সন্ধ্যা ৭:২৬ বুধবার ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

যশোরের বাগআঁচড়া ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের মতবিনিময় | কাঠালিয়ায় মাদকদ্রব্য উদ্ধারে সহায়তা করায় গ্রাম পুলিশকে পুরুস্কৃত করলেন ওসি | পলাশবাড়ীতে ৬৫ বোতল ফেন্সিডিল সহ এক মহিলা আটক | বীরগঞ্জে সাপের কামড়ে কিশোরের মৃত্যু | মির্জাপুরে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু | বীরগঞ্জে ছিনতাইকারী ডলার চক্রের প্রতারক ওসি পরিচয়দানকারী গ্রেফতার | পরিচ্ছন্নকর্মীর জন্য গাবতলী সিটি পল্লীতে আবাসনের ব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে: মেয়র আতিকুল | বাজারে এলো ৫ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারিযুক্ত ‘অপো এ৯ ২০২০’ | ক্যাশ রিসাইক্লিং মেশিন উদ্বোধন করলো ইসলামী ব্যাংক | প্রিমিয়ার ব্যাংক এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর |

আসামের পর ত্রিপুরাতেও নাগরিক নিবন্ধন?

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ১৮, ২০১৮ , ৯:৩২ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : আন্তর্জাতিক
পোস্টটি শেয়ার করুন

 

ত্রিপুরার জন্য জাতীয় নাগরিক নিবন্ধন (এনআরসি) চেয়ে করা আবেদনের জের ধরে সুপ্রিম কোর্ট গত ৮ অক্টোবর কেন্দ্র ও নির্বাচন কমিশনের কাছে একটি নোটিশ পাঠিয়েছে। আবেদনটি দায়ের করেছে ত্রিপুরা পিপলস ফ্রন্ট ও অন্যরা। তারা আসামের মতো জনগণনা চেয়েছে। অবৈধ অভিবাসীদের শনাক্ত করার লক্ষ্যেই এনআরসির উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল আসামে।

 

২০০ পৃষ্ঠার আবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ থেকে অবৈধ অভিবাসীদের ঢলের কারণে ত্রিপুরার উপজাতীয় অধিবাসীরা সংখ্যালঘুতে পরিণত হয়েছে, তাদের জীবিকা ক্ষুণ্ন হচ্ছে, তাদের সংস্কৃতি বিলীন হওয়ার মুখে পড়েছে। আবেদনে বলা হয়, আসামের মতো ত্রিপুরাতেও অবৈধ অভিবাসী একটি বড় সমস্যা। আবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ থেকে অভিবাসীদের অব্যাহত প্রবাহ ‘বহিরাগত আগ্রাসনের’ চেয়ে কম কিছু নয়। ফলে রাষ্ট্রের দায়িত্ব তার নাগরিকদের সুরক্ষিত রাখা।

আবেদনে ২০০৫ সালের সর্বনানন্দ সনোয়াল বনাম ইউনিয়ন অব ইন্ডিয়া মামলার সূত্রও ব্যবহার কর হয়। তাতে বাংলাদেশ থেকে আসা অভিবাসীদেরকে ‘বহিরাগত আগ্রাসন’ হিসেবে অভিহিত করা হয়।ভারতীয় জাতীয়তা আইন অনুযায়ী, পাকিস্তান ও পূর্ব পাকিস্তান থেকে কেউ যদি ১৯৪৮ সালের ১৯ জুলাইয়ের আগে ভারতে প্রবেশ করে থাকে তবে সে ভারতের নাগরিক বিবেচিত হবে। ত্রিপুরার আবেদনকারীরা জানিয়েছে, ওই তারিখ থেকেই অবৈধ অভিবাসীর বিষয়টি ফয়সালা হওয়া উচিত। সুপ্রিম কোর্ট এখন কেন্দ্র সরকারকে সে দিকেই দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

 

সীমান্ত রাজ্য

 

সীমান্ত রাজ্য হিসেবে আসাম ও ত্রিপুরা বিভক্তি-পরবর্তী একই অবস্থার মুখে পড়ে। এসব এলাকায় দীর্ঘ দিন ধরে লোকজন বিনিময় ঘটে।প্রথমত সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার কারণে অব্যাহতভাবে অভিবাসন চলতে থাকে। ১৯৫০ সালেই প্রায় ১০ লাখ হিন্দু পূর্ব পাকিস্তান বা পূর্ব বঙ্গ থেকে সীমান্ত অতিক্রম করে। এর জের ধরে ১৯৫০ সালের এপ্রিলে ভারতের প্রধানমন্ত্রী জওহেরলাল নেহরু ও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলী খান নেহরু-লিয়াকত চুক্তি করেন।

