দেশজুড়ে

নাটোরের সাবেক সংসদ সদস্য সাইফুল ইসলামের দাফন সম্পন্ন


জেলা প্রতিনিধি, নাটোরঃ নাটোরের সাবেক সংসদ সদস্য প্রবীণ আওয়ামীলীগ নেতা এ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলামের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন হয়েছে। রোববার রাত ১০ টায় পটুয়াপাড়া জামে মসজিদ প্রাঙ্গনে তাঁর জানাজা শেষে নাটোর শহরের গাড়িখানা কেন্দ্রীয় গোরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়। এর আগে বিকেলে ৪টার দিকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যু বরণ করেন। জেলার নলডাঙ্গার এই কৃতি সন্তান ছিলেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর, মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও নাটোর জজ কোর্টের আইনজীবী।

প্রবীণ এই আ.লীগ নেতা এ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী ছিলেন । ১৯৬০ সালে রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের সদস্য হিসেবে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। ১৯৬৩ সালে রাজশাহী কলেজ ছাত্রসংসদের ভিপি নির্বাচিত হন । ১৯৬৫ সালে ছিলেন বৃহত্তর রাজশাহী জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন । ১৯৬৯ সালে গণ-অভ্যূত্থানে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন তিনি। ঐতিহাসিক ছয় দফা আন্দোলনের সময়েও তিনি ছিলেন রাজনীতির মাঠে। ১৯৭০ সালে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে জনমত সংগঠনে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে একজন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসেবে কাজ করেছেন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় পুরোটাই যুদ্ধের মাঠে কাটিয়েছেন । ১৯৭৩ সালে মাত্র ২৬ বছর বয়সে স্বাধীন বাংলাদেশের বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে গঠিত সংসদের কনিষ্ঠতম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। জাতীয় চার নেতার একনেতা এইচ, এম কামরুজ্জামান হেনার দক্ষিণহস্ত হিসেবে পরিচিত ছিলেন সাইফুল ইসলাম। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালরাত পরবর্তী সময়ে পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে। তাঁকে কিছুদিন কারাভ্যন্তরে থাকতে হয়।

নাটোরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে যাঁরা নিবেদিতপ্রাণ বলে পরিচিত তাদের মধ্যে সাইফুল ইসলাম অন্যতম প্রধান। সকল প্রতিকূলতার মধ্যেও আওয়ামী লীগের রাজনীতি ছাড়েননি তিনি। তাঁর চেষ্টায় গড়ে উঠেছে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। নাটোরের পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ হিসেবে যাঁদের সুনাম রয়েছে, তিনি তাঁদের অন্যতম একজন। গত ২৩ জানুয়ারী মস্তিস্কে রক্তক্ষরণ জনিত কারণে তিনি ঢাকার শেরেবাংলা হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। এরপর একটু সুস্থ হলে তাঁকে নাটোরে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। এরপর আবার অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁকে আবারো রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

সাইফুল ইসলামের মৃতুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী ও নাটোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট জুনাইদ আহমেদ পলক, সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুল, সংরক্ষিত আসনের (নাটোর ও নওগাঁ) সংসদ সদস্য রত্না অহমেদ , নাটোর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বকুল, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট সাজেদুর রহমান, জজ কোর্টের পিপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও নাটোর পৌরসভার মেয়র উমা চৌধুরী জলি,সাবেক এমপি ও জেলা জাতীয়পাটির সভাপতি মজিবুর রহমান সেন্টু, সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপির কেন্দ্রিয় সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু প্রমুখ সাবেক সংসদ সদস্য সাইফুল ইসলামের মৃত্যুতে গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেন।


এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button