রাত ৩:৪১ মঙ্গলবার ১৯শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

বিন সালমানের এশিয়া সফরের আসল উদ্দেশ্য নায়কোচিত সংবর্ধনা ও উষ্ণ আলিঙ্গন,

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১৯ , ৯:৫৭ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : আন্তর্জাতিক
পোস্টটি শেয়ার করুন

গত সপ্তাহের রোববার পাঁচ দিনের এশিয়া সফর শুরু করেন সৌদি যুবরাজ। অর্থনৈতিক দুর্দশায় জরাগ্রস্থ পাকিস্তানই ছিলো তার প্রথম গন্তব্য। দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে নায়োকচিত সংবর্ধনা পান বিন সালমান। ফাইটার জেট এসকর্ট, স্বর্ণের পাতে মোড়ানো সাবমেশিনগান উপহার, সর্বোচ্চ বেসামরিক পদক, ২১ বার তোপধ্বনি সবই ছিলো তার জন্যে। এমনকি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান খোদ বনে গেলেন তার গাড়ির ড্রাইভার। নিজেই গাড়ি চালিয়ে যুবরাজকে তার বাসভবনে নিয়ে আসেন ইমরান। বিনিময়ে পাকিস্তানকেও নিরাশ করেন নি সালমান। সিএনএন

 

এই সফরের মাধ্যমে দেশটি ২ হাজার কোটি ডলারের সৌদি বিনিয়োগ পেতে চলেছে। যা দেশটির অবকাঠামো নির্মাণ ও জ্বালানি সক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে। তবে এই সফরে সবচাইতে বড় যে অর্জন পাকিস্তানের তা হলো পাকিস্তান-চীন অর্থনৈতিক করিডরে সৌদি আরবের বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি। বিনিময়ে বিন সালমান যে ইতিবাচক মিডিয়া কাভারেজ পেলেন সেটাই ছিলো তার এই সফরের মূল উদ্দেশ্য। এমবিএস নামে পরিচিত যুবরাজের মূল উদ্দেশ্য ছিলো, তিনি যে একজন বিচ্ছিন্ন বিশ্বনেতা নন তা বিশ্বের কাছে তুলে ধরা। এশিয়া সফরে এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখলেন এমবিএস। ভারতে তাকে প্রথা ভেঙ্গে উষ্ণ আলিঙ্গন করলেন মোদী।

অর্থই যে সকল বিভেদ দূর করে কট্টরপন্থী রাষ্ট্রনায়কদের ঘনিষ্ঠ হতে সাহায্য করে সেটাই যেন প্রমাণ করলেন মোদী ও বিন সালমান। ভারতে ১০ হাজার কোটি ডলারের সৌদি বিনিয়োগের চুক্তি করেছেন মোহাম্মদ বিন সালমান। ভারতীয় গণমাধ্যমে তার ইতিবাচক প্রচার যে পশ্চিমা গণমাধ্যমকে প্রভাবিত করবে সেই জনসংযোগ নীতিকে মাথায় রেখেই যুবরাজের এই সফর। পাশাপাশি বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সম্ভাবনায় উজ্জ্বল দেশটির উন্নয়নে সৌদি আরবকেও অংশীদার করলেন। আবার ইরান-ভারত মিত্রতার বন্ধনেও চিড় ধরানোও ছিলো তার লক্ষ্য। ভারত-পাকিস্তান সফরে সৌদি যুবরাজ যে সংবর্ধনা পেয়েছেন বর্তমান পেক্ষাপটে তা পশ্চিমের কোন দেশে তার পাওয়ার সম্ভাবনা নেই। হয়তো এই কারণেই ইসলামের পবিত্র দুই নগরীর সংরক্ষক ভারতের উগ্রপন্থী হিন্দুদের হাতে মুসলিম নির্যাতনের বিষয়টি উচ্চারণও করেননি।

 

