ভোর ৫:২৮ শুক্রবার ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

সৌন্দর্যের নীলাভূমি আড়িয়ালবিল

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : মে ১২, ২০১৯ , ৫:৪২ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : ট্যুরিজম
পোস্টটি শেয়ার করুন

আরিফুল ইসলাম শ্যামল: চলনা ঘুরে আসি দূর অজানাতে যেখানে নদী এসে থেমে গেছে। আসুন একবার ঘুরে আসি অপার সৌন্দর্যের নীলাভূমি বিক্রমপুরের পদ্মা পাড়ের আড়িয়াল বিল। চির সবুজের দেশ নদী মাতৃক আমাদের এই বাংলাদেশ। আর আমাদের এ নদীর দেশে মিলেমিশে একাকার হয়ে রয়েছে এরকম ছোট বড় অসংখ্য হাওর ও বিল। তার মধ্যে অন্যতম উল্লেখযোগ্য হচ্ছে চলনবিল, তামাবিল, ডাকাতিয়া বিল, আড়িয়ালবিল।

শ্রীনগর, সিরাজদিখান, ঢাকা নবাবগঞ্জ, দোহার উপজেলা নিয়ে মূলত আড়িয়াল বিলের অবস্থান। ১লক্ষ ৬৭ হাজার একর জমি রয়েছে এ বিলের বুক জুড়ে। পদ্মা, ধলেশ^রী, ইছামতি নদীর মাঝখানে এ বিলের অবস্থান। দৈর্ঘে প্রায় ২৬ কিলোমিটার আর প্রস্থে ১২কি.মি.জায়গা নিয়ে এ বিলের সীমানা। এ বিলের প্রাচীন নাম ছিল চূড়াইন বিল। প্রাচীন বিক্রমপুর কিছু গ্রন্থ থেকে জানাযায় আড়িয়াল খাঁ নামে একটি নদী ছিল। যা কিনা ব্রম্মপুত্রের নদের শাখা নদীর এটি একটি অংশ ছিল। এ শাখা নদীটি বিক্রমপুরের উপর দিয়ে এক সময় প্রবাহিত হত। সে সময় প্রাচীন বিক্রমপুরের অংশ দিয়ে বর্তমানে মাদারীপুরে এখনো আড়িয়াল খাঁ নদীর অস্থিত্ব ইতিহাসের স্বাক্ষ্য বহন করে আজও প্রবাহিত হচ্ছে। এক সময় গঙ্গা ও ব্রম্মপুত্রের গতিপথ ছিল, পরিবর্তী সময়ে নদীর এ অংশটুকু বিলে রুপান্তিত হয়, তারপর থেকে এটি বিলের রূপ ধারন করে। একটা সময় পূর্ব নাম বদলে আড়িয়াল খাঁ নদীর নাম অনুসারেই এ বিলের নাম রাখা হয় আড়িয়ালবিল।

এ আড়িয়ালবিলে ছোট বড় মিলে প্রায় হাজার খানেকের মত ডাঙ্গা (পুকুর) রয়েছে। ডাঙ্গা গুলোর চারপাশ প্রায় ঘিরে আছে বিভিন্ন প্রজাতির সবুজ গাছগাছালী। এক সময় স্থানীয় জমিদারা বিলের মাঝে এ ডাঙ্গাগুলো খনন করে ছিলেন। তার মাঝে কয়েকটি উল্লেখযোগ্য কিছু ডাঙ্গা রয়েছে যার নাম না বললেই নয়, কলাগাছিয়া, নৈমুদ্দিন, পশুরাম, বাগমারা, সাগরদীঘি, আঠারোপাকি, বৈরাগীর ডাঙ্গা, পদ্মবতী, কালাচাঁন দীঘি, নারিকেল গাছিয়া , তালগাছিয়া , ঝরঝরিয়া। বর্ষাকালে আড়িয়াল বিলের ডাঙ্গাগুলোয় প্রচুর মাছ পড়ে। ভরা বর্ষায় ডেঙ্গাপারে বেসাল পেতে স্থানীয় জেলেদের মাছ ধরার অপূর্ব মনোরম দৃশ্যে দুচোখ ঝুড়িয়ে যায়। এ বিলের মিঠা পানির মাছ খুবই সুস্বাদো। কই, শিং, মাগুর, রুই, কাতলা, বোয়াল, চিতল, ফলি, শোল, গজার, গোলসা, মেনি, পুঁটি মাছ ইত্যাদি। আড়িয়ার বিলের মাছ খাওয়ায় খুবই সুস্বাদো, বিশেষ করে বিলের দেশী পুরানো সেই কই মাছের কথা না বল্লেই নয়।

