লাইফস্টাইল

পদ্মাপাড়ে মানুষের ঢল, পারাপারের অপেক্ষায় হাজারো যানবাহন


পবিত্র রমজান ও ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সবচেয়ে ব্যস্ততম নৌরুট শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী উভয়মুখী যাত্রীদের ঢল নেমেছে। হাজার হাজার মানুষ কর্মস্থলে যোগ দিতে ও ঈদের কেনাকাটা করতে পরিবার-পরিজন নিয়ে ঢাকা ও এর আশপাশের জেলাগুলোতে ছুটে আসছেন। এবার শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী উভয় পারে হাজারো গাড়ির যানজট সৃষ্টি হয়েছে। গত কয়েকদিন শুধু ঢাকামুখী চাপ থাকলেও এবার উভয়মুখী যাত্রীদের চাপ বেড়েছে। অনেকেই করোনার ঝুঁকি নিয়েও শিমুলিয়া ঘাট থেকে কাঁঠালবাড়ীর দিকে রওনা হচ্ছেন। তবে এখনও উভয় পারে বন্ধ রয়েছে বাস, লঞ্চ, সিবোটগুলো।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে গেল ২৩ মার্চ থেকে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে লঞ্চ ও সিবোট চলাচল বন্ধ করে দেয় বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ। গেল কিছুদিন জরুরি পরিসেবার জন্য বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ সীমিত পরিসরে ফেরী দিয়ে যানবাহন ও যাত্রী পারাপার করছিল। কিন্তু গত দু-তিন দিন ধরে যাত্রীদের চাপে সবকটি ফেরী চলাচল শুরু হয়।

বিআইডব্লিউটিসি সূত্রে জানা যায়, যানবাহন ও যাত্রীর সংখ্যা গত কয়েকদিন ধরে বেড়ে যাওয়ায় রো রো, কেটাইপ, মিডিয়াম, ঠেলা ও ছোটসহ মোট ১৩টি ফেরি চলাচল করছে ওই নৌরুটে। মঙ্গলবার (১২ মে) সকাল থেকে সরেজমিনে দেখা যায়, ব্যস্ততম এই নৌরুটে লঞ্চগুলো লঞ্চগুলো নদীর চরে সারি সারিভাবে নোঙ্গর করে রাখা। সিবোটগুলোও বন্ধ। লঞ্চ ও সিবোট ঘাটে সুনসান নীরবতা। কিন্তু ফেরীঘাটগুলোর চিত্র পুরোপুরি ভিন্ন। সেখানে অপেক্ষমান যাত্রীদের কোলাহল আর পারাপারের অপেক্ষার বিরক্তি চোখে পড়েছে। রজমান আর চলমান করোনা আতঙ্কের মধ্যে তাদের মধ্যে ভোগান্তির ছাপ দেখা গেছে। অনেকে পারাপারের অপেক্ষায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করছেন।

কিছু ফেরী যানবাহন আর যাত্রী নিয়ে শিমুলিয়া ঘাটে ভিড়ছে। আবার শিমুলিয়া ঘাট থেকে যানবাহন ও যাত্রী নিয়ে কাঁঠালবাড়ী ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে যাচ্ছে কিছু ফেরি। উভয় পাড়ের যাত্রীদের অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে পারাপার হতে হচ্ছে। তবে শিমুলিয়া ঘাটে বাস বন্ধ থাকায় প্রাইভেটকার, মটোরসাইকেল, ইজি-বাইক, সিএনজি, লেগুনা ও পিকাপভ্যানে করে অতিরিক্ত টাকা ভাড়া দিয়েই ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দিচ্ছে অনেকে।

গত রবিবার থেকে ঢাকায় দোকানপাট, শপিং মল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে সরকার অনুমতি দিলেও অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানই খুলেনি। তবে ঈদের আগাম কেনাকাটায় ও কিছু কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কমচারীরা মানুষ ঢাকার দিকে আসতে শুরু করেছেন।

গত দু-তিন দিন ধরে কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় চোখে পড়ে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ভয় উপেক্ষা করে হাজার হাজার মানুষকে ফেরিতে ঠাসাঠাসি করে পদ্মা পাড়ি দিয়ে গন্তব্যের দিকে ছুটতে দেখা গেছে। সড়ক পথেও যানবাহন একেবারেই সীমিত। তাই যেসব যাত্রীরা নদী পাড় হয়ে তীরে আসছেন তারা ব্যাটারিচালিত আটো, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ট্যাম্পু, ইয়েলো ক্যাব, নসিমন, করিমন, মোটরসাইকেল ও অন্যান্য ছোট গাড়ি ধরে গন্তব্যে যেতে রীতিমতো প্রতিযোগিতায় নেমেছেন।

মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সিরাজুল কবীর জানিয়েছেন, ‘গত কয়েক দিন ধরেই ঢাকামুখী মানুষের সংখ্যা বেড়েছে। প্রতিদিন শত শত লোক আসছে। সবাই ঢাকামুখী যাত্রী। গার্মেন্টেস খোলার ঘোষণার পর মার্কেটও খুলে দেয়ার ঘোষণা দিলে নানা শ্রেণি-পেশার শত শত লোক গত কয়েক দিন ধরে ঢাকা ও তার আশপাশের জেলাগুলোতে ছুটছেন।’

এদিকে ফেরিতে প্রতিদিন এভাবে যাত্রী পারাপার হতে দেখে ও প্রতিদিনিই যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বাড়ায় কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌপথের লঞ্চ মালিকরা যাত্রী পারাপারে তাদের লঞ্চ চলাচল খুলে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন। বিআইডব্লিউটিসি শিমুলিয়া ঘাটের এজিএম মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘লঞ্চ মালিকরা চাচ্ছেন লঞ্চ চালুর ঘোষণা দিতে। কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌপথে মোট ১৩টি ফেরি চলাচল করছে। ফেরিতে শত শত যাত্রী নদী পার হচ্ছেন। দ্রুত যানবাহন পারাপার করে চাপ কমানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button