খেলাধুলা

মাশরাফিকে আমরা চাই’ : মাহমুদুল্লাহ

নিজের অধিনায়কত্বে প্রথম টেস্ট জয়, ম্যাচে মুশফিকুর রহিমের ডাবল সেঞ্চুরি, ৮ বছর ৮ মাস পর নিজের টেস্ট সেঞ্চুরি, দলও জিতেছে ২১৮ রানের বিশাল ব্যবধানে। সব মিলিয়ে একটা চওড়া হাসি থাকার কথা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের। কিন্তু ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে আসলেন মুচকি হাসি নিয়ে। উত্তর দিতে হলো অনেক কঠিন কঠিন প্রশ্নের। তার প্রধান কারণ ছিল প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ের সঙ্গে ঘরের মাঠে টেস্ট সিরিজ সমতা। অপেক্ষাকৃত দুর্বল জিম্বাবুয়ের থেকে টেস্ট ম্যাচের ট্রফি রেখে না দিতে পারার ব্যর্থতার ভার কোনোভাবেই নেবে না ঢাকা টেস্ট।
মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে পুরোপুরি প্রভাব বিস্তার করেই হরিয়েছে প্রতিপক্ষকে। ৫ দিন রীতিমতো ছড়ি ঘুড়িয়ে ২১৮ রানের ব্যবধানে নাস্তানাবুদ করেছে সফরকারীদের। যত দায় সব সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামের প্রথম টেস্ট ম্যাচটি।
বিশেষ করে বলতে হবে ব্যাটসম্যানদের। সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে সেই দায় এড়াননি সাকিব আল হাসানের অনুপস্থিতে ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। প্রথম ও দ্বিতীয় টেস্টের পার্থক্য নিয়ে অধিনায়ক জানান, ‘বাংলাদেশ প্রত্যাশিত জয় পেয়েছে। প্রথম টেস্টে পারফরমেন্স ভালো ছিল না, ব্যাটিংয়ে শৃঙ্খলা বোধ অনেক কম ছিল। এ টেস্টে সে ঘাটতি কমেছে অনেক এবং নিজেদের সামর্থ্যের প্রমাণ দিয়েছে।’  সিরিজ সমতার এই জয়কে অন্যান্য জয়ের মতোই আনন্দের বলে জানান ৩২ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডার , ‘‘যদি আপনি ম্যাচ জয় করেন তাহলে অবশ্যই আপনার আনন্দ লাগা উচিত। ম্যাচ জিতলে অধিকার থাকে আনন্দ প্রকাশ করার। আমরা যখন খারাপ খেলি, ড্রেসিং রুমে মনটা আমাদেরই বেশি খারাপ হয়। আমাদের চোখের পানিটা কেউ দেখে না। আমরা এটা কাউকে বলিও না।’ সংবাদ সম্মেলনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিল ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফির বিন মুর্তজার জাতীয় নির্বাচনের জন্য আসন্ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে দলের সঙ্গে থাকা না থাকা নিয়ে প্রশ্ন। ম্যাচ শেষে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি  নাজমুল হাসান পাপন জানান, নির্বাচনী প্রচারণার জন্য অনিশ্চিত মাশরাফি।
এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে সোজা সাপটা উত্তর মাহমুদুল্লাহর,  মাশরাফিকে চায় দল, ‘ইনশাআল্লাহ মাশরাফি ভাইকে পাব, আশা করি। কারণ তিনি আমাদের ওয়ানডে অধিনায়ক। তিনি যদি সুস্থ থাকেন, অবশ্যই ওনাকে আমাদের মাঝে পাব। আর ওনাকে আমরা চাই। বিশ্বকাপের আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গেই শেষ ওয়ানডে সিরিজ বাংলাদেশের। বিশ্বকাপই যদি মাশরাফির শেষ টুর্নামেন্ট হয় তবে ওয়ানডে অধিনায়কের জন্য এটি ক্যারিয়ারের শেষ সিরিজ। ৯ ডিসেম্বর থেকে শুরু হতে যাওয়া সেই ওয়ানডে সিরিজে ম্যাশের কোটি সমর্থকরা বল হাতে দেখতে পারবেন কিনা তা সময়ই বলে দেবে।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.