ঘাটাইলে ব্যক্তিগত উদ্যোগে খাদ্যসহায়তা অব্যাহত রেখেছেন সৈয়দ এসহান আব্দুল্লাহ

0
98

ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে কোভিট-১৯ করোনা ভাইরাসে খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষের পাশে মানবতার সেবক হয়ে সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে খাদ্যসহায়তা অব্যাহত রেখেছেন টাঙ্গাইলের ঘাটাইলের কৃতি সন্তান গরীব-অসহায় মানুষের ফেরিওয়ালা, মানবতার বন্ধু, সর্বজন সবার নয়নের মনি, সু-পরিচিত তরুন উধীয়মান রাজনীতিবিদ মিতালী গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ এহসান আব্দুল্লাহ মিথুন।

সরেজমিন ও তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, নিজের দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে অসহায় মানুষগুলোর পাশে দাড়িয়ে যে মানবিকতার পরিচয় দিচ্ছেন তা শুধু নিজেদের পরিচিতির জন্য নয়। মানুষ মানুষের জন্য এই প্রত্যায়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় দেশে কেভিড-১৯ করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় গত ১ মে শুক্রবার থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত ঘাটাইল পৌরসভার কয়েক টি গ্রামসহ উপজেলার বিভিন্নস্থানে কয়েক হাজার মানুষকে সম্পূর্ণ নিজের অর্থায়নে খাদ্যসহায়তা হিসেবে চাল, ডাল, আলু,আটা,লবণ,পেয়াজ, ও নিত্যপণ্যের বাজারসহ বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিয়ে মানবিকতার পরিচয় দিয়ে আসছেন সৈয়দ এহসান আব্দুল্লাহ মিথুন । মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য শ্রোগানকে বুকে ধারন করে এগিয়ে যাচ্ছেন সর্বদা। শ্রমজীবী মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে যে মানবতার পরিচয় দিচ্ছেন তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। যেখানে সরকার করোনা ভাইরাসকে জাতীয় দূর্যোগ হিসেবে দেখছেন, সেখানে একজন গরীব-দুঃখী মানুষের ফেরিওয়ালা খ্যাত সৈয়দ এহসান আব্দুল্লাহ মিথুন শুধু মানবতার সেবক হিসেবে নয় জাতীর এই দূর্যোগ মহুত্বে দলের জন্য নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জামুরিয়া,উত্তর পাড়া,কর্ণা,সিংগুরিয়া,লোকেরপাড়া,নয়াপাড়া সহ বিভিন্ন গ্রামের ষাটোর্ধ পুরুষ ও মহিলা এ প্রতিবেদক কে বলেন, বাবা সৈয়দ এসহান আব্দুল্লাহ (মিথুন) যদি করোনা ভাইরাসের এ দূর্যোগ ও লকডাউনের সময় আমাদের পাশে না দাঁড়াতেন তাহলে আমাদের না খেয়ে মারা যেতে হতো। তার জন্য আমরা দোয়া করি আল্লাহ যেন তাকে মানবতার বন্ধু হিসেবে যেন কবুল করেন। তিনি অসহায়, গরীব-দুঃখী মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন একজন স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে। তারই নির্দেশে গরীব-দুঃখী অসহায় মানুষগুলোকে খাদ্যসামগ্রী দিনরাত পৌঁছে দিচ্ছেন তার নিজের সেচ্ছাসেবকদের দিয়ে তার নেতৃত্বে একদল স্বেচ্ছাসেবক।

তরুণ এই উধীয়মান নেতা কখনো দিনে কখনো রাতের অন্ধকারে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন বাড়িতে। কখনো মোবাইল ফোনে বা ম্যাসেঞ্জারে অসহায় মানুষের খাদ্যের প্রয়োজন পড়লেই নিজ সাধ্যমতো শ্রমজীবী মানুষগুলোর পাশে দাঁড়িয়ে খাদ্য সহায়তা প্রদান অব্যাহত রেখেছেন। নিঃসন্দেহে বলা যায় মানবতার বন্ধু। শুধু পৌর শহরে নয় উপজেলার যেখান থেকে পাচ্ছেন খবর, তাৎক্ষণিক সেখানেই পাঠিয়ে দিচ্ছেন খাদ্যসহায়তা। যেখানে রাজনৈতিক দলের অনেক নেতাই দূর্যোগ মহুত্বে ঘরে বসে আছেন, সেখানে তরুণ এই রাজনীতিবিদ নিজ উদ্যোগে মানুষের কষ্ট অনুভব করতে পেরে চলমান দূর্যোগে এগিয়ে এসে যে মহানুভবতার পরিচয় দিচ্ছেন সেজন্য সচেতনমহল তাকে ধন্যবাদ দিয়ে ছোট করতে আগ্রহী নয়। উপজেলার বিভিন্ন রাজনৈতিক দলসহ খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের প্রশংসায় ভাসছেন তিনি। অনেকেই জানিয়েছেন শুভকামনা। সেই সঙ্গে সবার কাছে পাচ্ছেন দোয়া, ভালবাসা ও অভিনন্দন।

উপজেলার বেশ কয়েকজন শিক্ষক, রাজনৈতিক নেতা ও ব্যবসায়ীগণ এ প্রতিনিধিকে জানান, ঘাটাইল বাসীর কৃতি সন্তান, নয়নের মনি, আমাদের অহংকার, আওমীলীগের গর্ব সৈয়দ এসহান আব্দুল্লাহ একজন শুধু মানবতার বন্ধু। তিনি কোভিট-১৯ করোনা ভাইরাসের শুরু থেকে যেভাবে শ্রমজীবী অসহায় মানুষ গুলোকে খাদ্যসহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন তা নিঃসন্দেহে বলা যায় মানবসেবক। আমরা তার দীর্ঘায়ু ও পরিবারের জন্য দোয়া কামনা করছি। সেই সঙ্গে আগামীতে আরও স্বচ্ছ রাজনিতির মাধ্যম সামনে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করছি।

অপরদিকে উপজেলার সাধারণ মানুষ বলছেন, সে শুধু গ্রামের বা ওয়ার্ডের নয়, সে ঘাটাইল পৌরসভার নয়, সে সমগ্র ঘাটাইল বাসীর অহংকার। তারা আরও বলেন, আমাদের কৃতি সন্তান সৈয়দ এসহান আব্দুল্লাহ মিথুন একজন মানবতার ‘ফেরিওয়ালা’। বেঁচে থাক সে হাজার বছর। মানুষ মানুষের জন্য এই হোক তার প্রতিপাদ্য।

এবিষয়ে সৈয়দ এসহান আব্দুল্লাহ (মিথুন) এ প্রতিনিধিকে বলেন, মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য এ প্রতিপাদ্যকে সামনে নিয়ে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশে আমি অসহায় মানুষের পাশে খাদ্যসহায়তা নিয়ে পাশে দাঁড়িয়েছি। তিনি আরও বলেন, শুধু ব্যক্তিস্বার্থে রাজনীতির জন্য নয়, আওয়ামীলীগের একজন কর্মী হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করতে।