রাত ১:৪৭ সোমবার ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য ইসি মাহবুবের ৫ প্রস্তাব

নিউজ ডেস্ক | তরঙ্গ নিউজ .কম
আপডেট : অক্টোবর ১৫, ২০১৮ , ১০:০০ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

 

কমিশন সভায় উত্থাপন করতে না পারলেও সিইসির কাছে দেওয়া কমিশনার মাহবুব তালুকদারের দ্বিতীয় দফায় সংশোধিত প্রস্তাবে পাঁচটি বিষয়ে আলোচনার কথা বলা হয়েছে। এর আগে প্রথম দফায় দেওয়া প্রস্তাব সংশোধন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। যদিও এই প্রস্তাব তিনি সভায় উত্থাপন করতে পারেননি।তার এ প্রস্তাবে জাতীয় নির্বাচনে সেনাবাহিনী কীভাবে দায়িত্ব পালন করবে, তা আগে থেকেই নির্ধারণ করা, অংশীজনদের সঙ্গে ইসির সংলাপে আসা সুপারিশগুলো নিয়ে তফসিলের আগে সরকারের সঙ্গে আলোচনা করা, সবার জন্য সমান সুযোগ নিশ্চিত করা, নির্বাচনকালীন জনপ্রশাসন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব ইসির হাতে নেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

 

 

তবে সোমবারের কমিশন সভায় আলোচনার সুযোগ না পেয়ে মাহবুব তালুকদার সভা শুরুর কিছুক্ষণের মধ্যেই নোট অব ডিসেন্ট দিয়ে সভা বর্জন করেন। এর আগে ইভিএমের বিরোধিতা করে ৩০ আগস্টের সভাও বর্জন করেছিলেন মাহবুব তালুকদার।তার প্রস্তাবে নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন বিষয়ে বলা হয়, ইসি আয়োজিত সংলাপে ২৬টি দল সেনা মোতায়েনের পক্ষে ও তিনটি দল বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছিল। স্বাধীনতার পর সব নির্বাচনে সেনা মোতায়েন হয়েছে। তবে নির্বাচনে সেনা মোতায়েন হলেও তারা কীভাবে দায়িত্ব পালন করবে, তা গুরুত্বপূর্ণ। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সংজ্ঞা থেকে সেনাবাহিনীকে বাদ দেওয়ার পর বিদ্যমান পরিস্থিতিতে তাদের কার্যপরিধি আগেই নির্ধারিত হওয়া উচিত।

 

 

দ্বিতীয়ত, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন সম্পর্কে প্রস্তাবে বলা হয়, সংসদ নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করা এখন সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ২০১৪ সালের নির্বাচনে ১৫৩ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে দেখা গেছে। একটি দল (জাতীয় পার্টি) বর্জনের ঘোষণা দিয়েও পরে নির্বাচনে অংশ নেয়। তারা পরে একাধারে বিরোধী দল হিসেবে নিজেদের দাবি করে, আবার সরকারে অংশ নিয়ে মন্ত্রিসভায়ও যোগ দেয়। এ অবস্থায় সরকারে ও বিরোধী দলে থেকে সংসদের দায়িত্ব পালন করা যায় কি-না তা নিয়ে প্রশ্ন থেকে যায়। নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হলে ভোটে অনিয়ম বন্ধ হওয়ার পথ উন্মুক্ত হতে পারে। এ জন্য নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক করতে ইসির পক্ষ থেকে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। কারণ একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও শুদ্ধ নির্বাচনই জাতির প্রত্যাশা। এতে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ইসির সরাসরি আলোচনার প্রস্তাব দিয়ে বলা হয়, এমন উদ্যোগ দলগুলোর মধ্যে সমঝোতা না হলেও নির্বাচনী পরিবেশ তৈরিতে অবদান রাখবে। তিনি আরও উল্লেখ করেন, সংবিধানে এ সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট কিছু বলা না হলেও সংবিধানের স্পিরিট হচ্ছে গণতন্ত্রের জন্য অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন।

 

 

