ভোর ৫:০৫ শনিবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ট্রেনের টিকিট কালোবাজারি ঠেকাতে জাতীয় পরিচয়পত্র বাধ্যতামূলক করা হয়েছে: রেলমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : মার্চ ৫, ২০১৯ , ৯:০৩ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

এস,এম,মনির হোসেন জীবন ॥ ট্রেনের টিকিটের কালোবাজারি ঠেকাতে বর্তমানে একটি ট্রেনে টিকিট কাটতে জাতীয় পরিচয়পত্র বাধ্যতামূলক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন।

রেলমন্ত্রী বলেন,রেলকে ঢেলে সাজানো হচ্ছে উল্লেখ করে রেলমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের ১০টি মেগা প্রকল্পের দুটিই রেল খাতের। রেল ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়নে ব্যাপক উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পরীক্ষামূলক কার্যক্রমে ভালো সাড়া পেলে পর্যায়ক্রমে সব ট্রেনে জাতীয় পরিচয়পত্র বাধ্যতামূলক করা হবে।
আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশনের বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে রেলমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

রেলমন্ত্রী কমলাপুর রেলস্টেশনে সাংবাদিকদের বলেন, কমলাপুর রেলস্টেশনে অব্যবস্থাপনা-অনিয়ম দূরসহ যাত্রীসেবা বাড়ানোর কথা উল্লেখ করে রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, আজ মঙ্গলবার ৫ তারিখ। আগামী ৫ এপ্রিল আবার এখানে আমি পরিদর্শন করব। এ সময়ের মধ্যে তাদের সংস্কার করতে হবে। এ সময়ের মধ্যে সংশোধন কিংবা কোন ধরনের পরিবর্তন না হলে তার ব্যর্থতার দায়ে কাউকে ছাড় দেওয়া হবেনা। তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক কঠোর ব্যবস্থা নেয়া গ্রহন করা হবে হুশিয়ারী দেন রেলমন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, কমলাপুর রেলস্টেশনের সার্বিক কার্যক্রম দেখতে পরিদর্শন করেছি। তাদের কাজে সন্তুষ্ট হতে পারিনি। তাই অব্যবস্থাপনা দূর করার পাশাপাশি যাত্রীসেবা নিশ্চিত করতে এখানকার ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষকে এক মাসের সময় দিয়েছি। ব্যর্থ হলে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

রেল কর্মকর্তাদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, নতুন সরকার এসেছে। নতুন মন্ত্রী। জনগণের জন্য এ উপলক্ষে নতুন কিছু কাজ করেন। এভাবে দায়সারা কাজ করলে চলবে না। আপনাদের কর্যক্রমে আমি সন্তুষ্ট হতে পারলাম না। মানুষের স্বার্থে দ্রুত এটি খুলে দেন।

রেলমন্ত্রী বলেন, টয়লেট বন্ধ বলেই মানুষ রাস্তায় দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করছে। টয়লেট খোলা থাকলে তো এ মানুষ এখানে সেখানে প্রস্রাব-পায়খানা করত না।
তিনি বলেন, পাবলিক টয়লেট বন্ধ বলেই মানুষ রাস্তায় দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করছেন।

পরিদর্শনকালে রেলমন্ত্রী কমলাপুর রেলস্টেশনে রেল কর্মকতর্কাদের কাছে জানতে চান, এটা কিসের ভবন? কর্মকর্তারা জানান, এটি সিটি কর্পোরেশনের পাবলিক টয়লেট। এরপরই ক্ষিপ্ত হয়ে যান মন্ত্রী। তিনি বলেন, এগুলো বন্ধ পরিত্যাক্ত কেন ? স্টেশন এলাকায় এর রক্ষণাবেক্ষণ কে করবে ? সিটি কর্পোরেশনের বলে এটি ফেলে রাখবেন ? তাহলে আপনাদের কাজ কী ? পরিদর্শন কালে রেল বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সাথে ছিলেন।

Comments

comments