নিরাপদ সড়ক চাই : সড়ক দুর্ঘটনা বৃদ্ধির কারণ ও প্রতিকার

0
50

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার: মৃত্যু অনিবার্য। কেউ তা থামাতে পারবে না। তবে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু মেনে নেওয়া কঠিন। রাত পোহালেই নতুন জীবন— বিয়ে, কিন্তু এর আগেই সড়কে প্রাণ গেলো যুবকের। ছেলেকে মাইক্রোবাসে তুলে দিয়ে বাবা বাড়ি ফিরলেন লাশ হয়ে। মাকে দেখতে বিদেশ থেকে দেশে ফিরতে পারলেও বাড়িতে পৌঁছানোর রাস্তায় হয়ে গেলো নিথর মৃতদেহ। বাংলাদেশের সড়কে এমন সব করুণ কঠিন ট্র্যাজেডির জন্ম হচ্ছে প্রতিদিন। প্রাকৃতিক দুর্যোগও মোকাবিলা করা যায়, কিন্তু সড়ক দুর্ঘটনা নামক গণমৃত্যুর এই ফাঁদ কি কিছুতেই দূর করা যায় না?

গত ২৫ জুলাই ২০২২ সোমবার রাত সাড়ে এগারোটায় রাজধানীর সাইন্সল্যাবে মোড়ে আমি সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন । আজ ২৮ দিন ধরে আমি এক্সিডেন্ট করে বিছানায় পড়ে আছি । আমার জীবন পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পঙ্গ হবার উপক্রম হয়েছে । হাসপাতাল থেকে বাসায় ফেরার পর আমার দুর্ঘটনা জায়গায় ইনফেকশন হয়েছে । এমতাবস্থায় দুটি অপারেশন করতে হবে । ১৩ আগস্ট ২০২২ রাতে ১ একটি অপারেশন হয়েছে। এখন দ্বিতীয় অপারেশন লাগবে পায়ের হাঁটুর নিচে হাড্ডি ভেঙ্গে গেছে যেটা সেই অপারেশন । সকলের নিকট দোয়া চাই । সেই সাথে মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারে ফরিয়াদ করি হে আল্লাহ তায়ালা আমাকে সাহায্য করুন আমার জীবন কে আগের মত ফিরিয়ে দিন । সেই সাথে এই ধরনের দূর্ঘটনা থেকে মুক্তি চাই ।

একটি গাড়ির ফিটনেস পরীক্ষার জন্য ৪১টি আইটেম পরীক্ষা করতে হয়। অথচ মালিক আর গাড়ি দেখেই বিআরটিএর পরিদর্শক ফিটনেস সার্টিফিকেট দিয়ে দিচ্ছেন। এ ধরনের কাজ করা হলে কখনই নিরাপদ সড়ক পাওয়া যাবে না। ফিটনেস দেওয়ার বর্তমান প্রক্রিয়া বিজ্ঞানভিত্তিক নয় মন্তব্য করে তা সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন অনেকেই। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের উদাহরণ টেনে বলা যায়, গাড়ির ফিটনেস দেবে সরকার, কিন্তু টেস্টগুলো করবে বেসরকারি কোম্পানি। সরকার ও বিআরটিএ নজরদারির ভূমিকায় থাকবে। সড়ক নির্মাণের ক্ষেত্রে সেফটি অডিট চালু হয়নি। দুই স্তরের সড়ক নির্মাণ করা হলে কম গতি ও বেশি গতির গাড়ি আলাদাভাবে চলতে পারবে। এতে দুর্ঘটনা কমে আসবে। এ ছাড়া মহাসড়কের পাশের ভূমির নিরাপদ ব্যবহার নিয়ে সরকারি সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয় করাও খুবই জরুরি।

সড়ক দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রাপ্ত তথ্য থেকে জানা যায়, ১৯৯৮ থেকে ২০১২ সাল অর্থাৎ, ১৪ বছরে সরকারি হিসাবে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ঘটেছে ৪২ হাজার ৫২৬ জনের। বেসরকারি হিসাবে এ সংখ্যা আরো বেশি। সড়ক দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে দেখানো হয়েছে গাড়ির অতিরিক্ত গতি ৫৩.২৮ ভাগ।

