সিরাজদিখানে ঘর দেয়ার কথা বলে হতদরিদ্রের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

0
6

সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে সরকারী ঘর এনে দেয়ার কথা বলে মোঃ আক্কাস (৪৫) নামে এক হতদরিদ্রের ৪৭ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে উপজেলার পশ্চিম রাজদিয়া গ্রামের মৃত তফি শেখের পুত্র নান্নু শেখ (৬২) ও একই গ্রামের মৃত ওহাব তালুকদারের ছেলে মোঃ সেলিম তালুকদার (৩৫) দের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে হতদরিদ্র মোঃ আক্কাস ইছাপুরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবর মৌখিক অভিযোগ করে প্রতিকার না পেয়ে গত (১০ মে) রবিবার সিরাজদিখান থানায় তাদের দুইজনকে বিবাদী করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। সে পশ্চিম রাজদিয়া গ্রামের মৃত কালু শেখের ছেলে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, মোঃ আক্কাস পেশায় একজন দিনমজুর। সংসারে ৩ ছেলে ১ মেয়ে নিয়ে খুব কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন তিনি। ছেলেরা প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়ায় সংসারের ঘানি তাকেই টানতে হচ্ছে। দিন মজুরের কাজ করে একবেলা খেয়ে আরেক বেলা যেন না খেয়েই কাটাতে হয় তাদের। বাড়ীতে থাকার মত ভালো কোন ঘর নেই আক্কাসের। যে ঘরটি আছে সেটি বসবাস করার যোগ্য নয়।

ভুক্তভোগী মোঃ আক্কাস বলেন, প্রায় ৫ মাস আগে নান্নু শেখ ও সেলিম আমাদের বাড়ীর লোকজনের কাছে বলে যে, সরকার থেকে ঘর বরাদ্দ এসেছে। তারা নাকি সরকারী ঘর এনে দিতে পারবে। পরে আমাকেও বলে তোমার তো ঘর নাই ৩০ হাজার টাকা দাও সরকারী ঘর তোমাকে এনে দেই। আমি মূর্খ মানুষ তাই কারো কাছে জিজ্ঞাস না করে তাকে প্রথমে ৩০ হাজার টাকা ঘরের জন্য দেই। এর এক মাস পরে নান্নু শেখ বাড়ীতে এসে বলে ঘরতো পাবেই সাথে বাথরুম ও কলও পাবে তার জন্য আরো ১৫ হাজার টাকা দিতে হবে। পরে আমি তার কথায় রাজি হয়ে তাকে আরো ১৫ হাজার টাকা দেই। এর পর সে ঘর এনে দেওয়ার জন্য খরচ হিসেবে ২ হাজার টাকা নেয়। সর্বমোট আমার থেকে সে ৪৭ হাজার টাকা নিয়েও আমাকে ঘর দেয় নাই। এ টাকা সে নিজে খেয়ে ফেলেছে। তার সাথে আরেকজন ছিল তার নাম সেলিম। আমি একটা ঘরের আশায় তাদেরকে টাকা দিলাম কিন্তু আজ পর্যন্ত একটা ঘর পেলাম না। বৌ পোলাপান নিয়া আমি ভাঙ্গা ঘরে থাকি। তারা আমার কাছ থেকে ঘর দেওয়ার কথা বলে আমার ৪৭ হাজার টাকা আতœসাৎ করেছে। আমি আমার টাকা চাইতে গেলে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি দেখায় এবং বলে ঘর এখনো আসেনি পরে আসলে ঠিকই তোকে ঘর দেওয়া হবে। আমি তাগো বিচার চাই। আমি তাদের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছি।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মোঃ সেলিম তালুকদার বলেন, আমি তার কাছ থেকে কোন টাকা পয়সা নেই নাই। টাকা নিয়েছে নান্নু। আক্কাস টাকা দিয়েছে নান্নুর হাতে। আমি এটার মধ্যে জড়িত না। আপনারা সঠিক ভাবে তদন্ত করেন এবং আক্কাসকে জিজ্ঞাসা করেন কার হাতে টাকা দিয়েছে সে। তাহলেই পেয়ে যাবেন টাকাটা কে নিয়েছে।
বাংলাদেশ মানবাধিকার উন্নয়ক কমিশন মুন্সীগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি হুমায়ুন কবীর জানান, সেলিমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এই ঘটনায় তদন্ত স্বাপেক্ষে সেলিম দোষী প্রমানিত হলে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহনে প্রশাসনকে সহযোগীতা করা হবে।

ইছাপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়্যারম্যান আব্দুল মতিন হাওলাদার বলেন, এ ব্যাপারে আমি বিস্তারিত এখনো জানতে পারি নাই। সেলিম ও নান্নু দোষী প্রমানিত হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিব।

সিরাজদিখান থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ফরিদ উদ্দিন জানান, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।