বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। আমার চরিত্রে কালি দেয়ার জন্য এটা একধরনের ষড়যন্ত্র। আমি এই ঘটনার সাথে জড়িত না।’

অভিযোগের বিষয়ে শেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘কিশোরীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে এলাকায় ফোর্স পাঠিয়ে খোঁজ খবর নেয়া হয়েছে। কিশোরীর পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে দ্রুত অভিযুক্তদের আইনের আওতায় আনা হবে।’

Comments

comments