মোটরযান আইনে গতিসীমা নির্ধারণ করে দেওয়া থাকলেও অধিকাংশ চালকই এ নিয়ম মানেন না। মহাসড়ক, শহর ও লোকালয়ের জন্য আলাদা গতিসীমা রয়েছে। মহাসড়কে বাস, কোচ ও পিকআপের সর্বোচ্চ গতিসীমা ঘণ্টায় ৫৫ কিলোমিটার। ভারী ট্রাক, লরির গতিবেগ ৫০ কিলোমিটার। ট্রাক্টর ও অন্যান্য ভারী যানবাহনের সর্বোচ্চ গতিসীমা ৩০ কিলোমিটার। বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানোর কারণ দেখানো হয়েছে ৩৭.৩৮ শতাংশ। পথচারীদের ভুলের কারণে মৃত্যু হয় ৩.৫৬ শতাংশ এবং অন্যান্য কারণে ৫.৭৮ শতাংশ।

পুলিশের রেকর্ডে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতের আসল চিত্র উঠে আসে না। ২০১০ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা ছিল প্রায় তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার। কিন্তু পুলিশের হিসাবে আসে ১ হাজার ৯০০। বিশ্বব্যাংকের জরিপে নিহতের সংখ্যা বছরে প্রায় ১২ হাজার। কিন্তু বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার হিসাবে এ সংখ্যা ১৮ হাজার। বিশ্বব্যাংকের হিসাবে সড়ক দুর্ঘটনায় অর্থনৈতিক ক্ষতি জিডিপির ১ থেকে ২ শতাংশ। দেড় শতাংশ ধরলেও প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকা।

আইনের যথাযথ প্রয়োগ বা বাস্তবায়ন না করার কারণেই প্রতিনিয়ত সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে। এসব বিষয় নিয়ে পত্র-পত্রিকায় লেখালেখি, মানববন্ধন, আন্দোলন, মিছিল-মিটিং কম হয়নি বা হচ্ছে না। কিন্তু বাস্তবতা সম্পূর্ণ ভিন্ন। গাড়ির লাইসেন্স এবং চালকের লাইসেন্স দেওয়ার প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে দুর্নীতি। দুর্নীতির কারণে আইন থাকলেও তার প্রয়োগ যথাযথ হয় না বা হচ্ছে না। মোটর ভেহিকেল অর্ডিন্যান্স ১৯৮৩ অনুযায়ী একজন চালককে লাইসেন্স দেওয়ার আগে মহাসড়কে তার ৩৫ মিনিটের গাড়ি চালানোর পরীক্ষা ও তাত্ত্বিক পরীক্ষা নেওয়ার বিধান থাকলেও এখন তা কতটুকু পালিত হচ্ছে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

দেশে সারা বছর যত সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে এর ৩৫ শতাংশ ঘটে জাতীয় মহাসড়কের ৪ ভাগ এলাকায়। মহাসড়কের ২০৯টি স্থানকে অতি দুর্ঘটনাপ্রবণ হিসেবে চিহ্নিত করে এগুলোকে ‘ব্লাকস্পট’ নাম দিয়েছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের সড়ক দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউট (এআরআই)। এসব ব্লাকস্পটের তালিকা ২০০৯ সালেই যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ১১টি স্থান বাদ দিলে আর কোথাও তেমন কোনো কাজই হয়নি। স্পটগুলোতে সতর্কতামূলক কোনো ব্যবস্থা চোখে পড়ে না। ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের নবীনগরে জাতীয় স্মৃতিসৌধ থেকে পাটুরিয়া পর্যন্ত ৫৫ কিলোমিটার পথে মাত্র ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কের বাঁক প্রশস্ত করার মাধ্যমে দুর্ঘটনা ও হতাহতের সংখ্যা যথেষ্ট কমিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে।

সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের (সওজ) হিসাব মতে, এ মহাসড়কের ওই অংশে ২০১১ সালে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছিল ১৭৫টি। ১১টি বাঁক প্রশস্ত করার পর ২০১৩ সালে দুর্ঘটনার সংখ্যা নেমে আসে ২৫টিতে। ২০১১ সালে মারা যায় ৯৬ জন। আর ২০১৩ সালে মৃতের সংখ্যা কমে দাঁড়ায় ২৫ জনে। আহতের সংখ্যাও কমেছে প্রায় চার ভাগের তিন ভাগ। ২০১০ সালের চেয়ে ২০১২ সালেও একইভাবে দুর্ঘটনা এবং হতাহতের সংখ্যা কমেছে নবীনগর থেকে পাটুরিয়া সড়কে।