তৃতীয়ত, নির্বাচনে নিরপেক্ষতা প্রসঙ্গে প্রস্তাবে তিনি বলেন, ভোটে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করা নির্বাচনের পূর্বশর্ত। সংসদ বহাল রেখে এমপিদের নিষ্ফ্ক্রিয় করার ঘোষণা দিলেই কি লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করা সম্ভব? জনপ্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনকে নির্বাচন কমিশনের কাছে ন্যস্ত করলেও দেশের বাস্তবতা সম্পূর্ণ ভিন্ন। অতীতে নিরপেক্ষতা ভঙ্গের জন্য প্রশাসন ও পুলিশের বিরুদ্ধে ইসি কি ব্যবস্থা নিতে পেরেছে- তাও প্রশ্নসাপেক্ষ। নির্বাচনের নিরপেক্ষতা শুধু ইসির একার নয়; সরকারের ভূমিকার ওপর নির্ভরশীল। সরকার চাইলেই শুধু লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করা সম্ভব।

 

 

প্রস্তাবে বলা হয়, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনার ক্ষেত্রে ক্ষমতাসীন দল যে সুবিধা ভোগ করছে; বিরোধী দল সংবিধানে দেওয়া অধিকার তুলনামূলক তেমন ভোগ করতে পারছে না। শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক কর্মসূচিতেও তাদের বাধা দেওয়া হচ্ছে। বিরোধী দলের কমিটি ধরে ধরে মামলা দায়ের বা গায়েবি মামলা লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের ধারণা প্রশ্নবিদ্ধ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তফসিল ঘোষণার আগে ইসির কার্যকরভাবে কিছু করার সুযোগ না থাকলেও সব পক্ষের প্রতি সমআচরণের স্বার্থে ইসি বিবৃতির মাধ্যমে বিষয়টি সরকারের দৃষ্টিগোচর করতে পারে।

 

 

চতুর্থত, ইসির সক্ষমতা বাড়ানো প্রসঙ্গে প্রস্তাবে বলা হয়েছে, সংলাপে অনেক দল ইসির সক্ষমতা বাড়ানোর ওপর জোর দিয়েছিল। এ বিষয়ে মাহবুব তালুকদার তার প্রস্তাবে বলেছিলেন, আইনগতভাবে ইসির ক্ষমতা যথেষ্ট। কিন্তু ক্ষমতা থাকা আর ক্ষমতা প্রয়োগের সক্ষমতা ভিন্ন কথা। বর্তমান রাজনৈতিক বাস্তবতায় ইসি অনেক ক্ষেত্রে ইচ্ছানুযায়ী ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারে না। এর প্রধান কারণ, আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো কাগজপত্রে ইসির অধীনে ন্যস্ত হলেও বাস্তবে কমিশন তাদের ওপর খুব একটা নিয়ন্ত্রণ আরোপ করতে পারে না। বিগত সিটি করপোরেশন নির্বাচনগুলোতে বিষয়টি খুবই স্পষ্ট হয়েছে। রাজনৈতিক বাস্তবতায় নির্বাচন-সংশ্নিষ্ট অন্য ব্যক্তিরাও ইসির দায়িত্ব পালনে অনীহা দেখিয়েছে।

 

 

সংলাপের সুপারিশে অংশীজনদের অনেকে নির্বাচনকালে জনপ্রশাসন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সরাসরি ইসির অধীনে ন্যস্ত করার কথা বলেছেন। বিষয়টি বিতর্কিত তবে বিবেচনাযোগ্য। ইসির কাছে জনপ্রশাসন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব থাকলে জাতীয় নির্বাচনে জনগণের আস্থা বাড়বে এবং অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনে তা সহায়ক হবে।পঞ্চম প্রস্তাবে সরকারের সঙ্গে সংলাপ প্রসঙ্গে বলা হয়েছে, সংলাপে আসা কিছু সুপারিশ রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করে বলে দেখা গেছে। এসব সুপারিশ বাস্তবায়নযোগ্য মনে হলে তফসিল ঘোষণার আগেই ইসির উচিত সরকারের সঙ্গে সংলাপ করা। জনমনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ জাতীয় নির্বাচনের আস্থা তৈরি করতে সরকার ও ইসির একসঙ্গে কাজ করা প্রয়োজন।মাহবুব তালুকদার বলেন, নির্বাচন বিষয়ে কমিশনকে জনগণের আস্থা অর্জন করতে হবে। প্রত্যেক ভোটার যাতে নির্বিঘ্নে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে নিজের ইচ্ছা অনুযায়ী ভোট দিয়ে নিরাপদে বাসায় ফিরতে পারেন- এই নিশ্চয়তা দেওয়ার মাধ্যমে ইসির আস্থা অর্জন সম্ভব।

Comments

comments