ভারতের পরেই দুদিনের সফরে চীন যান সৌদি ক্রাউন প্রিন্স। সেখানে রাজকীয় সংবর্ধনা কপালে জোটেনি তার। তবে বিশ্বের অন্যতম ক্ষমতাশালী নেতা শি জিনপিংয়ের সঙ্গে একটি করমর্দনের চমৎকার ছবি পেয়েছেন তিনি। সেখানে শি জিনপিংয়ের সঙ্গে তিনি বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ দমনে একমত পোষণ করেন। অথচ চীনের রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের কল্যাণে জিনজিয়াং প্রদেশে যে লাখো লাখো মুসলিম অমানবিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন, সেটা বলতেই যেন ভুলে গেলেন বিন সালমান। যা তার জনসংযোগে সাহায্যই করেছে। চীনা গণমাধ্যম ও প্রশাসন এই বৈঠকের প্রেক্ষাপটে উভয় দেশের স¤পর্কে নতুন মাত্রা যুক্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে। এশিয়া সফরের মাধ্যমে পশ্চিমা বিশ্বের কাছে একটি পরিষ্কার বার্তা দিলেন বিন সালমান। পশ্চিমের সমালোচনা এবং চাপ প্রয়োগের বিপরীতে তিনিও যে সৌদি বিনিয়োগ এশিয়ার দিকে সরিয়ে নিলে বাড়তিখ্যাতি এবং মনোযোগ পাবেন সেটাই তুলে ধরেছেন এই সফরের মাধ্যমে।

 

নিজের ইতিবাচক ইমেজ প্রতিষ্ঠা যে তার এই সফরের মূল উদ্দেশ্য তাও লক্ষ্য করা যায় তার সফরসূচির দিকে তাকালে। এই যাত্রায় মালয়েশিয়া এবং ইন্দোনেশিয়া সফরের কথা থাকলেও অনির্দিষ্ট কারণ দেখিয়ে তা বাতিল করে সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। মূলত এই দেশগুলো সফরে এলে মানবাধিকার কর্মী এবং সচেতন জনতার বিক্ষোভের মুখে পড়ার সম্ভাবনা ছিলো সৌদি যুবরাজের। পক্ষান্তরে, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া এবং সিঙ্গাপুরের মতো গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক শক্তিও বাদ পড়েছে সফরসূচি থেকে। সেখানেও কাজ করেছে একই কারণ।

 

ইতোপূর্বে, ইয়েমেনে সৌদি জোটের আগ্রাসন এবং অসংখ্য মানুষের মৃত্যুর জন্য বিশ্বে সৌদি যুবরাজের সমালোচনায় মুখর জাতিসংঘসহ বিশ্বের মানবাধিকার সংস্থাগুলো। এর মাঝেই ইস্তাম্বুলস্থ সৌদি কূটনৈতিক মিশনে নারকিয় কায়দায় খুন হন ভিন্নমতালম্বি সৌদি সাংবাদিক ও লেখক জামাল খাসোগজি। যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত ওয়াশিংটন পোস্টে নিয়মিত কলাম লিখতেন তিনি। খাসোগজি হত্যার পরেই সৌদি আরবের বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় ওঠে পশ্চিমা বিশ্বে। মাত্র কয়েক মাস পূর্বেই পশ্চিমা গণমাধ্যমে ইতিবাচক কাভারেজ পাওয়া সৌদি ক্রাউন প্রিন্স হয়ে ওঠেন মানবাধিকার রক্ষার অন্তরায়।

 

তবে সৌদি যুবরাজের সহায়তায় ট্রা¤প প্রশাসনের অব্যাহত সমর্থনের প্রেক্ষিতে খাসোগজি হত্যা কেলেঙ্কারি নিয়ে আলোচনা ক্রমেই স্তিমিত হয়ে পড়ে। তবে সমালোচনা কমলেও তেল নির্ভর অর্থনীতি থেকে সৌদি আরবকে বের করে আনার যুবরাজের পরিকল্পনায় এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। রিয়াদে অনুষ্ঠিত সৌদি বিনিয়োগ সম্মেলন পশ্চিমের অনেক কো¤পানি বর্জন করে। কয়েক যুগ ধরে পশ্চিমের অর্থনীতিতে বিপুল বিনিয়োগকারী সৌদি আরব এই ঘটনাকে পশ্চিমের অযাচিত চাপ প্রয়োগ হিসেবেই চিহ্নিত করে। ফলে সৌদি আরবের ভবিষ্যৎ অর্থনৈতিক স¤পর্কের কেন্দ্র তৈরিতে এশিয়ার দিকে মনোযোগ দেন মোহাম্মদ বিন সালমান।

Comments

comments