সম্প্রতি একটি গবেষণায় জানা যায়, নগরবাড়ী-বাংলাবান্ধা ৭ দশমিক ৯ কিলোমিটার, নগরবাড়ী-রাজশাহী ৬ দশমিক ৪ কিলোমিটার, দৌলতদিয়া-ঝিনাইদহ-খুলনা ৫ দশমিক ৮ কিলোমিটার, ঢাকা-সিলেট ৫ দশমিক ১ কিলোমিটার, গাজীপুর-টাঙ্গাইল-জামালপুর ২ দশমিক ৬ কিলোমিটার, বঙ্গবন্ধু সেতু সংযোগ সড়কে ১ দশমিক ২ কিলোমিটার এবং ঢাকা-ময়মনসিংহ ১ দশমিক ৬ কিলোমিটার সড়ক দুর্ঘটনাপ্রবণ হিসেবে চিহ্নিত।

সড়ক দুর্ঘটনার কারণগুলো হলো:

১. চালকদের প্রতিযোগীতামূলক মনোভাব ও বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো

২. দৈনিক-চুক্তিতে চালক, কন্ডাক্টর বা হেল্পারের কাছে গাড়ি ভাড়া দেয়া

৩. অদক্ষ ও লাইসেন্সবিহীন চালক নিয়োগ

৪. সড়কে চলাচলে পথচারীদের অসতর্কতা

৫. বিধি লঙ্ঘন করে ওভারলোডিং ও ওভারটেকিং

৬. দীর্ঘক্ষণ বিরামহীনভাবে গাড়ি চালানো।

৭. ত্রুটিপূর্ণ গাড়ি চলাচল বন্ধে আইনের যথাযথ প্রয়োগের অভাব

৮. জনবহুল এলাকাসহ দূরপাল্লার সড়কে ট্রাফিক আইন যথাযথভাবে অনুসরণ না করা

৯. সড়ক-মহাসড়কে মোটরসাইকেলসহ তিন চাকার যানবাহন চলাচল বৃদ্ধি এবং

১০. স্থানীয়ভাবে তৈরি ইঞ্জিনচালিত ক্ষুদ্রযানে যাত্রী ও পণ্য পরিবহন।

নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে বলেন, শুধু কঠোর আইন প্রণয়ন করে সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করা সম্ভব না। এজন্য সুষ্ঠু পরিকল্পনার মাধ্যমে সড়কখাতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, আইনের যথাযথ প্রয়োগ যেমন দরকার, তেমনি আইন সবার জন্য সমানভাবে প্রযোজ্য হতে হবে। সে ক্ষেত্রে গণপরিবহনখাতে বিরাজমান নৈরাজ্য ও বিশৃঙ্খলার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট সকল মহলকে সোচ্চার করে তোলা অপরিহার্য। এছাড়া যাত্রী ও পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে সড়কের ওপর অধিক নির্ভরশীলতা কমাতে নৌ ও রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্প্রসারিত ও আধুনিকায়ন করতে হবে বলে মন্তব্য করেন আশীষ কুমার দে ।

একটি গোয়েন্দা সংস্থার সাম্প্রতিক প্রতিবেদনেও বলা হয়েছে, দেশে সড়ক দুর্ঘটনার বড় কারণ প্রশিক্ষিত গাড়িচালকের অভাব। গাড়িচালকদের বেশিরভাগের কাছে নেই বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স। এ অবস্থায় ছয় লাখ অবৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স জব্দ করাসহ বিভিন্ন সুপারিশ করেছে সংস্থাটি। সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার ও দ্রুত চিকিৎসা দেওয়ার কোনো ব্যবস্থা গড়ে ওঠেনি।
চলমান চিত্রে…. ।।

পরিশেষে সকলের নিকট দোয়া চাই দোয়া করবেন আমার জন্য।
মহান আল্লাহ তায়ালা যেন আমাকে পরিপূর্ণ ভাবে সুস্থ দান করে পুণরায় আবারও সকলের মাঝে ফিরিয়ে দেন আমিন ।

লেখক:- মানবাধিকার সংগঠক |√| বিশেষ প্রতিনিধি নয়াদেশ |√| ও প্রকাশক বাংলাদেশ জ্ঞান সৃজনশীল প্রকাশনা |√|