দেড় মাস পর বেনাপোল দিয়ে রেলপথে আমদানি বাণিজ্য শুরু

0
116

নাজিম উদ্দীন জনি,শার্শা(বেনাপোল)প্রতিনিধিঃ করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বেনাপোল রেল পথে প্রায় দেড় মাস আমদানি বাণিজ্য বন্ধ থাকার পর পূনরায় আবার চালু হয়েছে। এতে ব্যবসায়ীদের মধ্যে স্বস্তি ফিরেছে।

গতকাল রোববার (১০ মে) বিকালে ভারতের কলকাতা থেকে ৪১ বগির মালবাহী ট্রেনটি বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করে বলে জানিয়েছেন বেনাপোল রেলস্টেশনের ইয়ার্ড মাস্টার ইসাহক আলী।

ট্রেনের ৪১টি বগিতে দুই হাজার ৩৯০ মেট্রিকটন সিমেন্ট কারখানায় ব্যবহৃত ফ্লাই অ্যাশের একটি চালান আমদানি হয়।

বেনাপোল রেলস্টেশন মাস্টার সাইদুর রহমান বলেন, “আমদানিকৃত এ পণ্যর চালানের “আমদানিকারক বাংলাদেশের ‘রিয়ালিস ট্রেডার্স’ এবং রপ্তানিকারক ভারতের কলকাতার ‘ওরিয়েন্টাল ইন্টারন্যাশনাল।”

বেনাপোলের সিএন্ডএফ এজেন্ট ‘সাইফুল ইন্টারন্যাশন্যাল’ চালানটি খালাসের দায়িত্বে আছে।

ভারতের কলকাতা থেকে আসা পণ্যবোঝাই মালবাহি ট্রেনটি বেনাপোলে পৌঁছালে করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনেই ট্রেন চালকদের কাছ থেকে পণ্যচালানের ইনভয়েজ বুঝে নেওয়া হয়। পরে ইঞ্জিনটি নিয়ে চালক বন্দর ছেড়ে ভারতে ফিরে যায় বলে জানান সাইদুর রহমান।

করোনা দূর্যোগে ভারত থেকে ট্রেনে পণ্য আসার পর এসময় বন্দর, কাষ্টমস ও মেডিকেল টিমের সদস্যরা ছিলেন বলে জানান ইসাহক আলী।

আমদানিকারকের প্রতিনিধি কামাল হোসেন বলেন, যেহেতু বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে স্থলপথে ভারতের সাথে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বন্ধ রয়েছে। এক্ষেত্রে যদি সরকার রেল পথে বাণিজ্যের দিকে নজর দেয় সেক্ষেত্রে সংক্রমণের ঝুঁকি যেমন কম থাকবে, তেমনি প্রচুর পরিমাণে রাজস্ব আসবে সরকারের।

এপথে পেঁয়াজ, আদা ও কাঁচামরিচ আসার সম্ভাবনাও রয়েছে বলেও জানান তিনি।

এসময়, বেনাপোল স্টেশনে পণ্য খালাসের কোন ব্যবস্থা না থাকায়, বন্দরের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বগিগুলো নিয়ে সন্ধ্যায় বেনাপোল থেকে খুলনার উদ্দেশ্যে রওনা দেয় বাংলাদেশের চালক।

বেনাপোল রেলওয়ে স্টেশনমাস্টার সাইদুর রহমান বলেন, ভারত থেকে ৪১টি বগিতে পণ্য আমদানি হয়েছে।
এবং প্রবেশের অপেক্ষায় ওপারেও আটকা পড়ে আছে শিল্পকারখানার কাঁচামাল, ফ্লাই অ্যাশ (কয়লা পোড়ানো ছাই), তুলা, পাথর, জিপসাম ও গমসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য।

উল্লেখ্য, ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় প্রতিরোধ হিসেবে গত ২৫ মার্চ থেকে বেনাপোল রেল পথে আমদানি বাণিজ্য বন্ধ করে দিয়েছিল ভারত সরকার।