টাঙ্গাইল র‌্যাবের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

0
112

আশিকুর রহমান,টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলে করোনা ভাইরাসে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষদের সহায়তা করতে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে র‌্যাব টাঙ্গাইল।বর্তমান করোনা পরিস্থীতিতে অসহায় মানুষদের বাড়ির পাশে পতিত জমির পরিকল্পিত ব্যবহারের মাধ্যমে সমন্বিত উপায়ে মাচাতে বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষবাদ করে পুষ্টির চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি বাজারে বিক্রি করে আর্থিকভাবে লাভবান করতেই ব্যতিক্রমী এ উদ্যোগ। টাঙ্গাইল র‌্যাব-১২ এর কোম্পানী কমান্ডার মেজর আবু নাঈম মোহাম্মদ তালাতের নেতৃত্বে প্রাথমিকভাবে ১২টি পরিবারকে মাচা তৈরিসহ সবজি বীজ বিতরণ করেছেন।

জানা যায়, টাঙ্গাইল সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়নের কাঠুয়াযোগিনী গ্রামের প্রায় অধিকাংশ মানুষ দরিদ্র সীমার নিচে বসবাস করে। বর্তমান করোন ভাইরাসের কারনে গ্রামের প্রতিটি মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে অসহায় পরিবার গুলো রয়েছে নানা সমস্যায়। ঠিক সেই সময় এই অসহায় মানুষদের পাশে দাড়িয়েছে টাঙ্গাইল র‌্যাব-১২।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, টাঙ্গাইল র‌্যাব-১২ সিপিসি ৩ এর কোম্পানী কমান্ডার মেজর আবু নাঈম মোহাম্মদ তালাত প্রাথমিকভাবে ১২টি অসহায় পরিবারকে ১২টি মাচা তৈরি ও বিভিন্ন ধরনের সবজি বীজ বিতরণ করেন। এ সবজি বাগানের মাধ্যমে প্রত্যেকটি পরিবরের সদস্যরা তাদের পর্যাপ্ত পুষ্টির চাহিদা মেটাতে পারবে। সেই সাথে বাড়তি সবজি গুলো বাজারে বিক্রি করে আর্থিকভাবেও লাভবান হবে।

এলাকাবাসী ও সুবিধাভোগীরা বলেন, করোনা ভাইরাসের কারনে বাইরে গিয়ে উর্পাজন করতে পারি না। তাই টাঙ্গাইল র‌্যাব সদস্যরা আমাদের একটি সবজি বাগান করে দিয়েছে। এতে আমাদের অনেক উপকার হয়েছে। এ বাগান থেকে নিজেরা খাওয়ার পাশাপাশি বাজারে বিক্রি করতে পারবো।

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম বলেন,  টাঙ্গাইল র‌্যাব-১২ এর কোম্পানী কামান্ডারকে আমার ইউনিয়নের পক্ষ থেকে অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানাই। তার এই সুন্দর উদ্যোগের কারনে আমার এলাকার ১২টি পরিবার অনেক উপকৃত হয়েছে। এ উদ্যোগ যদি সব জায়গায় নেওয়া হয় তাহলে হয়তো আগামী দিনগুলোতে আমাদের কোন ধরনের প্রাকৃতি সমস্যায় পড়তে হবে না।

টাঙ্গাইল র‌্যাব-১২ সিপিসি ৩ এর কোম্পানী কমান্ডার মেজর আবু নাঈম মোহাম্মদ তালাত বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী র‌্যাবের সকল সদস্যরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে আমরা বিভিন্ন ধরনের
ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহন করেছি। করোন ভাইরাসে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ব্যতিক্রমী বাজার ব্যবস্থাপনার উদ্যোগ গ্রহণ করি। পরে তা বাস্তবায়ন করেছি। এরপর আমরা চিন্তা করলাম কিভাবে কর্মহীন মানুষদের পাশে থাকা যায়। এরই ধারাবাহিকতায় বাড়ির পাশে পতিত জমির পরিকল্পিত ব্যবহারের মাধ্যমে সমন্বিত উপায়ে মাচাতে বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষবাদ করে পুষ্টির চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি বাজারে বিক্রি করে তারা যেন আর্থিকভাবে লাভবান হয় সেই পথ দেখানোই আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য।