ভোর ৫:২৪ শুক্রবার ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

ডাইনিংয়ের খাবারের মান নিয়ে রাবি শিক্ষার্থীদের অভিযোগ

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : মার্চ ৮, ২০১৯ , ৭:০৪ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : ক্যাম্পাস
পোস্টটি শেয়ার করুন

রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোর খাবারের মান নিয়ে বহু আগে থেকেই অভিযোগ শিক্ষার্থীদের। তবে এসব অভিযোগের বিপরীতে হল প্রশাসন বলছে পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্ধ না থাকার।

বিশ্ববিদ্যালয়টির প্রায় ৩৬ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য রয়েছে ১৭টি আবাসিক হল। এসব হলের খাবার নিয়ে শিক্ষার্থীরা নানা সময়ে নানা অভিযোগ তুলে থাকে।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, ডাইনিংয়ের খাবারে প্রতিদিন যে পরিমাণ সবজি, মাছ, মাংস, ডিম দেওয়া হয় তা একেবারেই অল্প। তাছাড়া এসব খাবার নিম্নমানের ও স্বাদহীন।

শহিদ হবিবুর রহমান হলের আবাসিক শিক্ষার্থী নাহিদ হাসান শিপন বলেন, ‘স্বাস্থ্যে সুষ্ঠু বিকাশের জন্য ডাইনিং এর খাবার যথেষ্ট নয়। ভালো থাকার জন্য সুষ্ঠু পরিবেশ প্রয়োজন, ভালো খাবারের প্রয়োজন, পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ভাবে রান্না করা প্রয়োজন। ডাইনিং এর খাবারের মধ্যে বিশষে করে ডালের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের খড়কুটা পাওয়া যায়। ডিমের মধ্যে পাওয়া যায় খোসা। মাংস, সবজীতে পাওয়া যায় উচ্ছিষ্ঠ।’

মাদার বখশ্ হলের আবাসিক শিক্ষার্থী হিরা বলেন, ‘খাবারের গুণগত মান মোটেও ভালো না। মোটা চাল , চালে পাথর, প্রায় বাসি খাবার, অপরিচ্ছন্ন গ্লাসে পানি দেওয়া এবং খাবারের উপরে মাছি ওড়তে দেখা যায়।’

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের মাস্টার্সের এক শিক্ষার্থী জানান, বাজার স্থিতিশীল থাকলেও সকল ধরনের খাবার নি¤œমানের, খাবারের মান ভালো করার প্রতিশুতি দেয়া হয়েছে কিন্তু তা বাস্তবায়ন করা হয়নি।

রহমতুন্নেছা, বেগম খালেদা জিয়া ও মুন্নুজান হলের বেশ কয়েকজন আবাসিক শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলেও প্রায় একই ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শের-ই-বাংলা ফজলুল হক হলের সহকারী বাবুর্চি বলেন, ‘আমরা কখনোই শিক্ষার্থীদের বাসি খাবার দেই না। আমরা সব সময় ভালো খাবার দেওয়ার চেষ্টা করে থাকি।’

হল কিংবা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে অর্থের বরাদ্দ বাড়ানো হলে আরো ভালো খাবার শিক্ষার্থীদের দেওয়া যাবে বলে জানান এই বাবুর্চি।

শের-ই-বাংলা ফজলুল হক হলের প্রাধক্ষ পার্থ বিপ্লব রায় বলেন, ‘আমরা খাবারের মান সবসময় ভালো রাখার চেষ্টা করে থাকি। শিক্ষার্থীদের দেওয়া সব অভিযোগ সব সময় সত্য না। তবে শিক্ষার্থীদের অভিযোগ বিবেচনায় নেওয়া হবে।’

তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ দিলে আরো ভালো খাবার শিক্ষার্থীদের দেওয়া সম্ভব বলে এই হল প্রাধ্যক্ষ দাবি করেন।

Comments

comments