আড়িয়ালবিলে মুলত শুস্ক মৌসুমে বোরো ধানের আবাদ হয় এখন ধান কাটার মৌসুম চলছে। আর সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে শীতকালে প্রচুর রবিশস্য আবাদ করে স্থানীয় কৃষকরা। ডেঙ্গার পারে মাটি কেটে উঁচু ভিটির মত ভিটা বানানো হয়। আর সে উঁচু ভিটার মাঝে চাষ করা হয় শীতকালীন প্রচুর শাকসবজি, করলা, খিরাই, টমেটো, কুমড়া, লাউ, চিনাই, বাঙ্গি, ঢেঁড়স, বেগুন, কাচাঁ মরিচ ইত্যাদি। এ বিলে প্রচুর মিষ্টি কুমড়া ফলে। আড়িয়ালবিলের বিখ্যাত মিষ্টি কুমড়ার সুখ্যাতি রয়েছে সারা দেশ জুড়ে। এক একটা মিষ্টি কুমড়ার ওজন এক থেকে দেড় মণের মত হয়ে থাকে। অবিশ্বাস্য মনে হলেও বিশাল আকৃতির এ মিষ্টি কুমড়া একবার দেখলে যে কারো মন জুড়ে যাবে। অন্যান্য বিলের তুলনায় আড়িয়াল বিলের মিষ্টি কুমড়ার স্বাদ অতুলনীয়। বিলের ধারে বসবাসরত পরিবার গুলো বেঁচে থাকার অবলম্বন বা স্বপ্নবুনা এ বিলকে ঘিরেই। মাছ ধরা ও শাক-সবজি বুনে চলে এদের সংসার।

এ বিলে অসংখ্য দেশি বিদেশি পাখির আনা গোনা দেখা যায় বিশেষ করে বুনোহাঁস সাদা বক পানকুঁড়ি আড়িয়ালবিল পদ্মার নিকটবর্তী হওয়ায় সকালে চরে আশ্রয় খুঁজে নিতো আর সন্ধ্যা হলেই ঝাঁক বেঁধে আবার ফিরে আসে বিলে। বিল পারের গ্রামগুলোতে দৈনিক মাছ সবুজ শাক-সবজির হাঁট বসতো। যদি ও সেরকম হাঁট এখন আর চোখে পড়েনা। ভরা বরষার মৌসুমে আড়িয়ালবিলের বুক জুড়ে খেলা করে অথৈ জল। আর সেখানে ডাগর চোখে মুখ উচিয়ে সাঁতার কেঁটে বেড়ায় শাঁপলা, শালুক, কলমি, হেলেঞ্চার দল।

যদি কখনো রাতের বেলায় বিল ভ্রমনে আসেন তবে দেখতে পাবেন বিলের স্বচ্ছ জলে কি অপরুপ খেলা করছে পূর্নিমার চাঁদ। আপনার দেখে মনে হবে বিলের অথৈই জলে যেন ফুঁটে আছে নীলপদ্ম যেখানে সাপ আর ভোঁমর খেলা করে। মেঘের সাঁজ দেখে কখনো কখনো মনে হতে পারে মেঘেদের বাড়ি বুঝি বিলের বুক ঘেঁষে নীলাচলে।

Comments

comments