আসছে পরিচালক মাহিয়্যার প্রথম ওয়েব ফিকশন ❝তাম্মি❞

0
288
পরিচালক মাহিয়্যা

❝তাম্মি❞ আমার প্রথম পরিচালনা। ওয়েভফিকশন টি Noir জনরার।সৃজনশীল প্রোডাকশন হাউজ সিনেহাটের প্রযোজনায় আমি ফিকশন ফিল্ম টি পরিচালনা করি। ফিল্ম নোয়া নির্মাণ শৈলী সিনিক্যালহিরো, স্টার্কলাইটিংএফেক্ট, ফ্ল্যাশব্যাকের ঘন ঘন ব্যবহার, জটিল প্লট, ভায়োলেন্স,অন্তর্নিহিতঅস্তিত্ববাদ, সমাজের নানা অসঙ্গতিকেব্যাঙ্গাত্মক রূপে তুলে ধরে। আমি কিছু কি পয়েন্ট নিয়ে কাজ করেছি ফিকশনটিতে।তারমধ্যে একটা স্যাটায়ার। গতানুগতিক প্রেম ভালোবাসার বাইরে গিয়ে সোশ্যালস্যাটায়ারকে ফোকাস করেছি। মডার্ন লাইফ এবং পোস্ট মডার্নলাইফের মধ্যে বেসিক পার্থক্যটা ও এ গল্পে দেখবো।

অক্টোবরের দিকে কাজ টি মুক্তি পেতে যাচ্ছে। তবে, ঠিক কোন ওটিটি প্ল্যাটফর্মে কাজটি মুক্তি পাবে সেটা এখনো নির্ধারণ হয়নি। ঠিক হলে, আমরা সেটা জানিয়েদিবো।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর শেষ হয়েছে ওয়েবফিল্মটিরশুটিং। ফিল্মটির নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন সবার প্রিয়মুখ, গুণী অভিনেত্রী প্রার্থনা ফারদিন দিঘী।তাম্মিতে আরো আছেন এক ঝাঁক তরুণ মেধাবী মুখ নিজামুদ্দিন তামুর, মাসুম রেজওয়ান, সৌমিক বাগচী, নুফাতানহা প্রমুখ। আরো দুটো চরিত্রে অভিনয় করেছেন শুভ্র সোরখেল এবং বিজলী আহমেদ। তবে এখনি আমি কোনো ক্যারেক্টর ব্রিফ দিচ্ছিনা।

মজার বিষয় হলো আমি সহ আমার সিনেমাটির প্রধান চরিত্র , প্রধান চিত্রনির্দেশক এবং পোশাক নির্দেশক সবাই ই নারী যেটা একেবারেই কাকতালীয়ভাবে হয়েছে। তারা প্রত্যেকেই ছিলেন আমার পাওয়ার হাউজ। এই মেলবন্ধন, সহযোগীতায় আমি মুগ্ধ৷

আমার পরিচালক হওয়ার পেছনেআছে কিছুজেদ, একটা দীর্ঘশ্বাস, মানুষের সাপের ন্যায় খোলসপাল্টানোর মত স্বভাব। মনে মনেভাবতাম কিভাবে আমি মানুষকে এত সব গল্প বলবো, কিভাবে সবার কাছে পৌঁছাবো সঠিক সতর্কবার্তা।