 

এতে সংখ্যালঘুদের অধিকার স্বীকার করে নেয়া হয়। এতে অবাধে চলাচল, ট্রানজিট সুরক্ষা, পূর্ণ নাগরিক অধিকারের স্বীকৃতি দেয়া হয়। এতে বলা হয় ১৯৫০ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে এসব অভিবাসী তাদের মূল বাড়িঘরে ফিরে যাবে। তাদের জমি ও সম্পত্তি ফিরিয়ে দেয়ার কথা বলা হয়। গবেষকেরা বলেন, এই চুক্তি আসলে নাগরিকত্ব নির্ধারণের ১৯৪৮ সালের তারিখটিকে বাতিল করে দেয়।ভারতের প্রথম আদমশুমারি হয় ১৯৫১ সালে। ওই সময় আসামে প্রথম নাগরিক নিবন্ধন হয়। আর রাজন্য শাসিত ত্রিপুরা ভারতের অন্তর্ভুক্ত হয় ১৯৪৯ সালে। তারা রাজ্যের মর্যাদা পায় ১৯৭২ সালে।

 

 

তবে পরের দুই দশকেও অভিবাসন চলতে থাকে। বিশেষ করে ১৯৬৫ সালের যুদ্ধের পর হিন্দুরা বিপুল সংখ্যায় সেখানে পাড়ি জমায়। অবৈধ অভিবাসীদের ঢল অব্যাহত থাকার জের ধরেই ছয় বছর সহিংস আন্দোলনের পর আসামে নগারিক নিবন্ধনের ব্যবস্থা করা হয়।আসাম চুক্তি অনুযায়ী, ১৯৬৬ সালের আগে যারা সেখানে প্রবেশ করেছে, তারা ভারতীয় নাগরিক বিবেচিত হবে। আর যারা ১৯৬৬ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ত সময়ের মধ্যে প্রবেশ করেছে তারা বিদেশী বিবেচিত হলেও ১০ বছর ভারতে থাকলে দেশে থাকার অধিকার পাবে, তবে ভোটাধিকার হারাবে। আর যারা প্রমাণ করতে পারবে না যে তাদের পূর্বপুরুষেরা ১৯৭১ সালের আগে ভারতে প্রবেশ করেছে তাদেরকে অবৈধ বিবেচনা করা হবে।ত্রিপুরার আবেদনকারীরা কিন্তু আরো কঠিন ব্যবস্থা চাচ্ছেন। তারা ১৯৪৮ সালের পরে যারা ত্রিপুরায় গেছে, তাদের সবাইকে অবৈধ হিসেবে ঘোষণা করার আবেদন করেছে।ত্রিপুরায় অনেক দিন ধরেই ‘আদিবাসী’ ও ‘বাঙালি’দের মধ্যে উত্তেজনা চলছে।

 

 

বিপজ্জনক খেলা

 

ত্রিপুরা তিন দিকে বাংলাদেশ দিয়ে ঘেরা। ১৯০১ সালেএর উপজাতীয় জনসংখ্যা ছিল ৫২ ভাগ, ১৯৫১ সালে কমে হয় ৩৭.২ ভাগ। আর ১৯৭১ সালে কমে হয় ২৮.৯ ভাগ। এর পর থেকে অবস্থা স্থিতিশীল হয়, এমনকি আদিবাসীদের সংখ্যা কিছুটা বেড়েওছে। ২০১১ সালে তা দাঁড়ায় ৩১.৮ ভাগ।অবৈধ অভিবাসীদের কারণে ত্রিপুরার লোকজনের জমি, পরিচিতি ও জীবিকা হুমকির মুখে পড়ায় তারা এখন উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে।

 

 

তার উদ্বেগ যৌক্তিক হলেও রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক পদক্ষেপ গ্রহণ না করে আমলাতান্ত্রিক জটিলতার সৃষ্টি করা হচ্ছে।আসামেও আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে ৪০ লাখ লোকের মৌলিক নাগরিক অধিকার হুমকির মুখে পড়েছে। আর উগ্রবাদীরা নানা হুমকি দিয়ে আসছে। এমনকি বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ পর্যন্ত ‘অবৈধ’ অভিবাসীদের দেশ থেকে ছুড়ে ফেলার হুমকি দিয়েছেন। সুপ্রিম কোর্ট যখন কেন্দ্রকে নোটিশ পাঠিয়েছে, তখন ত্রিপুরাতেও এনআরসি হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।

Comments

comments