অর্থনীতি

মেয়েদের কাপড় বিক্রিতে ভাটা

  • 9
    Shares

‘বেচাকেনা টোটাইল অফ (সম্পূর্ণ বন্ধ) হয়ে গেছে। গেছে (গেল) শুক্রবারের দিনেও বেচাকেনা নাই। প্রায় নিলে (শূন্য) চলে গেছে। অবস্থা খুবই খারাপ। কোটি টাকার মাল পড়ে রইছে। দোকানে প্রচুর মাল। মালের কোনো ঘাটতি নাই। কিন্তু কাস্টমার (ক্রেতা) নাই বাজারে। নারীদের পণ্যের দোকানগুলোতে এই প্রভাবটা বেশি পড়ছে।’

সোমবার (২৭ জুলাই) দুপুরে আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে মেয়েদের কাপড় কেমন বিক্রি হচ্ছে জানতে চাইলে রাজধানীর পান্থপথের বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্সের জি জারা স্টলের ম্যানেজার মো. সজল মাহমুদ  এসব কথা বলেন। কেবল তিনি নন, শপিং কমপ্লেক্সটির আরও বেশ কয়েকজন দোকানি জানান, মেয়েদের কাপড় বিক্রির অবস্থা খুবই খারাপ। বিক্রি একেবারেই কম।

করোনা-আতঙ্ক, বন্যা, অনেক মানুষের গ্রামে চলে যাওয়া, ঘরোয়াভাবে বিয়ের আয়োজন হওয়া, মেয়েদের বাইরে কম বের হওয়া, আর্থিকভাবে অসচ্ছল হয়ে পড়াসহ বেশকিছু কারণকে দায়ী করছেন নারীদের পণ্য বিক্রিকারী এসব দোকানিরা। শপিং কমপ্লেক্সটি ঘুরে অন্যান্য মেয়েদের কাপড়ের দোকানগুলোতে তুলনামূলক ভিড়ও কম চোখে পড়েছে।

এ বিষয়ে সজল মাহমুদ বলেন, ‘করোনার জন্য অনেকে আতঙ্কে আছে। তাছাড়া আগের তুলনায় ছেলেরা বাইরে বেশি আসে, মেয়েরা কম আসে। বিয়ের কাপড় বিক্রিও খুব কম। আগে ৬০ শতাংশ বিক্রি হলে এখন ২০ শতাংশ বিক্রি হচ্ছে।’

বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্সে নারীদের কাপড় বিক্রি করে এমন একটি দোকান এস ফ্যাশন গ্যালারি। এর সেলস ম্যানেজার খোকন রায় মৃদুল  বলেন, ‘আগে যেভাবে বিক্রি হতো, এবার সেই তুলনায় নাই। আগে ঈদের সামনের কয়েক দিনে ১০ থেকে ১২ লাখ টাকার বিক্রি হতো। এবার সেখানে ৩ থেকে ৪ লাখ বিক্রি তোলাই কষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আমাদের স্টকে প্রচুর মাল রয়ে গেছে। বিক্রি না থাকায় সেগুলো বের করার সাহস করছি না।’

এর কারণ হিসেবে তিনি মনে করছেন, করোনায় বেশিরভাগ মানুষ গ্রামে চলে গেছে। শহরে লোকই নেই। তাছাড়া করোনা ও বন্যার প্রভাব তো আছেই।

মেয়েরা বাইরে বের হচ্ছেন কম

মেয়েদের কাপড়ের দোকানিরা বিক্রিতে ভাটা পড়ার কথা জানালেও এই শপিং কমপ্লেক্সেরই শার্ট, পাঞ্জাবি ও টি-শার্ট বিক্রেতারা জানান, তাদের বিক্রি ভালো হচ্ছে। এ বিষয়ে খোকন রায় মৃদুল বলেন, ‘নারীরা তুলনামূলক কম বের হচ্ছে। বাইরে কম বের হওয়ায় নারীদের পোশাকের প্রয়োজন কম হচ্ছে।’

বিক্রি কম হওয়ার ভিন্ন আরেকটি কারণ উল্লেখ করেছেন অনামিকা বুটিকস কালেকশনের ম্যানেজার সানি।

তিনি  বলেন, ‘আগামী শীতের ভেতর আক্রান্ত আরও বাড়তে পারে। আবার করোনা ঈদের পরে আরও ভয়াবহ রূপ নিতে পারে। করোনা পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার সাথে সাথে অর্থনৈতিক অবস্থাও খারাপের দিকে যেতে পারে। এ ধরনের কথাবার্তা বাজারে চালু রয়েছে। এসবের কারণেও অনেকে টাকা খরচ করছে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রতি ঈদেই বিয়ে হয়। বিয়েকে কেন্দ্র করে অনেক কেনাকাটাও হয় ঈদে। করোনার মধ্যেও বিয়ে হয়েছে, এবার ঈদেও হবে, কিন্তু ঘরোয়াভাবে। ফলে বিয়েকে কেন্দ্র করে পরিবার, আত্মীয়-স্বজনের যে কেনাকাটার বিষয় থাকে, সেটা হচ্ছে না। এর প্রভাবও পড়েছে। ছেলেদের প্যান্ট, শার্ট, টি-শার্ট, পাঞ্জাবি এগুলোর প্রয়োজন পড়ে প্রতিনিয়ত। কিন্তু মেয়েরা এখন কম বের হওয়ায়, তাদের সাজ করার সুযোগ কম থাকায় তাদের কাপড়গুলো কম বিক্রি হচ্ছে।’

মোনা কালেকশনের ম্যানেজার মো. মুস্তাকিন বলেন, ‘বিক্রি একেবারেই নাই। গত বৃহস্পতি, শুক্র ও শনিবারে তেমন বিক্রি হয়নি। আমাদের দোকান বেশ ভেতরে, কাস্টমার আসে না। সামনের দোকানগুলো থেকেই অনেকে কেনাকাটা করে বিদায় হয়। এর কারণেও কম বিক্রি হতে পারে।’ সুত্রঃ জাগো নিউজ


  • 9
    Shares

Related Articles