লাইফস্টাইল

সংক্রমণের লক্ষণ ও নিজেকে রক্ষার উপায়

  • 3
    Shares

নভেল করোনাভাইরাস ফুসফুসকে সংক্রমিত করে। আর এতে দুটি প্রধান লক্ষণ হলো জ্বর বা শুকনো কাশি। এগুলো শ্বাসকষ্ট বা নিশ্বাসের দুর্বলতার কারণ হতে পারে। ক্রমাগত কাশিকে নতুন মনে হবে। এটার অর্থ ১ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে কাশি বা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তিন বা ততোধিক এমন ক্রমাগত কাশি। আপনার যদি সাধারণ কাশি থাকে, তবে এটা স্বাভাবিকের চেয়ে খারাপ হতে পারে। এছাড়া আপনার তাপমাত্রা ৩৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস হবে এবং এটা উষ্ণ, ঠাণ্ডা বা শিহরণ অনুভূতি তৈরি করতে পারে।

এসব লক্ষণের পাশাপাশি শরীর ঠাণ্ডা হয়ে যাওয়া, ঠাণ্ডার সঙ্গে বারবার কাঁপুনি, পেশি, মাথা ও গলা ব্যথা এবং স্বাদ ও গন্ধের অনুভূতি হ্রাসের মতো লক্ষণ দেখা দিতে পারে। লক্ষণগুলো প্রকাশ হতে গড়ে পাঁচদিন সময় লাগে। তবে কিছু মানুষের ক্ষেত্রে এগুলো পরেও দেখা দেয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলছে, ইনকিউবেশন পিরিয়ড ১৪ দিন পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে।

প্রাণঘাতী এ নভেল করোনাভাইরাস থেকে বাঁচার সবচেয়ে কার্যকরী উপায় হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে নিয়মিত হাত ধোয়াকে। সাবান ও পানি দিয়ে নিয়মিত এবং অন্তত ২০ সেকেন্ড সময় ধরে পুঙ্খানুপুঙ্খ হাত পরিষ্কার করতে হবে। কোনো সংক্রমিত ব্যক্তির হাঁচি-কাশি বা শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে ছোট ছোট ফোঁটা বাতাসে ছড়িয়ে পড়ার মাধ্যমে ভাইরাসটির বিস্তার ঘটে। এ ফোঁটাগুলো আপনার চোখ, নাখ বা মুখ স্পর্শ করলে সেটা আপনাকে সংক্রমিত করতে পারে। সুতরাং হাঁচি-কাশিতে টিস্যু ব্যবহার, নিয়মিত হাত পরিষ্কার, হাত দিয়ে চোখ, নাক ও মুখ স্পর্শ না করা এবং সংক্রমিত ব্যক্তিদের থেকে দূরে থাকা গুরুত্বপূর্ণ।ভাইরাসটিতে আক্রান্ত মানুষ অসুস্থ হওয়ার আগেই ভাইরাসটি ছড়িয়ে দিতে পারে, তবে লক্ষণগুলো দেখা গেলে সবচেয়ে বেশি সংক্রামক হবে।বিবিসি


  • 3
    Shares

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন

Back to top button