বরিশাল

হঠাৎ আগুন আতঙ্কে ভোলা; নিঃস্ব ব্যবসায়ীরা

ইয়ামিন হোসেনঃ দ্বীপ জেলা ভোলার মানুষের জন্য বড় অভিশাপ ছিলো মেঘনার ভাঙ্গন কিন্তু এখন যেনো নতুন করে আরেক অভিশাপ এসেছে ভোলাবাসীর জন্য, যেই অভিশাপে নদীর মতই নিঃস্ব করে দিচ্ছে ব্যবসায়ীদের আবার কেউ বা রাস্তার ফকির হয়ে গেছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়,গত ৯ মাসে ভোলায় ৭টি ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে এতে কয়েক কোটি টাকার মত ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে কিন্তু কি ভাবে এই আগুনের সূত্রপাত তা প্রাথমিক ভাবে বিদ্যুৎ থেকে বললে ও পরে আর তদন্ত করে বের হয়েছে এমন খবর আর পাওয়া যায়নি,গত বছরের ২৮শে এপ্রিলে ভোলা শহরের ব্যবসায়ীদের প্রানকেন্দ্র চক বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে প্রায় ৫০ কোটি টাকার উপরে ক্ষতি হয়েছে ১৭ডিসেম্বর রাজাপুর ইউনিয়নের জনতাবাজার আগুনে ৩৫টি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে এতেও প্রায় অর্ধকোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্থরা ২৪শে নভেম্বর ভোলার সুতাপট্রিতে আগুনে ২৫টি দোকান পুড়ে গেছে চলতি মাসের ১৩ই জানুয়ারী জংশন বাজার ১৪ই জানুয়ারী পরানগঞ্জ বাজার ১৬ জানুয়ারী তজুমউদ্দিন বাজার ২০ শে জানুয়ারী ধনিয়া গোটাউন এক বাড়ীতে অগ্নিকান্ডসহ প্রায় ১০ কোটি টাকার মত ক্ষতি হয়েছে এর মধ্যে ১৯জানুয়ারী লালমোহন উপজেলায় দৃর্বক্তদের দেওয়া আগুনে এক মহিলাসহ দুইজন নিহত হয়েছেন ও গতকাল রাতে চরফ্যাশন উপজেলার ২০টি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।
কিন্তু হঠাৎ কেনো এই অগ্নিকান্ড এমন প্রশ্ন সবার জংশন বাজারের ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী কামাল হোসেন জানান,দু  এক জনের অসাবধানতা আগুনের সূত্রপাত ঘটে,একজন কলেজ শিক্ষক জানান আগুনের থেকে বাচঁতে হলে আমরা নিজেরা আগে সাবধান হতে হবে তাহলে আগুন থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব নিজেদের অসাবধানতা ও বিদ্যুৎ অফিসের লোকের লোকাল লাইনের কারনে বেশি ঘটে দূর্ঘটনাগুলো।

ভোলা ফায়ারসার্ভিস এর উপ পরিচালক জাকির হোসেন জানান,আগুনের প্রধান কারন হলো অসাবধানতা এবং আগুন নিয়ন্ত্রণে মানুষ সর্তকতা কম ও আগুন নিয়ন্ত্রক যন্ত্র থাকলে আগুন লাগার সাথে সাথে ইসফ্রে করে দিলে আগুনটা নিভে যেতো কিন্তু সেটা ও নেই

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.