আমার এস এসসি, এইচ এস সি বিজ্ঞান বিভাগ থেকে।এইচএসএসসিরপর মেডিকেল / ইঞ্জিনিয়ারিং এর প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। মনসুর আলী মেডিকেল কলেজে ভর্তি হবো কনফার্ম হয়েও ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করার অদম্য ইচ্ছার জেরে মেডিকেল বাদ দিয়ে দিনরাত এক করে ভর্তি প্রস্তুতি নেই কিন্তু ভর্তি পরীক্ষার আগের রাতে ঘটে আমার সাথে অপ্রত্যাশিত এক ঘটনা। আমি ভর্তি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হই। মানসিককভাবেপ্রচন্ড ভেঙে পড়ি। তরপরড্যাফোডিলইন্টারন্যাশানাল ইউনিভার্সিটির ইংরেজি সাহিত্যে কাকতালীয় ভাবে ভর্তি হই। এই ধাক্কা থেকেই আমার বৃত্তের বাইরের জীবনের সাথে পরিচয়। প্রথমে কষ্ট হয়েছিলো সাহিত্যর সাথে মানিয়ে নিতে কিন্তু একটা সময় পর সাহিত্যেই ডুবে যাই। ইংরেজি সাহিত্যে আমরা শেক্সপিয়ারেরড্রামা/ থিয়েটার লেসন থেকে শুরু করে ইন্ট্রোডাকশন টু ফিল্ম & মিডিয়া, ইন্ট্রোডাকশন টু জার্নালিজম সহ ওয়েস্টার্নফিলোসোফির মত কিছু অপশনাল কোর্স পাই। আস্তে আস্তে ভালো লাগা কাজ করতে শুরু করে কিন্তু মাস্টার্স ইন ইলটিরসাইকোলিংগুয়িস্টিক এর মত সাবজেক্টগুলোই আসলে আমার জীবনের মোড় পুরোটা বদলে দেয়। আমার ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে অকৃতকার্য হওয়ার পেছনের ঘটনা অথবা সরলরেখাচ্যুত হয়ে বক্ররেখায় জীবনের অনুপ্রবেশ ই আমাকে একজন গল্পকার বানায়। আমি লিখে ফেলি অনেক গল্প, কবিতা আর স্বপ্ন বুনিসেসবের বাস্তব রূপায়নের। স্বভাবে আমি বন্ধুত্বপূর্ণ হলেও নিজের স্বপ্ন এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কখনোই আমি আমার এবং সৃষ্টিকর্তার বাইরে যেতে দেইনা। একান্তে প্রস্তুতি নিতে থাকি। ইন্টারনেট সোর্স থেকে ফিল্ম মেকিং এর থিওরেটিকালপার্টগুলোরআরোবিস্তরলেখাপড়া করি। এক সময় বড় দুজন ডিরেক্টর এর এসিস্ট করি। হাতে কলমে শিখি অনেক কিছুই।

শুধুমাত্র রোল, ক্যামেরা, অ্যাকশন আর ক্লোজ/ টাইট, লং, মিডo/s শট কাটা নয়, ফিল্ম মেকিং একটি আপাদমস্তকব্রেইনগেইম। মাইন্ডম্যাপিং ও জরুরি। আরো শিখেছি, জেনেছি যে প্রত্যেক পরিচালকের একটা নিজস্ব ঢঙ থাকে। কেউ অনেক পেন পেপার ওয়ার্ক করে, কেউ আবার অতটা নয়। সবাই সবার ঢঙে সঠিক। ফাইনালরেজাল্ট তো পুরো গল্পকে ফিল্মে রুপান্তরিত করার পর আসে। বলে রাখা ভালো যে, ফিল্ম মেকিং এর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ সংগীত আর গান,কবিতার সাথে আমার ছোটবেলা থেকেই সখ্যতা। এখনো খেলাঘর আসরের যেকোনোউৎসবে,পার্বণে গাইতে চলে যাই। ফিল্ম মেকিংয়ের সাথে রয়েছে সংগীত, গল্প, কবিতা, সাহিত্যের অপরিহার্যতা। আমি কিছুদিন আগে বাংলাদেশ ফিল্ম & টেলিভিশন ইন্সটিটিউট থেকে ফার্স্ট সাউন্ড টেকনোলজি কোর্সটিতেকৃতকার্য হই।

আমার কর্ম বৈচিত্রতাও বেশ বিস্তর। অনার্স শেষ করার পর পর ই একটি টেক্সটাইল কোম্পানিতে ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনশিপজুনিয়রএক্সিকিউটিভ পদে কিছুদিন চাকুরিপাই এবং একটা লম্বা স্কময় ধরে তরঙ্গ নিউজের নিউজ এডিটর ডেস্ক এবং ফটোজার্নালিস্ট হিসেবে কর্মরতথাকি।এসব কিছুর মধ্যেই আমি সমানতালে প্রস্তুতি নেই পরিচালনার। অনেক কষ্ট, চাপ, এমনও হয়েছে আমি    নাঘুমিয়েঅথবামাত্র ২ঘন্টা ঘুমিয়ে পরদিন অফিস করি।আসলে জীবন এরকমই। কম্পোর্ট জোনের বাইরে গিয়েই স্বপ্নের পথে হাঁটতে হয়। মাত্র তো শুরু।পেরোতে হবে আরো অনেক বাধা বিপত্তি। দোয়া করবেন ,পাশে থাকবেন যেনো রাস্তায় থেমে না যাই। সবশেষে একটাই বলবো, নিশ্চয়ই আল্লাহ উত্তম পরিকল্পনাকারী।