জাতীয়

খাবার কিনবে নাকি করোনা মোকাবিলায় মাস্ক-জীবাণুনাশক কিনবে

  • 4
    Shares

করোনাভাইরাসের কারণে অর্থনৈতিক সংকটে মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তের খাদ্য সংকট বেড়েছে। আর্থিক টানাপোড়েনের এই সময়ে কোভিড-নাইনটিন মোকাবিলায় মাস্ক, জীবাণুনাশক নাকি খাবার কিনবে তা নিয়ে দোলাচলে মানুষ।

করোনা প্রাদুর্ভাবের মধ্যেই লকডাউন শিথিল করতে শুরু করেছে ঝুঁকিতে থাকা এশিয়ার কয়েকটি দেশ। তবে, সবার মাস্কের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। একই পথে হাঁটছে ভারত, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও বাংলাদেশ। কিন্তু উন্নয়নশীল দেশগুলোর নাগরিকদের বড় একটি অংশ অর্থকষ্টের কারণে বিপাকে পড়ছেন।

একজন শ্রমিক বলেন, আমি সারাদিন কাজ করে মাত্র এক ডলার উপার্যন করতে পেরেছি। আমি পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী। এই টাকা দিয়ে মাস্ক কিনলে খাদ্য কিনতে পারব না। বেঁচে থাকার জন্য আমার পরিবারের আগে খাদ্যের নিশ্চয়তা প্রয়োজন।

সার্ক চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি গবেষণা পরিচালক ড. ইমরান আলি বলেন, দক্ষিণ এশিয়ায় লকডাউন অনেকের জীবন বাঁচিয়েছে। কিন্তু এতে মধ্যবিক্ত ও নিম্নবিক্তরা আর্থিক সংকটে পড়েছেন। তাদের বেঁচে থাকার জন্য সহায়তার প্রয়োজন। দক্ষিণ এশিয়ার বেশিরভাগ মানুষ বাসায় থাকলে খাদ্য সংকট আর বাইরে গেলে কোভিড-নাইনটিনের ভয়ের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে।

অন্যদিকে, একজন দিন মজুরের দৈনিক আয়ের চেয়ে বর্তমানে মাস্ক ও জীবণুনাশকের খরচ বেশি। আবার করোনার এই সময়ে পুষ্টিকর খাবার কেনার সামর্থ্য হারিয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার অর্ধেকের বেশি মানুষ।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ দক্ষিণ এশিয়ার বিষয়ক প্রধান মিনাক্ষ্মী গাঙ্গুলী বলেন, করোনাভাইরাস ধনী-গরিব, জাতি গোষ্ঠীর ধার ধারে না। দক্ষিণ এশিয়ার জনগণের বড় একটি অংশ দরিদ্র। এমন পরিস্থিতিতে মানুষের করোনা প্রতিরোধে যেমন মাস্ক প্রয়োজন তেমনি খাদ্য ও মৌলিক চাহিদা মেটানো বড় চ্যালেঞ্জ।

মাস্ক আর খাদ্যের মধ্যে যে কোন একটিকে বেছে নিতে হচ্ছে মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত মানুষদের। নাগরিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার পাশাপাশি খাদ্য সুরক্ষা দেয়াও বড় চ্যলেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে এশিয়ার সরকারগুলোর জন্য।


  • 4
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button