সকাল ১১:৪৩ রবিবার ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

মিষ্টিতে ক্ষতিকর হাইড্রোজ; স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে লালমনিরহাটবাসী

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : নভেম্বর ২০, ২০১৮ , ১০:৪০ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : রংপুর
পোস্টটি শেয়ার করুন

আসাদুল ইসলাম সবুজ, লালমনিরহাট: লালমনিরহাটের সর্বত্র বেকারি ও বিভিন্ন রকমারি দোকানে মিষ্টি জাতীয় খাবারে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। এসব মিষ্টি জাতীয় খাবারে ক্ষতিকর কেমিক্যাল হাইড্রোজ দেদারছে ব্যবহার করছে ব্যবসায়ীরা। ফলে ক্যান্সার, পাকস্থলী, লিভার, কিডনিসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য ঝুঁকি রোগে আক্রান্ত হচ্ছে জেলাবাসী।

জানা যায়, লালমনিরহাট জেলা সদরসহ আদিতমারী, কালীগঞ্জ, হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলা জুড়ে অধিক মুনাফার আশায় বেকারি পণ্যসহ মিষ্টি জাতীয় খাবারে ক্ষতিকর কেমিক্যাল হাইড্রোজ ব্যবহার করছে ব্যবসায়ীরা। তারমধ্যে লালমনিরহাট জেলা শহরে বেশকিছু নতুন মিষ্টির দোকান গজিয়ে উঠেছে।

মিষ্টির দোকানগুলোতে নেই তেমন কোন পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন। দোকানের মালিক ও বয় থেকে শুরু করে খাবার পরিবেশনের সামগ্রী নোংরা, মশা, মাছি ভো-ভো করছে। তাছাড়াও মিষ্টি জাতীয় খাবারে ক্ষতিকর কেমিক্যাল হাইড্রোজ ব্যবহার ও খাবার পরিবেশনের সামগ্রী নোংরা হওয়ায় ক্যান্সার, পাকস্থলী, লিভার, কিডনিসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য ঝুঁকি রোগে আক্রান্ত হচ্ছে জেলাবাসী। হাইড্রোজ কাপড়ের রং সাদা করতে ব্যবহৃত হয়। অথচ সেই রং স্বাস্থ্যর জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর হলেও ব্যবসায়ীরা বেশি লাভের আশায় মুড়ি, আখের গুড়, জিলাপী, মিষ্টি ও বেকারি পণ্যে হাইড্রোজ ব্যবহার করছে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীরা। ক্রেতার দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য মুড়ির রং সাদা করতে ব্যবহার করা হচ্ছে হাইড্রোজ বা ইউরিয়া। আখের রস দিয়ে তৈরি গুড়ের লালচে রং সাদা করতে ব্যবহার করা হচ্ছে হাউড্রোজ। জিলাপীর খামির জমতে বেশ সময় লাগে। কিন্তু দোকনদাররা অল্প সময়ে জিলাপী বানাতে খামিরে হাইড্রোজ মেশায়। বেকারি মালিকরা হরেক করমের সাদা বিস্কুট তৈরি করতে ব্যবহার করে ক্ষতিকর হাউড্রোজ। ময়দার তৈরি বিস্কুট সাদা না হওয়ায় তারা অতিমাত্রায় এই হাউড্রোজ ব্যবহার করছে। যা স্বাস্থ্যর জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. কাশেম আলী বলেন, খাদ্যে ব্যবহৃত হাইড্রোজ ক্যানসার সৃষ্টির জন্য দায়ী। এছাড়া এই উপাদান পাকস্থলী, লিভার, কিডনিতে জটিল রোগ সৃষ্টি করতে পারে।

লালমনিরহাট চেম্বার অব কমার্সের সাবেক সভাপতি শেখ আব্দুল হামিদ বাবু বলেন, খাদ্য দ্রব্যে হাইড্রোজ আছে তা তাৎক্ষণিক শনাক্ত করার কোনো ব্যবস্থা নেই। তবে পরীক্ষা করলে খাদ্যে নিষিদ্ধ হাইড্রোজ ব্যবহারের অস্তিত্ব পাওয়া যাবে।

Comments

comments